kalerkantho

শনিবার । ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ২৭ নভেম্বর ২০২১। ২১ রবিউস সানি ১৪৪৩

মাত্র ১ শিলিং, দাম তার ৩০০০০০ ডলার

অনলাইন ডেস্ক   

২১ অক্টোবর, ২০২১ ১৮:১০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মাত্র ১ শিলিং, দাম তার ৩০০০০০ ডলার

মাত্র একটি শিলিং (ব্রিটিশ কয়েন এবং মুদ্রার একক। ২০ শিলিং-এ এক পাউন্ড, ১২ পেনিতে এক শিলিং) বিক্রি হতে যাচ্ছে তিন লাখ ডলারে। শুনতে অবাক লাগলেও- এটাই সত্যি। দুষ্প্রাপ্য এবং অসম্ভব বিরল একটি রুপার শিলিং-এর নিলামে এমনই দাম হাঁকানো হয়েছে। যে নিলামটি আগামী মাসে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। 

১৬৫২ সালে বোস্টনে এই রুপার মুদ্রাটি তৈরি হয়। ওই সময়ে তৈরি করা কয়েনের মধ্যে ৪০টি এখনও পাওয়া যায়, যার মধ্যে এটিই সবচেয়ে সুন্দর। সম্প্রতি এটি পাওয়া যায় যুক্তরাজ্যে, একটি চকলেটের টিনের কৌটার ভেতরে। এর সঙ্গে আরো শতাধিক কয়েন পাওয়া যায়। নিলামকারী প্রতিষ্ঠান মর্টন অ্যান্ড ইডেন লিমিটেড এক বিবৃতিতে বুধবার এ তথ্য জানায়।

নিলামকারী প্রতিষ্ঠানের মুদ্রা বিশেষজ্ঞ নিউ ইংল্যান্ডের এই কয়েনটিকে 'স্টার অব দ্য কালেকশন' বলে দাবি করেন। তিনি বলেন, আমার বিশ্বাস করতে কষ্ট হচ্ছিল যখন আমি বুঝতে পারি যে আমার সামনে একটি নিউ ইংল্যান্ড স্টার্লিং-এর চমৎকার উদাহরণ রয়েছে। ম্যাসাচুসেটস বে কলোনিতে প্রথম দিকে বসতি স্থাপনকারীদের ব্যবহারের জন্য এই কয়েন প্রস্তুত করা হয়।

বিবৃতিতে আরো বলা হয়, ম্যাসাচুসেটস জেনারেল কোর্ট ১৬৫২ সালে জন হাল এবং তাঁর সহযোগী রবার্ট স্যান্ডারসনকে বোস্টন মিন্টমিনিস্টার হিসেবে নিয়োগ দেয়। তাঁদের দায়িত্ব দেওয়া হয় উত্তর আমেরিকার প্রথম রৌপ্য মুদ্রা প্রস্তুতের। পরে ১৬৮২ সালে এটি বন্ধ করে দেওয়া হয়।

কয়েনটির প্রাথমিক ডিজাইনে একপাশে রাখা হয় নিউ ইংল্যান্ডের সংক্ষিপ্ত দুই অক্ষর এনইউ এবং অপরপাশে রোমান অক্ষরে ১২ লেখা- যার অর্থ ১২ পেনিতে এক স্টার্লিং।

রোড আইল্যান্ডের ওয়ারউইকের মুদ্রা বিশেষজ্ঞ এবং ধাতু আবিষ্কারক জিম বেইলি, যিনি এ বছরের শুরুর দিকে সপ্তদশ শতাব্দীর রৌপ্য মুদ্রা খুঁজে বের করে আলোড়ন সৃষ্টি করেছিলেন; বিশ্বাস করেন যে কুখ্যাত ইংরেজ জলদস্যু হেনরি এভির সঙ্গে এই বিষয়টির সম্পর্ক রয়েছে। তিনি এটিকে 'একটি অভূতপূর্ব আবিষ্কার' হিসেবে চিহ্নিত করেন। বুধবার তিনি বলেন, মুদ্রাটির দিকে তাকালে চোখের আরাম হয়। যে ৪০টি মুদ্রা নিয়ে আলোচনা হচ্ছে, তার মধ্যে এটিই সবচেয়ে সুন্দর।

মুদ্রাটি নিলামে পাঠিয়েছিলেন ওয়েন্টওয়ার্থ 'ওয়েন্টি' বিউমন্ট, তাঁর বাবা এটি উত্তর ইংল্যান্ডের পারিবারিক এস্টেটে তার গবেষণায় একটি টিনের মধ্যে পেয়েছিলেন। বিউমন্টের পূর্বপুরুষ উইলিয়াম ওয়েন্টওয়ার্থ ছিলেন নিউ ইংল্যান্ডের প্রথম দিকের অধিবাসী যিনি ১৬৩৬ সালে উপনিবেশে এসেছিলেন এবং সম্ভবত নতুন মুদ্রা পেয়েছিলেন।

'আমি কেবল অনুমান করতে পারি যে শিলিং কয়েক বছর আগে আমেরিকা থেকে আমার পূর্বপুরুষদের দ্বারা ফিরিয়ে আনা হয়েছিল,' বিউমন্ট এক বিবৃতিতে বলেছিলেন।

২৬ নভেম্বর এই অনলাইন নিলামটি অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে।
সূত্র : আলআরাবিয়া নিউজ



সাতদিনের সেরা