kalerkantho

সোমবার । ৫ ডিসেম্বর ২০২২ । ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ । ১০ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

জেনারেল প্রায়ুথের পক্ষেই থাই আদালতের রায়

অনলাইন ডেস্ক   

৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ২০:৩৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



জেনারেল প্রায়ুথের পক্ষেই থাই আদালতের রায়

আদালতের রায়ের বিরুদ্বে রাজপথে বিক্ষােভ-ছবি: এএফপি

থাইল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী প্রায়ুথ চান-ওচার ক্ষমতার মেয়াদ নিয়ে প্রশ্ন তোলা এক আইনি চ্যালেঞ্জ খারিজ করে দিয়েছেন দেশটির সাংবিধানিক আদালত। আদালতের রায়ে বলা হয়েছে, তিনি প্রধানমন্ত্রীর পদে বহাল থাকতে পারবেন।

মামলা চলাকালে ওচাকে সাময়িকভাবে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছিল। তবে শেষ পর্যন্ত রায় বিরোধী দলের আবেদনের বিরুদ্ধে যাবে বলেই ধারণা করা হচ্ছিল।

বিজ্ঞাপন

বিরোধী দলের আবেদনে বলা হয়েছিল, সংবিধানে প্রধানমন্ত্রী পদের জন্য সীমিত করে দেওয়া আট বছরের মেয়াদ পার করে ফেলেছেন জেনারেল প্রায়ুথ চান-ওচা।

সাবেক সেনাপ্রধান চান-ওচা ২০১৪ সালে অভ্যুত্থানের মধ্য দিয়ে ক্ষমতায় আসেন এবং একই বছরের আগস্টে নিজেকে প্রধানমন্ত্রী ঘোষণা করেন। সেই হিসাব অনুসারে তাঁর প্রধানমন্ত্রিত্বের আট বছরের মেয়াদ পার হয়ে গেছে।

কিন্তু আদালত রায়ে বলছেন, তাঁর মেয়াদ শুরু হয়েছে ২০১৭ সালের এপ্রিলে। ২০১৪ সালে তিনি যখন নিয়োগ পেয়েছেন, তখন থেকে নয়। কারণ থাইল্যান্ডে বর্তমানে যে সংবিধানটি প্রচলিত রয়েছে, সেটি ২০১৭ সালে জনসাধারণের ভোটে কার্যকর হয়েছে। ফলে ওই সময় থেকেই মেয়াদ ধরা হবে।

সংবিধান সংশোধনের সঙ্গে যুক্তদের বিপক্ষে এবং রক্ষণশীল ও রাজকীয় গোষ্ঠীগুলোর পক্ষে রায় দেওয়ার ঐতিহ্য রয়েছে থাইল্যান্ডের সাংবিধানিক আদালতের। গত ১৬ বছরে তিন প্রধানমন্ত্রীকে ক্ষমতাচ্যুত করেছেন এই আদালত। অবসান ঘটিয়েছেন তিনটি রাজনৈতিক দলেরও।

থাই সাংবিধানিক আদালতের বর্তমান বিচারকদের অনেকেই জেনারেল প্রায়ুথের সময়ে নিয়োগ পেয়েছেন। ফলে অনেকেই এ রকম রায় আসাটাই প্রত্যাশা করছিলেন।

তবে রায় নিয়েও সন্তুষ্ট নন জেনারেল প্রায়ুথের সমর্থকরা। তাঁরা চাইছেন, প্রধানমন্ত্রীর মেয়াদ যাতে ২০১৯ সালের জুন থেকে গণনা শুরু করা হয়। সমর্থকদের যুক্তি হলো, ওই বছরের শুরুতে অভ্যুত্থান-পরবর্তী প্রথম আইনসভা নির্বাচনে তিনি পুনর্নিয়োগ পেয়েছিলেন।

প্রায়ুথ চান-ওচার রাজনৈতিক ভবিষ্যতের জন্য এ রায়টি গুরুত্বপূর্ণ। কারণ তিনি এরই মধ্যে ২০২৩ সালের নির্বাচনে লড়তে আগ্রহী বলে জানিয়েছেন। ওই নির্বাচনে জয়লাভ করলে তিনিই হবেন সবচেয়ে দীর্ঘ সময় ক্ষমতায় থাকা থাই প্রধানমন্ত্রী। সূত্র : বিবিসি।

 



সাতদিনের সেরা