kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৯ ফাল্গুন ১৪২৭। ৪ মার্চ ২০২১। ১৯ রজব ১৪৪২

সীমান্তে ঢুকে চীনের স্থাপনা তৈরি

সার্বভৌমত্ব রক্ষায় ভারত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবে: নয়া দিল্লি

অনলাইন ডেস্ক   

১৯ জানুয়ারি, ২০২১ ১৭:৩১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সার্বভৌমত্ব রক্ষায় ভারত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবে: নয়া দিল্লি

ভারতের অরুণাচল প্রদেশে চীন একটি গ্রাম তৈরি করেছে এমন সংবাদ প্রকাশের পর গতকাল সোমবার নিজেদের প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছে ভারত। দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে, তারা দেশের সুরক্ষার সঙ্গে জড়িত সকল উন্নয়নের উপর অবিচল নজর রাখছে। এবং ভারতের সার্বভৌমত্ব ও আঞ্চলিক অখণ্ডতা রক্ষায় প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে, ভারত তার নাগরিকদের জীবনযাত্রার মান উন্নয়নের জন্য রাস্তা ও সেতুসহ সীমান্তের অবকাঠামো নির্মাণের গতি বাড়িয়েছে।

চীন অরুণাচল প্রদেশের বিতর্কিত অঞ্চলে একটি নতুন গ্রাম তৈরি করেছে, এনডিটিভি চ্যানেলের এই প্রতিবেদনের বিষয়ে জানতে চাইলে পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে জানানো হয়, চীন ভারতের সীমান্তবর্তী অঞ্চলগুলিতে নির্মাণ কাজ শুরু করার বিষয়ে সাম্প্রতিক প্রতিবেদন আমরা দেখেছি। গত কয়েক বছর ধরে চীন এ জাতীয় অবকাঠামো নির্মাণ কার্যক্রম হাতে নিয়েছে। এর প্রতিক্রিয়া হিসাবে, আমাদের সরকারও সীমান্তের স্থানীয় জনগণের জন্য প্রয়োজনীয় সংযোগ সরবরাহকারী রাস্তা, সেতু ইত্যাদি নির্মাণসহ সীমান্তের অবকাঠামো বাড়িয়েছে।

বিবৃতিতে এমইএ আরো জানায়, সরকার অরুণাচল প্রদেশসহ দেশের নাগরিকদের জীবনযাত্রার উন্নতির জন্য সীমান্তবর্তী অঞ্চলে অবকাঠামো তৈরির লক্ষ্যে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। সরকার ভারতের সুরক্ষার সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত সকল উন্নয়নের উপর অবিচল নজর রাখছে এবং দেশের সার্বভৌমত্ব ও আঞ্চলিক অখণ্ডতা রক্ষায় প্রয়োজনীয় সকল ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

এর আগে গতকাল এনডিটিভি-এর এক প্রতিবেদনে ওই গ্রামের দুটি ছবি প্রকাশ করা হয়। উপগ্রহ চিত্রের মাধ্যমে তোলা ওই গ্রামের ছবি ২০২০ সালের ১ নভেম্বর তোলা হয়েছে বলে দাবি করা হয়। এর সঙ্গেই ২০১৯ সালের ২৬ আগস্ট ঠিক একই এলাকার একটি উপগ্রহ চিত্রও প্রকাশ করা হয়। 

২০১৯ সালের ছবিতে জঙ্গলাকীর্ণ নদীর তীরে জনবসতির কোনো চিহ্ন নেই। তবে আড়াই মাস আগে তোলা ছবিতে দেখা যাচ্ছে সেখানে কিছু বাড়ি তৈরি করা হয়েছে। ভারতের দাবি, ওই এলাকার অবস্থান এলওসির কমপক্ষে সাড়ে ৪ কিলোমিটার ভেতরে অর্থাৎ ভারতীয় ভূখণ্ডের মধ্যে।

সূত্র: এএনআই।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা