kalerkantho

বৃহস্পতিবার ।  ২৬ মে ২০২২ । ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ২৪ শাওয়াল ১৪৪

উত্তেজনা কমাতে প্যারিস বৈঠকে রাশিয়া-ইউক্রেন

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৭ জানুয়ারি, ২০২২ ০২:২১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



উত্তেজনা কমাতে প্যারিস বৈঠকে রাশিয়া-ইউক্রেন

ইউক্রেন সংকট নিরসনে যুক্তরাষ্ট্র-রাশিয়ার কূটনৈতিক প্রচেষ্টায় কোনো ফল হয়নি। এবার জার্মানি ও ফ্রান্সকে নিয়ে বৈঠকে বসেছে রাশিয়া ও ইউক্রেন। সেই বৈঠকের আগে ইউক্রেন বলছে, তাদের সীমান্তের কাছে রাশিয়া যে সংখ্যক সেনা জড়ো করেছে, তা পূর্ণ মাত্রার জন্য হামলার জন্য যথেষ্ট নয়। অথচ শুরু থেকেই ওই সেনা মোতায়েনের সমালোচনা করছে ইউক্রেন।

বিজ্ঞাপন

গত বছরের শেষ দিকে ইউক্রেন সীমান্তে বিপুল সেনা জড়ো করে রাশিয়া। ইউক্রেনে হামলার আশঙ্কায় ওই দেশের সঙ্গে সরব হয় পশ্চিমা মিত্ররা। এ নিয়ে পশ্চিমাদের সঙ্গে রাশিয়ার দফায় দফায় বৈঠকে কোনো সমাধান আসেনি। সর্বশেষ গত শুক্রবারের রুশ-মার্কিন বৈঠকেও কোনো চূড়ান্ত সমাধানে পৌঁছতে পারেনি তারা। এর ধারাবাহিকতায় গতকাল বুধবার প্যারিসে মুখোমুখি হয় ফ্রান্স, জার্মানি, রাশিয়া ও ইউক্রেন।

এই বৈঠকের আগে ইউক্রেনের মন্তব্যের ধরনে পরিবর্তন আসে। এতদিন ধরে সীমান্তে রুশ সেনার অবস্থানের তীব্র বিরোধিতা করে আসলেও গতকাল ইউক্রেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী দিমিত্রো কুলেবা সাংবাদিকদের বলেন, ‘ইউক্রেন সীমান্তে ও ইউক্রেনের কাছ থেকে কেড়ে নেওয়া অঞ্চলে রাশিয়া যে সেনা জড়ো করেছে, তাদের সংখ্যাটা বড়। এটা ইউক্রেনের জন্য একটা হুমকি। কিন্তু পূর্ণাঙ্গ হামলার জন্য সেনাদের সংখ্যাটা যথেষ্ট নয়। ’ সময়ের সঙ্গে সঙ্গে সেনার উপস্থিতি বাড়িয়ে সংখ্যাটা ‘যথেষ্ট’ পর্যায়ে নেওয়ার সক্ষমতা রাশিয়ার আছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

পুতিনের ওপর ব্যক্তিগত নিষেধাজ্ঞার হুমকির কড়া জবাব : মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন গত মঙ্গলবার বলেন, ইউক্রেনে হামলা করলে তিনি রাশিয়া প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের ওপর ব্যক্তিগত নিষেধাজ্ঞার কথা বিবেচনা করবেন। ইউক্রেনে হামলা করলে রাশিয়াকে কঠিন মূল্য দিতে হবে বলে অন্যান্য পশ্চিমা নেতাদের বারবার সতর্কতার মধ্যে বাইডেন এমন মন্তব্য করলেন।

এর জবাবে গতকাল ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকোভ বলেন, পুতিনকে লক্ষ্য করে নিষেধাজ্ঞা দিলে সেটার কোনো মূল্যই থাকবে না, কারণ রুশ সরকারের ঊর্ধ্বতন নেতাদের জন্য বিদেশে সম্পত্তির মালিক হওয়া এমনিতেই নিষিদ্ধ। তবে সরাসরি পুতিনকে লক্ষ্য করে নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হলে রাজনৈকি ও কূটনৈতিক মূল্য দিতে হবে পশ্চিমকেই, এমন হুঁশিয়ারি দেন তিনি। পেসকোভ বলেন, ‘রাজনৈতিক বিচারে বিষয়টা বেদনাদায়ক নয়, সেটা বিধ্বংসী। ’ তিনি আরো বলেন, ইউক্রেন ইস্যুতে ক্রমবর্ধমান উত্তেজনা কমাতে যে কূটনৈতিক প্রচেষ্টা চলছে, পুতিনবিরোধী নিষেধাজ্ঞায় সেই প্রচেষ্টা ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। সূত্র: এএফপি



সাতদিনের সেরা