kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২১ শ্রাবণ ১৪২৮। ৫ আগস্ট ২০২১। ২৫ জিলহজ ১৪৪২

দাদার জন্য অক্সিজেন চাওয়ায় যুবকের বিরুদ্ধে মামলা

অনলাইন ডেস্ক   

২৯ এপ্রিল, ২০২১ ১৭:০৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



দাদার জন্য অক্সিজেন চাওয়ায় যুবকের বিরুদ্ধে মামলা

ভারতে দাদাকে বাঁচাতে জরুরি ভিত্তিতে অক্সিজেন চেয়ে টুইট করেছিলেন এক যুবক। এ কারণে তার বিরুদ্ধে মামলা করেছে উত্তরপ্রদেশ সরকার। তার বিরুদ্ধে পুলিশের অভিযোগ, ওই যুবক রাজ্যে অক্সিজেন সংকটের মিথ্যা তথ্য ছড়িয়ে মানুষজনকে বিভ্রান্ত করেছেন। জানা যায়, শশাঙ্ক যাদব নামে ওই যুবকের কারাদণ্ড হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

ভারতে করোনায় সবচেয়ে বেশি ভুক্তভোগী রাজ্যগুলোর মধ্যে অন্যতম উত্তর প্রদেশ। সেখানকার মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের বিরুদ্ধে করোনাসংকটের ভয়াবহতাকে অবহেলা করার বিভিন্ন অভিযোগ রয়েছে। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ এ নেতা সম্প্রতি দাবি করেছেন, কেউ গুজব অথবা প্রোপাগান্ডা ছড়ালে তাদের সম্পত্তি যেন বাজেয়াপ্ত করা হয়।

তিনি আরো দাবি করেছেন, তার রাজ্যে হাসপাতালগুলোতে অক্সিজেনের কোনো সংকট নেই। যদিও বিভিন্ন খবরে এর ভিন্ন চিত্রই দেখা যাচ্ছে। উত্তর প্রদেশের আমেথি শহরের কর্মকর্তারা বলছেন, শশাঙ্কের ‘ভুয়া টুইট’-এর কারণে অন্য লোকজন সরকারবিরোধী অভিযোগ তুলতে প্রলুব্ধ হয়েছে। এ কারণে গত মঙ্গলবার রাতে মামলা দায়ের হয়েছে তার বিরুদ্ধে। এ প্রসঙ্গে এক জ্যেষ্ঠ পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, শশাঙ্ক যাদবের বিরুদ্ধে ভুয়া তথ্য ছড়ানোর অভিযোগ আনা হয়েছে।

গত সোমবার ২৬ বছর বয়সী শশাঙ্ক যাদব তার মৃত্যুপথযাত্রী দাদার জন্য অক্সিজেন চেয়ে একটি টুইট করেছিলেন। এতে তিনি বলিউড অভিনেতা সোনু সুদকে ট্যাগ করেছিলেন। তবে টুইটে শশাঙ্ক কোথাও করোনাভাইরাসের কথা উল্লেখ করেননি।

টুইটটি তার এক বন্ধু রিটুইট করেন এবং তিনি এক সাংবাদিকের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। ওই সাংবাদিক শশাঙ্কের পরিস্থিতি আরো বেশি মানুষের কাছে পৌঁছে দেওয়ার ব্যবস্থা করেন। জানা গেছে, গত সোমবার রাতে মারা গেছেন শশাঙ্কের দাদা। তার মৃত্যুর কারণ হিসেবে হার্ট অ্যাটাকের কথা বলা হচ্ছে। তিনি করোনায় আক্রান্ত না হলেও ঠিক কী পরিস্থিতিতে মারা গেছেন, তা এখনো নিশ্চিত নয়।

এসব আলোচনা-সমালোচনা ও সংকটের মধ্যেই এক দিনে সর্বোচ্চ সংক্রমণ এবং মৃত্যু দেখল ভারত। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে নতুন করে তিন লাখ ৭৯ হাজার ২৫৭ জন নতুন শনাক্ত হয়েছে। এ সময় মৃত্যু হয়েছে তিন হাজার ৬৪৫ জনের।

সূত্র : বিবিসি।



সাতদিনের সেরা