kalerkantho

শুক্রবার। ৩১ বৈশাখ ১৪২৮। ১৪ মে ২০২১। ০২ শাওয়াল ১৪৪২

ভারত থেকে দেশে ফেরার ছাড়পত্র পেলেন ৩০০ বাংলাদেশি

অনিতা চৌধুরী, কলকাতা প্রতিনিধি   

২৮ এপ্রিল, ২০২১ ০০:২৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ভারত থেকে দেশে ফেরার ছাড়পত্র পেলেন ৩০০ বাংলাদেশি

দেশে ফেরার ছাড়পত্র পেলেন প্রায় ৩০০ বাংলাদেশি নাগরিক। মঙ্গলবার বাংলাদেশ ডেপুটি হাইকমিশন কলকাতা অফিস থেকে নো অবজেকশন সার্টিফিকেট দেওয়া হলো, যা নিয়ে তারা দেশে ফিরতে পারবেন।

কলকাতার সার্কাস এভিনিউর বাংলাদেশ ডেপুটি হাইকমিশনের অফিসের সামনে মঙ্গলবার সকাল থেকে ভিড় ছিল চোখে পড়ার মতো। করোনা পরিস্থিতিতে আতঙ্কিত বাংলাদেশিরা যাদের অনেকেই গতকাল পেট্রাপোল সীমান্ত থেকে দেশে ফিরতে পারেননি, লাইন দিয়েছিলেন সকাল থেকে নো অবজেকশন সার্টিফিকেট নিতে।

ভারতে করোনা সংক্রমণের হার উদ্বেগজনকভাবে ঊর্ধ্বমুখী হওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে গতকাল থেকে ১৪ দিনের জন্য সীমান্তের সব স্থলবন্দর বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। যার ফলে এক অভূতপূর্ব অনিশ্চয়তার সম্মুখীন হয়ে পড়েন ভারতে আটকে থাকা বাংলাদেশের মানুষ।

এই পরিস্থিতিতে মানবিক কারণে বাংলাদেশ ডেপুটি হাইকমিশন সিদ্ধান্তে কিছুটা বদল করেন। ভারতে চিকিৎসার কারণে যারা এসেছিলেন, তাদের কভিড নেগেটিভ রিপোর্ট থাকলে মঙ্গলবার নো অবজেকশন সার্টিফিকেট দেওয়া হয়।

ফরিদপুরের মহিউদ্দিন মোল্লা গতকাল পেট্রাপোল গিয়েও বাংলাদেশে ফিরতে পারেননি। গতকাল রাতেই বনগাঁ থেকে শেষ ট্রেন ধরে কলকাতা চলে আসেন তিনি আর মঙ্গলবার সকাল থেকে বাংলাদেশ ডেপুটি হাইকমিশনের সামনে লাইনে দাঁড়িয়ে পড়েন।

আমি নো অবজেকশন সার্টিফিকেট পেয়ে গেছি... আশা করি দেশে ফিরতে পারব, বললেন মহিউদ্দিন । তিনি নিজের স্ত্রী সালমা বেগমের অপারেশনের জন্য ভারতে এসেছিলেন।

একই কথা বললেন ঢাকার নিশাত সুমি, যিনি নিজের মায়ের সার্জারির জন্য কলকাতায় এসেছিলেন। আজকের নো অবজেকশন সার্টিফিকেট হাতে নিয়ে ওনাকে অনেক নিশ্চিন্ত দেখাচ্ছিল।

যদিও মঙ্গলবার প্রায় ৩০০ জন দেশে ফেরার ছাড়পত্র পেয়েছে। ভারতে এখনো আটকে আছেন হাজার হাজার বাংলাদেশি... তারাও ব্যবসার কাজে বা পড়াশোনার জন্য বাংলাদেশ থেকে এসেছিলেন।

যাদের দীর্ঘদিনের ভিসা আছে, তাদের এখনো অবজেকশন সার্টিফিকেট দেওয়ার ব্যাপারে কোনো সিদ্ধান্ত না হওয়ার কারণে তারা ভুগছেন অনিশ্চয়তায়।

ঢাকার ব্যবসায়ী ফরিদ হোসেন। প্রায় দুই সপ্তাহ আগে ভারতে আসেন এবং বনগাঁ একটি হোটেলে থাকছেন। তার ভিসার মেয়াদ এখনই শেষ হচ্ছে না আর তাই তিনি জানেন যে এখনই দেশে ফেরা সম্ভব নয় ওনার পক্ষে।

'আমি জানি যে আমাকে অন্তত আরো ১৩ দিন অপেক্ষা করতে হবে, তারপর কী পরিস্থিতি হয় তা দেখে সিদ্ধান্ত নেব।' বললেন ফরিদ সাহেব।



সাতদিনের সেরা