kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৮ বৈশাখ ১৪২৮। ১১ মে ২০২১। ২৮ রমজান ১৪৪২

আন্না কারেনিনা উপন্যাস ও চলচ্চিত্র

মাহমুদ শাওন

   

২৯ জুন, ২০১২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



আন্না কারেনিনা উপন্যাস ও চলচ্চিত্র

লিও তলস্তয়ের উপন্যাস অবলম্বনে নির্মিত 'আন্না কারেনিনা' সিনেমার পোস্টার

'আন্না কারেনিনা'। রুশ সাহিত্যের তো বটেই, বিশ্বসাহিত্যের অন্যতম ক্লাসিক এই উপন্যাসটি প্রকাশের সোয়া শ বছর পেরিয়ে গেছে। সময় যত গড়িয়েছে, প্রজন্মবাহিত হয়ে তার জনপ্রিয়তা ছড়িয়েছে বিশ্বব্যাপী। লিও তলস্তয়ের লেখা এ উপন্যাসটি প্রকাশিত হয় ১৮৭৩ থেকে ১৮৭৭ সাল পর্যন্ত, ধারাবাহিক আকারে। উপন্যাসের প্রধান চরিত্রই আন্না কারেনিনা। একজন দুঃখী, অসুখী নারী, যার বেঁচে থাকা যেন শুধু সন্তানের জন্যই। যদিও তাঁর স্বামী আলেঙ্াই আলেকসান্দে একজন সম্ভ্রান্ত, গম্ভীর ও যথেষ্ট ব্যক্তিত্বসম্পন্ন পুরুষ। বয়সে তিনি আন্নার চেয়ে বিশ বছরের বড়। মস্কো শহরে এক অনুষ্ঠানে আন্নার পরিচয় হয় সুদর্শন পুরুষ কাউন্ট ভ্রুনস্কির সঙ্গে। ভ্রুনস্কি অবশ্য আগে থেকেই আন্নাকে চেনে। আন্না ভ্রুনস্কির কাছে ভালোবেসে নিজেকে সঁপে দেয়। প্রকাশ্যে সে তার স্বামীকে ছেড়ে চলে আসে ভ্রুনস্কির কাছে। ভ্রুনস্কি ও আন্না দুজন দুজনকে পেয়ে আপাত সুখী হলেও সন্তান সেরিওজার জন্য মন পোড়াত আন্নার। মা ও প্রেমিকা_এ দুই সত্তার দ্বন্দ্ব তাকে শান্তিতে থাকতে দেয়নি। তা ছাড়া স্বামীর কাছে ডিভোর্স চাইলেও আলেকসান্দে তাকে ডিভোর্স দেয়নি। এমনকি সন্তান ও মায়ের দেখা করার প্রতিও ছিল কঠোর নিষেধাজ্ঞা। প্রতিনিয়ত দ্বিধা, সিদ্ধান্তহীনতা, ভয় আর নিজেকে বোঝা না-বোঝার ভার বয়ে বেড়াতে হয়েছে আন্নাকে। রুশ সমাজ, ব্যক্তিগত নিরাপত্তাহীনতা তাকে আষ্টেপৃষ্ঠে বেঁধে রেখেছিল। ভ্রুনস্কি ও আন্না বিবাহবহির্ভূত এক সন্তানের পিতা-মাতা হয়। একসময় ভ্রুনস্কি অন্য এক নারীকে বিয়েও করে। প্রেমের জন্য আন্না তার স্বামী-সন্তানকে ছেড়ে আসে। কিন্তু কী পেল সে? আন্না আত্মহত্যার উদ্দেশ্যে ট্রেনের নিচে ঝাঁপিয়ে পড়ে। এ এক অন্তহীন প্রায়শ্চিত্ত তার। বস্তুত উপন্যাসটি উনিশ শতকের রাশিয়া এবং এর বিত্তবান সমাজের গল্প, যার ভেতরে রয়েছে গভীর বেদনাময় এক শূন্য জীবনের আখ্যান। আন্নার ব্যক্তিগত দুঃখবোধ, নৈতিকতার দ্বন্দ্ব, প্রায়শ্চিত্ত শুধু তার একার না হয়ে তা যেন গোটা সমাজের চিত্র হয়েই ধরা দেয়। পাশাপাশি দুই দম্পতির সমান্তরাল কাহিনী তুলে ধরে তলস্তয় আপাত ভুল কিংবা ঠিক, প্রেম-অপ্রেম, ভালো বা মন্দের এক দ্বন্দ্বজটিল প্রতিবেশ নির্মাণ করেছেন এ উপন্যাসে। আন্নার অনুভবের মধ্য দিয়ে তলস্তয় তুলে ধরেন যেন চিরন্তন এক সত্যকে, 'পরিবারের দুঃখগুলো যার যার তার তার, সুখের অনুভূতি সবারই সমান।' উপন্যাসটি অবলম্বনে বিভিন্ন সময় একাধিক চলচ্চিত্র নির্মিত হয়েছে। ১৯৯৭ সালে Bernard Rose পরিচালনা করেন 'আন্না কারেনিনা' চলচ্চিত্রটি। একটি আন্তর্জাতিক প্রকল্প হিসেবে যৌথভাবে ছবিটি প্রযোজনা করেন আইকন প্রডাকশন ও ওয়ার্নার ব্রাদার্স। মূল ছবিটি দুই ঘণ্টা ২০ মিনিটের হলেও দর্শকদের উদ্দেশে মুক্তি দেওয়া হয় এক ঘণ্টা ৪৮ মিনিট। ১৯৯৭ সালের এপ্রিলে আমেরিকায় এবং মে মাসে ইউরোপে ছবিটির প্রিমিয়ার শো অনুষ্ঠিত হয়। ছবিটির বেশির ভাগ শুটিং হয় রাশিয়ার সেন্ট পিটারসবার্গে। কিছু অংশ মস্কোতেও শুটিং করা হয়। এই ছবিতে আন্না কারেনিনা চরিত্রে অভিনয় করেন Sophie Marceau. ভ্রুনস্কির চরিত্রে Sean Bean আর আলেকসাই আলেকসান্দে ভূমিকায় অভিনয় করেন James Fox. পুরো উপন্যাসে লেখক লিও তলস্তয় আন্নার প্রতি ছিলেন সহমর্মী। সব ভুল, শুদ্ধ, নৈতিক-অনৈতিকতার ঊর্ধ্বে উঠে আপন দায়িত্ববোধ ও প্রায়শ্চিত্তের কাছেই আন্নার অবশেষে আত্মসমর্পণ পাঠক মনে যে ব্যথা তৈরি করে, চলচ্চিত্রেও তার ব্যতিক্রম হয় না। 'আন্না কারেনিনা' আসলে স্বার্থপরতা, ঈর্ষা, বিশ্বাস, পরিবার, বিয়ে, সমাজ আর উচ্চাভিলাষীর কাহিনী। আর এর পাঠক বা দর্শক অবলীলায় সেসবের অংশ হয়ে যায়। 'আন্না কারেনিনা' উপন্যাস নিয়ে চলচ্চিত্র নির্মাণ এখনো থেমে নেই। জো রাইটের পরিচালনায় ২০১০ সালের জুনে শুটিং শুরু হয় আরেকটি 'আন্না কারেনিনা' চলচ্চিত্রের, যেখানে প্রধান চরিত্রে অভিনয় করছেন ব্রিটিশ অভিনেত্রী কিরা নাইটলি। ভবিষ্যতেও এ উপন্যাস নিয়ে চলচ্চিত্র নির্মাণ যে অব্যাহত থাকবে না তা কে বলতে পারে! লেখক উইলিয়াম ফকনারের ভাষায়, এ যে the best ever written উপন্যাস!


সাতদিনের সেরা