kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০২২ । ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ । ১৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

ইরানের বিক্ষোভ : যুক্তরাজ্য ও নরওয়ের রাষ্ট্রদূতদের তলব করেছে ইরান

অনলাইন ডেস্ক   

২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ১৯:৫১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ইরানের বিক্ষোভ : যুক্তরাজ্য ও নরওয়ের রাষ্ট্রদূতদের তলব করেছে ইরান

মাহসা আমিনির মৃত্যুর পর ব্রিটেনে ইরানি নারীদের সাথে সংহতি প্রকাশ করছে প্রতিবাদকারীরা। (ছবি : রয়টার্স)

ইরানে পুলিশ হেফাজতে তরুণীর মৃত্যুতে দেশব্যাপী বিক্ষোভের ব্যাপারে হস্তক্ষেপ এবং গণমাধ্যমে প্রতিকূল খবর প্রকাশের বিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে ব্রিটিশ এবং নরওয়েজিয়ান রাষ্ট্রদূতদের তলব করেছে ইরান। আধাসরকারি বার্তা সংস্থা আইএসএনএ রবিবার এ তথ্য জানিয়েছে। খবর রয়টার্সের।

২২ বছর বয়সী কুর্দি তরুণী মাহসা আমিনির অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ায় এক সপ্তাহেরও বেশি আগে শুরু হওয়া বিক্ষোভ ইতিমধ্যে সারা দেশে ছড়িয়ে পড়েছে এবং কয়েক বছরের মধ্যে ইরানের সবচেয়ে বড় আন্দোলনে পরিণত হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

ইরানের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনের তথ্য অনুসারে, বিক্ষোভে ৪১ জন নিহত হয়েছে। এ ছাড়াও বিক্ষোভের ভিডিও ও ছবি ছড়িয়ে পড়া রোধ করতে দেশটির ইন্টারনেট ও মোবাইল পরিষেবা সীমিত করা হয়েছে বলে জানিয়েছে বিক্ষোভকারীরা।

এদিকে প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসি বলেছেন, ইরান মতপ্রকাশের স্বাধীনতা নিশ্চিত করেছে এবং তিনি আমিনির আটক ও মৃত্যুর তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন।  

তিনি আরো বলেছেন, ‘বিশৃঙ্খলার কাজ’ অগ্রহণযোগ্য এবং ইরান অবশ্যই এই অস্থিরতার বিরুদ্ধে চূড়ান্ত ব্যবস্থা নেবে।  

ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় লন্ডনভিত্তিক ফারসি ভাষার গণমাধ্যম আইএসএনএ বার্তা সংস্থার ‘শত্রু চরিত্রের’ প্রতিক্রিয়া জানাতে শনিবার ব্রিটেনের রাষ্ট্রদূতকে তলব করেছে। এবং নরওয়েজিয়ান রাষ্ট্রদূতকেও দেশটির পার্লামেন্ট স্পিকারের ‘হস্তক্ষেপবাদী অবস্থান’ ব্যাখ্যা করার জন্য তলব করা হয়েছে। নরওয়েজিয়ান রাষ্ট্রদূত টুইটারেও বিক্ষোভকারীদের প্রতি সমর্থন প্রকাশ করেছেন।

উল্লেখ্য, আমিনির মৃত্যু ইরানে ব্যক্তিগত স্বাধীনতার ওপর বিধি-নিষেধ, নারীদের জন্য কঠোর পোশাক নীতি এবং অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞাসহ বিভিন্ন ইস্যুতে ক্ষোভের জন্ম দিয়েছে।

২০১৯ সালে সর্বশেষ জ্বালানির দাম নিয়ে দেশটিতে বিক্ষোভ হয়েছিল। তারপর এটিই ইরানের সবচেয়ে বড় বিক্ষোভ। রয়টার্স জানিয়েছে, বিক্ষোভকারীদের মধ্যে প্রায় দেড় হাজার জন নিহত হয়েছে। এটি ইসলামিক প্রজাতন্ত্রের ইতিহাসে অভ্যন্তরীণ অস্থিরতার সবচেয়ে রক্তক্ষয়ী লড়াই।

সূত্র : রয়টার্স।



সাতদিনের সেরা