kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৫ অক্টোবর ২০১৯। ৩০ আশ্বিন ১৪২৬। ১৫ সফর ১৪৪১       

কুমুদিনী হাসপাতাল

কিট নেই, চার দিন ধরে পরীক্ষা বন্ধ

মির্জাপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি   

৮ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে এক হাজার ৫০ বেডের কুমুদিনী হাসপাতালে গত শনিবার থেকে কিট সংকটের কারণে ডেঙ্গু পরীক্ষা বন্ধ রয়েছে। তা ছাড়া পুরুষ ও মহিলা ডেঙ্গু রোগীদের জন্য হাসপাতালে পৃথক ওয়ার্ড খোলা হয়েছে।

এদিকে গতকাল সকাল পর্যন্ত কুমুদিনী হাসপাতালে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত তিন শিশুসহ ২৪ জন রোগী ভর্তি রয়েছে। গত শুক্রবার পর্যন্ত কুমুদিনী হাসপাতালে ৭১ জন রোগীর ডেঙ্গু শনাক্ত করা হয়েছে।

কিট বরাদ্দ না পাওয়ায় উপজেলার জামুর্কীস্থ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গতকাল পর্যন্ত ডেঙ্গু পরীক্ষা শুরু হয়নি। সরকারিভাবে কিট না আসায় ডেঙ্গু শনাক্ত পরীক্ষা শুরু করা যায়নি বলে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. শামীম আহমেদ জানিয়েছেন। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ডেঙ্গু শনাক্তকরণ পরীক্ষা শুরু না হওয়ায় স্থানীয় লোকজনের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। এদিকে ডেঙ্গু বিষয়ে সচেতনতা বাড়াতে উপজেলা ও পুলিশ প্রশাসন মাইকিং ও লিফলেট বিতরণ করছে। পৌরসভার পক্ষ থেকে শহরের ৩ নম্বর ওয়ার্ডে মশক নিধন অভিযান চালানো হলেও অন্য সব ওয়ার্ডে তা হয়নি।

কুমুদিনী হাসপাতালের এজিএম অনিমেশ ভৌমিক জানান, কিট না থাকায় গত শনিবার থেকে ডেঙ্গু শনাক্ত পরীক্ষা বন্ধ রয়েছে। কিট এলেই রোগীদের ডেঙ্গু শনাক্ত পরীক্ষা শুরু করা হবে।

হাসপাতালের আইসিইউ বিভাগের চিকিৎসক ডা. দীপঙ্কর রায় বলেন, ডেঙ্গু রোগীর শরীরে রক্তনালি থেকে রক্তের জলীয় অংশ টিস্যু থেকে দূরে চলে আসে। রক্তের এই জলীয় অংশ কমে আশায় রক্তের ঘনত্ব বেড়ে যায় এবং প্লাটিলেট (অণুচক্রিকা) কমে যায়। এতে ব্লাড প্রেসার কমতে থাকে। শরীরের বড় অর্গানগুলোতে পর্যাপ্ত পরিমাণ রক্ত চলাচল করতে না পারায় লিভার, হার্ট ও ব্রেনে আঘাত হানে।

মির্জাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. শামীম আহমেদ বলেন, স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আগে কখনো ডেঙ্গু শনাক্তের কাজ করা হয়নি। এই রোগের প্রকোপ দেখা দেওয়ায় চাহিদাপত্র পাঠানো হয়েছে। কেন্দ্রীয়ভাবে কিটের সংকট রয়েছে। কিট পেলেই ডেঙ্গু শনাক্তকরণ কাজ শুরু করা হবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা