kalerkantho

শুক্রবার । ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২ । ১৫ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

স্যামসাং 'রাজপুত্রের' দুর্নীতি যে কারণে ক্ষমা করল দ. কোরিয়া

অনলাইন ডেস্ক   

১২ আগস্ট, ২০২২ ১২:২৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



স্যামসাং 'রাজপুত্রের' দুর্নীতি যে কারণে ক্ষমা করল দ. কোরিয়া

দক্ষিণ কোরিয়ার আর্থিক খাতে সবচেয়ে প্রভাবশালী অপরাধীকে রাষ্ট্রীয়ভাবে ক্ষমা করে দেয়া হয়েছে। স্যামসাং গ্রুপের উত্তরাধিকারী লি জে-ইয়ং দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্টের ক্ষমা পেয়েছেন। দেশটির সাবেক প্রেসিডেন্টকে ঘুষ দেবার অপরাধে তাকে দুইবার কারাদণ্ড দেয়া হয়েছিল।

ক্ষমা ঘোষণার বিষয়টিকে সমর্থন করে দক্ষিণ কোরিয়ার সরকার বলছে, করোনাভাইরাস মহামারি পরবর্তী দেশের অর্থনীতিকে পুনরুদ্ধারের জন্য এ পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

দক্ষিণ কোরিয়া সরকার মনে করছে, অর্থনীতি পুনরুদ্ধারের জন্য দেশের সবচেয়ে বড় কম্পানির উত্তরাধীকে তার কম্পানির হাল ধরা প্রয়োজন।

দক্ষিণ কোরিয়ার সাবেক প্রেসিডেন্ট পাক গিউন হাই যে দুর্নীতির কেলেঙ্কারিতে জড়িয়েছিলেন তার সাথে স্যামসাং গ্রুপের উত্তরাধিকারীর সম্পৃক্ততা ছিল।

দুর্নীতির কেলেঙ্কারির কারণে পাক ক্ষমতাচ্যুত হয়েছিলেন এবং তাকে কারাগারে যেতে হয়েছিল। পাক ২০১৩ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট ছিলেন।

প্রেসিডেন্টকে ঘুষ দেয়া
লি জে-ইয়ং ২০১৪ সাল থেকে কার্যত স্যামসাং পরিচালনা করে আসছিলেন। তিনি যখন স্যামসাং গ্রুপের দুটি কম্পানি একত্রীকরণ করার উদ্যোগ নেন তখন শেয়ারহোল্ডাররা তীব্র আপত্তি তোলেন।

একত্রীকরণের কাজ করে কম্পানির ওপর তাদের পরিবারের আধিপত্য ধরে রাখার জন্য তৎকালীন প্রেসিডেন্ট পাক গিউন এবং সহযোগীকে আট মিলিয়ন ডলার ঘুষ দেবার অভিযোগ উঠেছিল।

এ খবর ফাঁস হয়ে যাবার পর দক্ষিণ কোরিয়ার লাখ লাখ মানুষ প্রেসিডেন্টের পদত্যাগের দাবিতে রাস্তায় নেমে আসে।

২০১৬/১৭ সালে বিক্ষোভকারীরা প্রতি সপ্তাহে সাপ্তাহিক ছুটির দিনে মোমবাতি হাতে নিয়ে রাস্তায় বিক্ষোভ করতো।

পরবর্তীতে কোরিয়ার পার্লামেন্ট প্রেসিডেন্ট পাক'কে অভিশংসন করে ক্ষমতাচ্যুত করে। ২০১৭ সালে তার পাঁচ বছরের কারাদণ্ড হয়।

দুর্নীতি এবং অব্যস্থাপনা দূর করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে পরবর্তীতে ক্ষমতায় আসেন প্রেসিডেন্ট মুন জায়ে-ইন। কিন্তু তিনিও তেমন কোনো অগ্রগতি করতে পারেননি। তার ক্ষমতার শেষের দিকে দণ্ডিত সাবেক প্রেসিডেন্ট পাক'কে ক্ষমা করে দেয়া হয়।

এর পর নতুন আরেকজন প্রেসিডেন্ট ক্ষমতায় আসেন। তিনি ক্ষমতায় আসার আট মাসের মধ্যে স্যামসাং-এর উত্তরাধীকে ক্ষমা করে দেন।

দুর্নীতি বন্ধের জন্য দক্ষিণ কোরিয়ায় যারা আন্দোলন করছিলেন তাদের জন্য এটি বড় এক ধাক্কা।

চলতি বছরের মে মাসে প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন যখন দক্ষিণ কোরিয়া সফর করেন, তখন লি তার সাথে দেখা করেন। তার দণ্ড মওকুফ করে দেবার অর্থ হচ্ছে, তিনি এখন পুরোদমে স্যামসাং-এর নির্বাহী দায়িত্ব পালন করতে পারবেন।
সূত্র: বিবিসি।



সাতদিনের সেরা