kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৩০ জানুয়ারি ২০২০। ১৬ মাঘ ১৪২৬। ৪ জমাদিউস সানি ১৪৪১     

বাংলা প্রথম পত্রের সৃজনশীল প্রশ্নের নমুনা

১৬ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৬ মিনিটে



ক-অংশ (গদ্য)

১। বাল্যকাল হইতে আমাদের শিক্ষার সহিত আনন্দ নাই। কেবল যাহা নিতান্ত আবশ্যক তাহাই কণ্ঠস্থ করিতেছি। তেমনি কোন মতে কাজ চলে মাত্র। কিন্তু মনের বিকাশ লাভ হয় না। হাওয়া খাইলে পেট ভরে না। আহার করিলে পেট ভরে, কিন্তু আহারাদি রীতিমতো হজম করিবার জন্য হাওয়া আবশ্যক।

ক) ‘ভাঁড়েও ভবানী’ অর্থ কী?           ‘ব্যাধিই সংক্রামক, স্বাস্থ্য নয়’—ব্যাখ্যা করো।

গ) উদ্দীপকটি ‘বই পড়া’ প্রবন্ধের সঙ্গে কোন দিক থেকে সাদৃশ্যপূর্ণ? বর্ণনা করো।

ঘ) “উদ্দীপকটি ‘বই পড়া’ প্রবন্ধের সমগ্র ভাব নয়, খণ্ডিত অংশকে ধারণ করেছে মাত্র”- বিশ্লেষণ করো।

২। লাখো শ্রমিকের টানা বিশ বছরের পরিশ্রমে গড়ে উঠেছিল খুফুর পিরামিড। ২৩ লাখ লাইমস্টোন ব্লকের সমন্বয়ে এটি নির্মিত হয়েছিল। এটির নির্মাণশৈলী বিস্ময়কর। এই অত্যাশ্চর্য নির্মাণশৈলীর ফলে সাড়ে চার হাজার বছর পরেও খুফুর পিরামিড স্বমহিমায় পৃথিবীর বুকে এখনো দীপ্যমান। কালজয়ী খুফুর পিরামিডের অত্যাশ্চার্য নির্মাণশৈলী আজও বিশ্বের বিস্ময়।

ক) কাদের অন্তর কাচের ন্যায় স্বচ্ছ?    

খ) “তাহার আত্মা তোমার আত্মার মতোই ভাস্বর, আর একই মহা-আত্মার অংশ”- এখানে লেখক কী বোঝাতে চেয়েছেন?           

গ) উদ্দীপকের সঙ্গে ‘উপেক্ষিত শক্তির উদ্বোধন’ প্রবন্ধের সাদৃশ্যের দিকটি ব্যাখ্যা করো।   

ঘ) “উদ্দীপকের বিষয়টি ‘উপেক্ষিত শক্তির উদ্বোধন’ প্রবন্ধের খণ্ডাংশ মাত্র”- মন্তব্যটির যথার্থতা নিরূপণ করো।

৩। শহরের এক ধনাঢ্য ব্যক্তির বাড়িতে কাজ করে জান্নাতি। ওই বাড়ির গৃহকর্ত্রী কর্তৃক প্রচণ্ড নির্যাতনের শিকার হয়ে সে হাসপাতালে ভর্তি হয়। প্রচণ্ড অসুস্থ মেয়েটিকে মানসিক ও শারীরিক নির্যাতনের পাশাপাশি গরম লোহার রড দিয়ে পুড়িয়ে দেওয়া হয় সারা শরীর।

ক) মমতাদি কত টাকা বেতন আশা করেছিল?

খ) ‘বেশি আস্কারা দিও না, জ্বালিয়ে মারবে’- মা এ কথা বলেছেন কেন?         গ) উদ্দীপকের জান্নাতির প্রেক্ষাপটে ‘মমতাদি’ গল্পের ভিন্নতার দিকটি ব্যাখ্যা করো।          

ঘ) ‘মমতাদি’ গল্পের গৃহকর্ত্রীর মতো উদ্দীপকের গৃহকর্ত্রীর আচরণ হলে আমাদের সমাজ অনেক সুন্দর হতো—কথাটি উদ্দীপক ও ‘মমতাদি’ গল্পের আলোকে বিশ্লেষণ করো।

           

৪। প্রিয় বাবাজান,

আজ যদি আপনার জ্যেষ্ঠ পুত্র ফারুক স্বেচ্ছায় যুদ্ধের ময়দানে অন্যায়ের বিরুদ্ধে ন্যায়ের পক্ষে যুদ্ধে মৃত্যুকে আলিঙ্গন করে, তাহলে আপনি কি দুঃখ পাবেন, বাবা? আপনার দুঃখিত হওয়া সাজে না, কারণ হানাদারদের বিরুদ্ধে যুদ্ধে যদি নিহত হই, আপনি হবেন শহীদের পিতা। আর যদি যুদ্ধে জয়লাভ করে স্বাধীন দেশে ফিরে আসতে পারি সেটি হবে আরো গৌরবের। শহীদ হলেও আপনার অগৌরবের কিছুই হবে না। আপনি হবেন বীর শহীদের বীর জনক...।

ইতি- আপনার স্নেহের ফারুক

[তথ্যসূত্র : একাত্তরের চিঠি]

ক) ১৯৭১ সালের মে মাসের কত তারিখে প্রাইমারি স্কুল খোলার হুকুম হয়েছিল?

খ) ‘তাহলেই দেখ ভয়টা আসলে মনে’- বাক্যটি বুঝিয়ে লেখো।        

গ) উদ্দীপকে বীর মুক্তিযোদ্ধা ফারুকের বক্তব্য ‘একাত্তরের দিনগুলি’ রচনার কোন ঘটনা তুলে ধরে—ব্যাখ্যা করো।  

ঘ) “উদ্দীপকটি ‘একাত্তরের দিনগুলি’ রচনার সমগ্রভাবকে তুলে ধরেনি”- মতামত দাও।

খ-অংশ (কবিতা)

৫। আবার আসিব ফিরে ধানসিঁড়িটির তীরে- এই বাংলায়/হয়তো মানুষ নয়- হয়তো বা শঙ্খচিল শালিকের বেশে/হয়তো ভোরের কাক হয়ে এই কার্তিকের নবান্নের দেশে/ কুয়াশার বুকে ভেসে একদিন আসিব এ কাঁঠাল ছায়ায়।

ক) মাইকেল মধুসূদন দত্তের অমর কীর্তি কোনটি?       

খ) ‘স্নেহের তৃষ্ণা’ বলতে কবি কী বোঝাতে চেয়েছেন?         

গ) “উদ্দীপকে ‘কপোতাক্ষ নদ’ কবিতার যে দিক প্রকাশ পেয়েছে তা—ব্যাখ্যা করো।         

ঘ) উদ্দীপকে ‘কপোতাক্ষ নদ’ কবিতার সমগ্র ভাব প্রকাশ পেয়েছে কী? তোমার যুক্তিনির্ভর মতামত দাও।  

৬। রাত্রে যদি সূর্য শোকে ঝরে অশ্রুধারা

সূর্য নাহি ফেরে কভু ব্যর্থ হয় তারা।

সময়ের মূল্য বুঝে করে যারা কাজ

তারা আজ স্মরণীয় জগতের মাঝ।

ক) কবি কী দেখে ভুলতে নিষেধ করেছেন?       

খ) ‘আয়ু যেন শৈবালের নীর’- ব্যাখ্যা করো।

গ) উদ্দীপকটি ‘জীবন-সঙ্গীত’ কবিতার কোন ভাবের ইঙ্গিত বহন করে? ব্যাখ্যা করো।        

ঘ) ‘তারা আজ স্মরণীয় জগতের মাঝ’- ‘জীবন-সঙ্গীত’ কবিতার আলোকে বাক্যটির তাৎপর্য বিশ্লেষণ করো।    

৭। প্রচণ্ড ঝড়ে বিধ্বস্ত রসুলপুর গ্রামের মানুষ আরশাদ খাঁর কাছারি ঘরের সামনে জমায়েত হয়। আরশাদ খাঁ গ্রামের গণ্যমান্য ব্যক্তি। তার নির্দেশনা পেয়ে অসহায় মানুষগুলো এই বিপদের মোকাবেলা করার সাহস পায়।

ক) কারা ‘হাতের মুঠোয় মৃত্যু এবং চোখে স্বপ্ন নিয়ে’ ভাষণ শুনতে এসেছিল?          

খ) ‘কবির বিরুদ্ধে কবি’ বলতে কী বোঝানো হয়েছে?          

গ) উদ্দীপকে ‘স্বাধীনতা, এ শব্দটি কীভাবে আমাদের হলো’ কবিতার কোন দিকটি প্রকাশিত হয়েছে? ব্যাখ্যা করো।  

ঘ) “উদ্দীপকের মূলভাবটি ‘স্বাধীনতা, এ শব্দটি কীভাবে আমাদের হলো’ কবিতার সম্পূর্ণ ভাবকে ধারণ করেনি”- উক্তিটির সত্যাসত্য নিরূপণ করো।      

 

গ-অংশ (উপন্যাস)

৮। স্কুল শিক্ষক ছিলেন মুর্দা ফকির। তেতাল্লিশের দুর্ভিক্ষে তিনি তাঁর স্ত্রী-পুত্র কন্যাদের অনাহারে মৃত্যুবরণ করতে দেখেছেন। সেই লাশগুলোকে কবর পর্যন্ত দিতে পারেননি। সেগুলো শিয়াল-শকুনে খুবলে খুবলে খেয়েছে। এসব দৃশ্য দেখে মুর্দা ফকির পাগল হয়ে গেছে।

ক) বুধা ফুলকলিকে নিয়ে কোথায় ওঠে?          

খ) ‘লোহার টুপি ওদের মগজ খেয়েছে’- এ উক্তিটি দ্বারা কী বোঝানো হয়েছে?          

গ) উদ্দীপকের মুর্দা ফকির ‘কাকতাড়ুয়া’ উপন্যাসের যে চরিত্রের সঙ্গে সাদৃশ্যপূর্ণ তা ব্যাখ্যা করো।

ঘ) উদ্দীপকে ‘কাকতাড়ুয়া’ উপন্যাসের সম্পূর্ণ ভাবের প্রতিফলন ঘটেনি—বিশ্লেষণ করো।   

৯। মিয়ানমার সরকারের নির্যাতনের শিকার হয়ে লাখ লাখ রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে। মিয়ানমারের সেনাবাহিনী রোহিঙ্গাদের বাড়ি-ঘর জ্বালিয়ে পুড়িয়ে ছাড়খার করেছে। চোখের সামনে তাদের বাবা-মা, ভাই-বোনদের হত্যা করে বর্মি আর্মি। সব কিছু হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে জীবন বাঁচাতে রোহিঙ্গারা বাংলাদেশে প্রবেশ করে। হিংসা-বিদ্বেষ, স্বার্থ মানুষকে কত নিচে নামিয়ে দিতে পারে এ ঘটনা তারই এক জ্বলন্ত উদাহরণ।

ক) কে বুধাকে মাইন দিয়েছিল?

খ) আলো আঁধার বুধার কাছে সমান কেন? বুঝিয়ে লেখো।        

গ) উদ্দীপকটি ‘কাকতাড়ুয়া’ উপন্যাসের কোন ঘটনার সঙ্গে সাদৃশ্যপূর্ণ—ব্যাখ্যা করো।        

ঘ) ‘হিংসা-বিদ্বেষ, স্বার্থ-মানুষকে কত নিচে নামিয়ে দিতে পারে এ ঘটনা তারই এক জ্বলন্ত উদাহরণ’- উক্তিটি উদ্দীপক ও ‘কাকতাড়ুয়া’ উপন্যাস অবলম্বনে বিশ্লেষণ করো।  

 

ঘ-অংশ (নাটক)

১০। ‘লালসালু’ উপন্যাসের প্রধান চরিত্র মজিদ। সে মোদাচ্ছের পীরের মাজার সাজিয়ে মহব্বতনগর গ্রামে জাঁকিয়ে বসে। দশ গ্রামজুড়ে তার নাম। মজিদের দ্বিতীয় স্ত্রী জমিলা তার ভণ্ডামি বুঝতে পেরে অবাধ্য হয়ে ওঠে। স্বামীর বিরুদ্ধে তার প্রতিবাদ ভাষা পায় উচ্চৈঃস্বরে হাসি, শব্দ করে চলাফেরা প্রভৃতির মাধ্যমে।

ক) ‘বহিপীর’ নাটকের শেষ সংলাপটি কার?

খ) ‘এবার তার সাধের স্বপ্ন ভেঙে যাবে’—কথাটি কে কেন বলেছিল?  

গ) উদ্দীপকের মজিদ ‘বহিপীর’ নাটকের কোন চরিত্রের সঙ্গে সাদৃশ্যপূর্ণ—আলোচনা করো।           

ঘ) উদ্দীপকের জমিলা চরিত্রটি ‘বহিপীর’ নাটকের তাহেরা চরিত্রটিকে পুরোপুরি ধারণ করে কি? তোমার মতের পক্ষে যুক্তি দেখাও।

           

১১। নদীর একূল ভাঙে ওকূল গড়ে

এই তো নদীর খেলা

সকাল বেলা আমির রে তুই

ফকির সন্ধ্যাবেলা।

ক) হাতেম আলীর জমিদারি কোথায় ছিল?       

খ) ‘এমন মেয়েও কারও পেটে জন্মায় জানতাম না’- কথাটি বুঝিয়ে বলো।   

গ) উদ্দীপকের বক্তব্যের প্রতিফলন ‘বহিপীর’ নাটকের কোন চরিত্রের মধ্যে দেখা যায়? ব্যাখ্যা করো।          

ঘ) “উদ্দীপকটি ‘বহিপীর’ নাটকের ভাবকে সম্পূর্ণ ধারণ করেনি”- মন্তব্যটি মূল্যায়ন করো।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা