kalerkantho

রবিবার । ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮। ১৩ জুন ২০২১। ১ জিলকদ ১৪৪২

পশ্চিমবঙ্গে হেরে গিয়েও অন্তর্দ্বন্দ্বে বিজেপি

অনিতা চৌধুরী, কলকাতা প্রতিনিধি   

৮ মে, ২০২১ ২১:০১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পশ্চিমবঙ্গে হেরে গিয়েও অন্তর্দ্বন্দ্বে বিজেপি

তথাগত রায়

নির্বাচনের হারের পর অন্তর্দ্বন্দ্বে জর্জরিত বিজেপি নেতাদের মধ্যে সবথেকে বেশি চর্চিত হচ্ছে তথাগত রায় এর নাম।

পশ্চিমবঙ্গ বিজেপির প্রাক্তন সভাপতি তথাগত রায় আগে ত্রিপুরা এবং মেঘালয়ের রাজ্যপাল ছিলেন। বাংলাদেশ থেকে অনুপ্রবেশ নিয়ে গরম গরম কথা বলে শিরোনামে এসেছেন অনেকবার।

কিন্তু নির্বাচনের ফল প্রকাশের পরে তিনি ভোটের আগে বিজেপি-তে যোগ দেওয়াদের একাংশকে “চোর, লম্পট, বদমায়েশ, দুশ্চরিত্র” বলেও আঙুল তুলেছেন। তিনি বুঝিয়ে দিয়েছেন, তিনি যা বলেছেন তার থেকে একচুল সরে আসার কোনও প্রশ্ন নেই।

নির্বাচনে ভরাডুবির পর দলের রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ-সহ বাংলার দায়িত্বপ্রাপ্ত ৩ কেন্দ্রীয় নেতার বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে মুখ খুলেছেন তথাগত রায়। বিজেপির ৩ তারকা-প্রার্থী শ্রাবন্তী চট্টোপাধ্যায়, পায়েল সরকার, তনুশ্রী চক্রবর্তীদের উদ্দেশ্য করে রবীন্দ্রনাথের ভাষায় “নগরীর নটী” বলে কটাক্ষ করতেও ছাড়েননি তথাগত রায়।  

তবে এখানেই থেমে না থেকে তথাগত রায় সোজা অভিযোগ করেন দিলীপ ঘোষ , কৈলাস বিজয়বর্গীয়, শিবপ্রকাশ এবং অরবিন্দ মেননের নামে। ওই ৪ জন বিজেপি নেতাকে সংক্ষেপে “কেডিএসএ” বলেও ট্যুইটে কটাক্ষ করেন তথাগত রায়। বলেন এই নেতারাই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহদের নাম পঙ্কে টেনে এনেছেন এবং এদের জন্যই পৃথিবীর সবচেয়ে বড় দলের ভাবমূর্তি ভুলুন্ঠিত হয়েছে।

দলের নেতাদের সম্পর্কে প্রকাশ্যে যেভাবে মন্তব্য করা শুরু করেছেন তার জন্য তাঁকে বিজেপি-র কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব দিল্লিতে ডেকে পাঠায়।

কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের এই ডাক পাওয়ার কথা ট্যুইট করে জানান তথাগত রায়। তবে তিনিও জানিয়ে দেন এখনই তিনি দিল্লি যাচ্ছেন না, কারণ তিনি করোনা আক্রান্ত। তবে তিনি দিল্লি না গেলেও নিজের বক্তব্যে স্থির থেকে দিল্লির বিজেপি নেতাদের চিঠি দিতে চলেছেন বিজেপি-র প্রাক্তন রাজ্য সভাপতি তথাগত রায়। এই প্রসঙ্গে তথাগত জানিয়েছেন, ”আমি করোনা আক্রান্ত হলেও এখন অনেকটাই সুস্থ। কিন্তু রিপোর্ট নেগেটিভ না আসা পর্যন্ত দিল্লি যেতে পারব না। তবে এবার আর মৌখিক নয়, লিখিত অভিযোগ জমা দেব।”

রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপি-র জয়ের আশায় জল ঢেলে দিয়েছে রাজ্যের মানুষ। ২০০ আসন নিয়ে বিজেপি-র পশ্চিমবঙ্গে ক্ষমতায় আসার ঘোষণা সফল তো হয়নি উল্টে ১০০ আসন পায়নি বিজেপি। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ২১৩টি আসন নিয়ে সরকার গড়েছেন।



সাতদিনের সেরা