kalerkantho

রবিবার । ১৯ জানুয়ারি ২০২০। ৫ মাঘ ১৪২৬। ২২ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

নবম-দশম : রসায়ন বিজ্ঞান

জৈব রসায়ন

মো. আশরাফুল ইসলাম প্রভাষক, রসায়ন বিভাগ সেন্ট জোসেফ উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ঢাকা

৭ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



আজকে রসায়নের গুরুত্বপূর্ণ একটি অংশ নিয়ে আলোচনা করব, তা হলো জৈব রসায়ন। রসায়ন বিষয়কে প্রধানত তিন ভাগে ভাগ করা হয়ে থাকে যেমন—

১. ভৌত রসায়ন ২. অজৈব রসায়ন

৩. জৈব রসায়ন

এসএসসি পরীক্ষার্থীদের সিলেবাস অনুসারে একাদশ ও দ্বাদশ অধ্যায়টি জৈব রসায়ন হিসেবে পরিচিত। এ দুটি অধ্যায় থেকে প্রতিবছর পাবলিক পরীক্ষায় কমপক্ষে দুটি সৃজনশীল ও চার-পাঁচটি বহু নির্বাচনী প্রশ্ন আসতে দেখা যায়। আবার ক্ষেত্রবিশেষে কোনো পরীক্ষায় তিনটি সৃজনশীল আসতেও দেখা গেছে। তাই এই দুটি অধ্যায়ের গুরুত্ব অনেক। প্রথমেই ‘খনিজ সম্পদ : জীবাশ্ম’ অধ্যায়টি নিয়ে আলোচনা করা হলো।

 

এ অধ্যায়ে প্রথমেই হাইড্রোকার্বন সম্পর্কে পূর্ণ ধারণা রাখতে হবে। নিম্নে হাইড্রোকার্বন ও তার শ্রেণিবিভাগ বর্ণনা করা হলো।

 

     ►         হাইড্রোকার্বন কী?

     ►       হাইড্রোকার্বন একটি দ্বিপারমাণবিক যৌগ, যা শুধু কার্বন ও হাইড্রোজেনের সমন্বয়ে গঠিত হয়।

 

হাইড্রোকার্বনের শ্রেণিবিভাগের প্রবাহ চিত্র :

 

      ►      হাইড্রোকার্বন

      ►     অ্যালিফেটিক হাইড্রোকার্বন (Aliphatic Hydrocarbons)

      ►    অ্যারোমেটিক হাইড্রোকার্বন Arometic Hydrocarbon

      ►    মুক্ত শিকল হাইড্রোকার্বন          

      ►   বদ্ধ শিকল হাইড্রোকার্বন

      ►    কার্বোসাইক্লিক

      ►    বিষম অ্যারোমেটিক

      ►     সরল শিকল হাইড্রোকার্বন

      ►     শাখা শিকল হাইড্রোকার্বন

      ►    হোমোসাইক্লিক হাইড্রোকার্বন

      ►   হেটারো সাইক্লিক হাইড্রোকার্বন

      ►    সম্পৃক্ত হাইড্রোকার্বন বা অ্যালকেন

      ►   অসম্পৃক্ত হাইড্রোকার্বন

      ►   অ্যালকিন

 

অ্যালকাইন

 

বিভিন্ন হাইড্রোকার্বনের সাধারণ সংকেত

১. অ্যালকেন ⟶ CnH2n+2

২. অ্যালকিন ⟶ CnH2n

৩. অ্যালকাইন ⟶ CnH2n-2

এখানে, n = কার্বনের সংখ্যা

এই সাধারণ সংকেতগুলো ব্যবহার করে যেকোনো অ্যালকেন, অ্যালকিন ও অ্যালকাইনের আণবিক সংকেত নির্ণয় করা যায়। যেমন—

একটি কার্বনবিশিষ্ট অ্যালকেনের নাম ⟶ মিথেন, সংকেত ⟶CH4

দুটি কার্বনবিশিষ্ট অ্যালকেনের নাম ⟶ ইথেন, সংকেত ⟶ C2H6

ব্যাখ্যা : ইথেনের জন্য n=2

সুতরাং CnH2n+2 =C2H2x2+2 = C2H6

ওপরের নিয়ম অনুসারে বিভিন্ন অ্যালকেনের নাম ও সংকেত

প্রোপেন (কার্বনের সংখ্যা ৩) সংকেত ⟶C3H8

বিউটেন (কার্বনের সংখ্যা ৪) সংকেত ⟶ C4H10

পেন্টেন (কার্বনের সংখ্যা ৫) সংকেত ⟶ C5H12

ডেকেনে (কার্বনের সংখ্যা ১০) সংকেত ⟶ C10H22

আনডেকেন (কার্বনের সংখ্যা ১১) সংকেত ⟶ C11H24

ডোডেকেন (কার্বনের সংখ্যা ১২) সংকেত ⟶ C12H26

আইকোসেন (কার্বনের সংখ্যা ২০) সংকেত ⟶ C20H42

 

অ্যালকিন :

 

Alkane-ane/+ene Alkene

অ্যালকিনের নাম লেখার সময় Alkane-এর ane বাদ দিয়ে ene মুক্ত করতে হবে। যেমন—

Ethane-ane/+ene Ethene (ইথিন)

Propane-ane/+ene Propene (প্রোপিন)

বি.দ্র. : মনে রাখতে হবে অ্যালকিনের প্রথম সদস্য দুই কার্বনবিশিষ্ট।

অ্যালকিনের নাম⟶ সাধারণ সংকেত⟶ আণবিক সংকেত

ইথিন (কার্বনের সংখ্যা ২টি) ⟶ CnH2n ⟶ C2H4

প্রোপিন (৩টি) ⟶CnH2n ⟶ C3H6

বিউটিন (৪টি) ⟶CnH2n ⟶C4H8

অ্যালকাইন :

Alkane -ane/+yne Alkyne

অ্যালকেনের নামের শেষে ‘ane’ বাদ দিয়ে ‘ুne’ যুক্ত করে নাম লিখতে হয়। যেমন—

Ethane -ane/+yne Ethyne (ইথাইন)

Propane -ane/+yne Propyne (প্রোপাইন)

অ্যালকাইনের নাম কার্বনের সংখ্যা সাধারণ সংকেত আণবিক সংকেত

ইথাইন ⟶ 2 ⟶ CnH2n-2⟶C2H2

প্রোপাইন⟶ 3 ⟶ CnH2n-2⟶C3H4

বিউটাইন ⟶ 4 ⟶ CnH2n-2 ⟶ C4H6

পেন্টাইন ⟶ 5 ⟶ CnH2n-2 ⟶ C5H8

 

জৈব রসায়নের গুরুত্বপূর্ণ তথ্য

 

 ►       ১৬৭৫ সালে বিজ্ঞানী লেমেরি প্রাকৃতিক উৎসজাত যৌগগুলোকে খনিজ, উদ্ভিজ ও প্রাণিজ এই তিন শ্রেণিতে বিভক্ত করেন।

 ►          ১৭৮৪ সালে বিজ্ঞানী ল্যাভসিয়ের দেখান যে উদ্ভিদ ও প্রাণিজাত সব যৌগেই অন্ততপক্ষে কার্বন, হাইড্রোজেন ও সাধারণত অক্সিজেন রয়েছে।

 ►          ল্যাভসিয়ের গবেষণার পর পরবর্তী সময়ে বিজ্ঞানী লেমেরি প্রদত্ত শ্রেণিবিভাগ কিছুটা পরিবর্তন করে জৈব যৌগ ও অজৈব যৌগ এই দুই শ্রেণিতে বিভক্ত করা হয়।

 ►          ১৮১৫ সালে সুইডিশ বিজ্ঞানী বার্জে লিয়াস প্রাণশক্তি মতবাদ দেন।

 ►           ১৮২৮ সালে ফ্রেডরিক উলার পরীক্ষাগারে সর্বপ্রথম অজৈব যৌগ থেকে জৈব যৌগ ইউরিয়া তৈরি করেন। এর ফলে প্রাণশক্তি মতবাদ প্রশ্নবিদ্ধ হয়।

 ►          ইউরিয়া তৈরির বিক্রিয়া—NH4CNO (তাপ) H2N-CO-NH2 (ইউরিয়া)

 ►         উল্লেখ্য, ফ্রেডরিক উলারকে জৈব রসায়নের জনক বলা হয়।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা