kalerkantho

মঙ্গলবার । ৩০ চৈত্র ১৪২৭। ১৩ এপ্রিল ২০২১। ২৯ শাবান ১৪৪২

টিকা নিয়ে অনীহার কারণে করোনার তৃতীয় তরঙ্গের মুখে পাকিস্তান

অনলাইন ডেস্ক   

৪ মার্চ, ২০২১ ১৩:১৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



টিকা নিয়ে অনীহার কারণে করোনার তৃতীয় তরঙ্গের মুখে পাকিস্তান

পাকিস্তানে বিধিনিষেধ শিথিল করার কারণে করোনার তৃতীয় তরঙ্গ আসতে পারে বলে হুঁশিয়ারি জারি করেছে দেশটির স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা। এমনকি করোনা টিকার বিষয়েও স্বাস্থ্যকর্মীদের তেমন আগ্রহ দেখা যায়নি। 

পাকিস্তানে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছে ৫ লাখ ৮১ হাজার মানুষ এবং মারা গেছে ১২ হাজার ৮৯৬ জন। ২৪ ফেব্রুয়ারি, পাকিস্তানের ন্যাশনাল কমান্ড অ্যান্ড অপারেশন সেন্টার বাণিজ্যিক কার্যক্রম, স্কুল, অফিস এবং অন্যান্য কর্মস্থলগুলোর উপর থেকে  বিধিনিষেধ তুলে নেয়। এর আওতায় কর্মস্থলগুলোতে নিয়ম কড়াকড়ি করা হয়। সপ্তাহে পাঁচদিন স্কুল খোলা রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এছাড়া ১৫ মার্চ থেকে ঘরোয়া বিবাহ অনুষ্ঠান, সিনেমা ও মন্দির খোলার বিষয়ে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আগামী ১০ মার্চ থেকে একসাথে বসে বৈঠক করার বিষয়ও শিথিল করা হয়েছে।

পাকিস্তান মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সচিব ডাঃ কায়সার সাজ্জাদ বলছেন “আমরা এমন একটি সমাজে বাস করছি যেখানে মানুষ বিধিনিষেধ অনুসরণ করে না। এমনকি তারা মাস্ক পরা নিয়ে হাসাহাসি করে। আমরা এরইমধ্যে গত বছরের সেপ্টেম্বরে বিধিনিষেধ প্রত্যাহারের ফলাফল পর্যবেক্ষণ করেছি যখন প্রতিদিনি ১০০ থেকে ২০০ মানুষ করোনায় আক্রান্ত হত। এর এক মাসের মধ্যে করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় তরঙ্গ ঘোষণা করা হয়।

তিনি আরো বলেন,“আমি বিশ্বাস করি যে শতকরা ৭০ ভাগ মানুষের টিকা দেওয়ার পর বিধিনিষেধ প্রত্যাহার করা উচিত। মাত্র দু'সপ্তাহ আগে অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্নে তিনজন শনাক্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে যাদের সবাই বাইরের দেশ থেকে এসেছিলেন। এরপর মেলবোর্ন শহরটি পাঁচ দিনের জন্য বন্ধ ছিলো। কিন্তু আমরা এক হাজার সংক্রমণকে হালকাভাবে নিচ্ছি।” পাকিস্তানের টিকা দেওয়ার বিষয়টির ধীরগতির জন্য সরকারকে দোষারোপ করেছেন ডঃ সাজ্জাদ।  তিনি বলেন, “চিকিৎসকদের তুলনায় অভিনেতারা টিকাদান প্রচার কর্মসূচির সাথে জড়িত। একজন অভিনেতা কীভাবে মানুষকে স্বাস্থ্য সম্পর্কে পরামর্শ দেবে? সেই সাথে টিকার বিজ্ঞাপন দিতে হবে পিক আওয়ারে।  পিএসএল ম্যাচ এর মাঝামাঝি যেসব বিজ্ঞাপন হয় তাতে আমরা টিকার কোন বিজ্ঞাপন পাই না। দুর্ভাগ্যক্রমে সরকার জনস্বাস্থ্যের চেয়ে দেশের অর্থনীতির উপর বেশি গুরুত্ব দিয়েছে। করোনার তৃতীয় তরঙ্গের বিষয়টিকে উড়িয়ে দেওয়া যায় না। আমরা করোনাকে আরো সুযোগ করে দিচ্ছি। করোনা সংক্রমণ যখন ওঠানামা করছে এই মুহূর্তে বিধিনিষেধ প্রত্যাহার করা কোন ভালো সিদ্ধান্ত না।”

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা