kalerkantho

বুধবার । ১২ মাঘ ১৪২৮। ২৬ জানুয়ারি ২০২২। ২২ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

নারায়ণগঞ্জ ডিষ্ট্রিক্ট এসোসিয়েশনের ৩২ বছর পূর্তি

বিশেষ প্রতিনিধি, নিউইয়র্ক    

৫ ডিসেম্বর, ২০২১ ১৬:১২ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



নারায়ণগঞ্জ ডিষ্ট্রিক্ট এসোসিয়েশনের ৩২ বছর পূর্তি

নিউইয়র্কে নারায়ণগঞ্জ ডিষ্ট্রিক্ট এসোসিয়েশন অফ নর্থ আমেরিকার ৩২ বছর পূর্তি এবং বাংলাদেশের ৫০তম বিজয় দিবস উদযাপন উপলক্ষে এক অনুষ্ঠান করেছে। গত ৩ ডিসেম্বর রাতে জ্যাকসন হাইটসের একটি পার্টি সেন্টারে অনুষ্ঠিত হয় আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। প্রবাসী নারায়ণগঞ্জবাসী এবং কমিউনিটির নেতারা এতে অংশ নেন। অনুষ্ঠানটি পরিণত হয় প্রীতি-সম্মিলনে।

বিজ্ঞাপন

অনুষ্ঠানের শুরুতে বাংলাদেশ এবং যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন করা হয়।  

আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন নারায়ণগঞ্জ ডিষ্ট্রিক্ট এসোসিয়েশন অফ নর্থ আমেরিকার আহবায়ক কমিটির আহবায়ক নির্মল পাল এবং সভা পরিচালনা ও উপস্থাপনা করেন সংগঠনের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান সেলিম। সভায় বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ সোসাইটি নিউইয়র্কের সাধারণ সম্পাদক রুহুল আমীন সিদ্দিকী, সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা কমিটির কোষাধ্যক্ষ নুরুজ্জামান মিয়া মন্টু, সংগঠনের সাবেক সভাপতি ও মুক্তিযোদ্ধা মোঃ মতিউর রহমান, আহবায়ক কমিটির যুগ্ম-আহবায়ক আরশাদুল বারী আসাদ, সংগঠনের সাবেক সভাপতি ও যুগ্ম-আহবায়ক মোহাম্মদ মোহসীন, সংগঠনের সাবেক সভাপতি অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম ও নূর বাবুল। এ ছাড়া শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন শিশু বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক শান্তা পাল, লেখক ও সাংবাদিক দর্পণ কবীর এবং মোস্তফা জামাল টিটো।  

বক্তারা বলেন, যেকোন ক্ষেত্রে অনৈক্য সৃষ্টিকারীরা কখনো সফল হয় না। তাই ঐক্যবদ্ধ থাকার কোনো বিকল্প নেই। বিশেষ করে প্রবাস জীবনে এই একতা বেশি প্রয়োজন। বক্তারা বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় বাংলাদেশের মানুষ ঐক্যবদ্ধ ছিল বলেই সশস্র সংগ্রামের মধ্য দিয়ে ছিনিয়ে এনেছিল স্বাধীনতা।  

বক্তারা বিশ্বব্যাপী করোনা মহামারীতে প্রাণহানীর কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে বলেন, আমাদের সব সময় নিজেদের সুস্থ রাখার প্রতি বিশেষ সতর্ক থাকা উচিত। বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ মতিউর রহমান মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময় নারায়ণগঞ্জের অবস্থার কথা স্মৃতিচারণমূলক বক্তব্যে তুলে ধরেন। তিনি বলেন, ২৫ মার্চ কালো রাত্রিতে পাক বাহিনী হামলা এবং গণহত্যা করলে নারায়ণগঞ্জের মানুষ বিক্ষোভে ফেটে পড়ে। পাক সেনাদের সমরযান প্রবেশ করতে দেওয়া হয়নি ২৭ মার্চ পর্যন্ত।  

অনুষ্ঠাদের দ্বিতীয় পর্যায়ে ছিল মনোজ্ঞা সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। এই সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে সঙ্গীত পরিবেশন করেন কৃষ্ণা তিথি এবং শাহ মাহবুব। তাদের পরিবেশিত দেশাত্ববোধক, আধুনিক, ফোক গান উপভোগ করেন সমবেতরা। কেউ কেউ গানের সুরের মূর্ছনায় মঞ্চে গিয়ে নেচে আনন্দ প্রকাশ করেন। এই অনুষ্ঠান উপলক্ষে ‘নারায়ণগঞ্জ’ নামে একটি ম্যাগাজিন বের করা হয়। এই ম্যাগাজিনের সম্পাদক ছিলেন দর্পণ কবীর।



সাতদিনের সেরা