kalerkantho

সোমবার । ২১ অক্টোবর ২০১৯। ৫ কাতির্ক ১৪২৬। ২১ সফর ১৪৪১       

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ২৪ ঘণ্টায় আরো আট রোগী

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি   

৩ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা প্রতিদিনই বাড়ছে। গত বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টা থেকে শুক্রবার দুপুর ১২টা নাগাদ ২৪ ঘণ্টায় আরো আটজন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছে। আক্রান্তরা সবাই ঢাকাফেরত। এ নিয়ে আক্রান্তের সংখ্যা ৪০ ছাড়িয়েছে।

এদিকে জেলার সরাইল উপজেলার নরশীলপুর গ্রামে মো. হামজা (১২) নামের এক শিশু ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে। গত বৃহস্পতিবার বিকেলে কিশোরগঞ্জের ভৈরব উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তির কিছুক্ষণ পরই শিশুটি মারা যায়।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, আক্রান্তদের মধ্যে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সদর হাসপাতালে ১৭ জন, নাসিরনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে দুজন, নবীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে একজন ভর্তি আছে। বাকিরা জেলা ও উপজেলা সদরের বিভিন্ন ক্লিনিক, ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও নিজ বাড়িতে চিকিৎসানিচ্ছে।

এদিকে ডেঙ্গু সচেতনতায় জেলার সর্বত্র প্রচারণা শুরু হয়েছে। গতকাল সকালে সরাইলে পুলিশের উদ্যোগে ডেঙ্গু ও গুজব সচেতনতা বিষয়ে শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়। জেলা প্রশাসক হায়াত-উদ-দৌলা খান গত বৃহস্পতিবার ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর এলাকার বিভিন্ন স্থানে প্রচারপত্র বিলি করেন।

অন্যদিকে ডেঙ্গু শনাক্তকরণ পরীক্ষায় বেশি ফি নেওয়ায় চার ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারকে গত বুধবার বিকেলে জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। অভিযানে ক্রিসেন্ট ডায়াগনস্টিক সেন্টারকে ২৫ হাজার টাকা, মডার্ন ডায়াগনস্টিক সেন্টারকে ১০ হাজার টাকা, কুমারশীল মোড়ের নাজ মেডিক্যাল হলকে ১৫ হাজার টাকা ও হোপ ডায়াগনস্টিক সেন্টারকে ২৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. মো. শওকত হোসেন বলেন, ‘হাসপাতালে ভর্তি থাকা সব ডেঙ্গু রোগী শঙ্কামুক্ত। একজনের অবস্থা খারাপ হওয়ায় তাকে উন্নত চিকিত্সার জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা