kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০২২ । ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ । ১৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

যেভাবে ভেস্তে গিয়েছিল ইলন মাস্কের টুইটার কেনার চুক্তি

অনলাইন ডেস্ক   

১ অক্টোবর, ২০২২ ২০:৫১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে




যেভাবে ভেস্তে গিয়েছিল ইলন মাস্কের টুইটার কেনার চুক্তি

ইলন মাস্ক ও পরাগ আগরওয়াল-ছবি:গেটি/বিবিসি

প্রযুক্তি ব্যবসায়ী ইলন মাস্কের ৪৪ বিলিয়ন ডলারের সুবিশাল অঙ্কে টুইটার কেনার ঘোষণায় নড়েচড়ে বসেছিল টেক বিশ্ব। বিশ্বের শীর্ষ ধনীর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমটি কেনার প্রাথমিক চুক্তি একপর্যায়ে জটিলতায় পড়ে আটকে যায়। ইলন মাস্ক সরে আসতে চাইলেও বিক্রির বিষয়টি অনুমোদন দেয় টুইটারের বোর্ড। বিষয়টি গড়িয়েছে আদালতে।

বিজ্ঞাপন

এদিকে মামলার শুনানির জন্য আদালতে জমা দেওয়া হয়েছে ইলন মাস্ক ও টুইটারের প্রধান নির্বাহী পরাগ আগরওয়ালের মধ্যে আদান-প্রদান হওয়া ক্ষুদেবার্তা। চলতি বছর মার্চের শুরুতে জানা যায় টুইটারের শেয়ার কিনে বোর্ড সদস্য হতে চাইছেন মাস্ক। ২৭ মার্চ পরাগ আগরওয়াল প্রথমবার মাস্ককে ক্ষুদেবার্তা পাঠান। এরপর অনেকবার দুজন পরস্পরের সঙ্গে কথা বলেছেন। দেখাও করেছেন।

কিন্তু পরিস্থিতি বদলে যায় ৯ এপ্রিল মাস্কের করা টুইটে। এতে তিনি লেখেন, টুইটারে সবচেয়ে বেশি অনুসারী যাদের; তারাই কম টুইট করছেন। টুইটার কি তবে মুমূর্ষ অবস্থায় আছে? ইলন মাস্কের এই টুইটের পর ক্ষেপে যান আগরওয়াল। দুজনের মধ্যে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় হয়।

এর জেরে ২৫ এপ্রিল টুইটার কেনার প্রস্তাব দেন মাস্ক। বোর্ড সে প্রস্তাবে সায় দেয়। কিন্তু কিছুদিন পর থেকে টুইটার ও মাস্কের সম্পর্ক খারাপ হতে থাকে। এক পর্যায়ে গত জুলাইতে টুইটার  কেনার চুক্তি থেকে সরে আসতে চান মাস্ক। কিন্তু সেপ্টেম্বরে টুইটার বোর্ড চুক্তিতে অনুমোদন করে ফেলে।

এই অক্টোবরে জানা যাবে মাস্ককে চুক্তি থেকে সরে আসার অনুমোদন দেওয়া হবে নাকি তাঁকে জোর করেই প্রতিষ্ঠানটি কিনতে বাধ্য করা হবে। তবে দুজনের ক্ষুদেবার্তা থেকে স্পষ্ট, মাস্ককে বাধ্য হয়ে টুইটার কিনতে হলে নতুন চাকরি খুঁজতে হবে পরাগ আগরওয়ালকে।  সূত্র: বিবিসি



সাতদিনের সেরা