kalerkantho

সোমবার । ১৬ ফাল্গুন ১৪২৭। ১ মার্চ ২০২১। ১৬ রজব ১৪৪২

বাইডেনের জয় নিশ্চিতে ইলেকটোরাল ভোট, হাল না ছাড়ার ঘোষণা ট্রাম্পের

অনলাইন ডেস্ক   

১৫ ডিসেম্বর, ২০২০ ০৪:১৩ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বাইডেনের জয় নিশ্চিতে ইলেকটোরাল ভোট, হাল না ছাড়ার ঘোষণা ট্রাম্পের

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে গতকাল সোমবার অঙ্গরাজ্যগুলোয় ইলেকটোরাল ভোটগ্রহণ শুরু হয়। নিছক আনুষ্ঠানিকতার এই ভোটে জনরায়ের ব্যতিক্রম হওয়ার নজির নেই। তাই জো বাইডেনকে দেশটির পরবর্তী প্রেসিডেন্ট হিসেবে আরেক দফা স্বীকৃতি শুধু সময়ের অপেক্ষা। তবে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এখনো পরাজয় স্বীকার করতে নারাজ। সর্বশেষ ইলেকটোরাল ভোটের আগের দিন রবিবার ফক্স নিউজকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছেন, খেলা শেষ হয়নি, জয়ের জন্য তাঁর লড়াই অব্যাহত থাকবে।

যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনী ব্যবস্থা অনুযায়ী, গতকাল অঙ্গরাজ্যের আইনসভা ইলেকটোরাল ভোট নিয়ে নির্বাচন করার কথা। ৩ নভেম্বর অনুষ্ঠিত নির্বাচনে অঙ্গরাজ্যের ফল অনুযায়ী, ইলেকটোরাল প্রতিনিধিরা ভোট দেবেন। এই ভোট অঙ্গরাজ্য আইনসভা প্রত্যয়ন বা চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়ে ওয়াশিংটনে পাঠাবে। দেশটির প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের অংশ হিসেবে ইলেটকোরাল কলেজের দিকে সাধারণত মানুষের দৃষ্টি থাকে না। তবে এবার এর ব্যতিক্রম হতে যাচ্ছে।

প্রতিটি অঙ্গরাজ্যের নির্বাচনী আইন ভিন্ন। ইলেকটোরাল প্রতিনিধিরা সব অঙ্গরাজ্যে সংখ্যাগরিষ্ঠ ভোটারদের মতামত অনুযায়ী তাঁদের ভোট দিতে বাধ্য নন। তাই জনমতের বিরুদ্ধে ভোট দেওয়ার কিছু নজিরও কিছু আছে। এমন ইলেকটোরাল ভোটারদের ‘অবিশ্বস্ত ইলেকটর’ বলা হয়। তবে ফল পাল্টে দেওয়ার মতো কোনো ঘটনা এ পর্যন্ত ঘটেনি। ট্রাম্পের কারণে এবার তেমন ব্যতিক্রম কিছু ঘটে কি না, সেদিকে সাধারণ মানুষসহ অনেকেই নজর রাখছেন।

ইলেকটররা সাধারণত রাজনৈতিক কর্মী বা অ্যাক্টিভিস্ট, সুধীসমাজের প্রতিনিধি বা প্রার্থীদের বন্ধু হয়ে থাকেন। কখনো কখনো জাতীয়ভাবে পরিচিত মুখও ইলেকটর হয়ে থাকেন। যেমন এবার দেশটির সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী এবং গত নির্বাচনে ট্রাম্পের কাছে পরাজিত ডেমোক্র্যাট প্রার্থী হিলারি ক্লিনটনের নিউ ইয়র্কের ইকেকটোরাল কলেজ ভোটে অংশ নেওয়ার কথা ছিল।

ইলেকটোরাল ভোট শেষে ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেনের বিজয় দাপ্তরিকভাবে আরেক দফা নিশ্চিত হবে। এদিন সন্ধ্যায়ই তাঁর জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেওয়ার কথা ছিল। নজিরবিহীন কিছু না ঘটলে ইলেকটোরাল ভোটের ৩০৬টি তাঁর পাওয়া নিশ্চিত। যেখানে জয়ের জন্য প্রয়োজন ২৭০ ভোট। আর বিভিন্ন গণমাধ্যমের প্রজেকশন অনুসারে ট্রাম্প পাবেন ২৩২ ইলেকটরের ভোট।

অবশ্য আগামী ৬ জানুয়ারি কংগ্রেসের যৌথ অধিবেশনের একটি আনুষ্ঠানিকতা সামনে রয়েছে। ইলেকটোরাল ভোট সব অঙ্গরাজ্য (৫০টি অঙ্গরাজ্য ও ডিস্ট্রিক্ট অব কলাম্বিয়া) থেকে পাওয়ার পর ওই দিন তা আবার গণনা করে ফল ঘোষণা করা হবে। সূত্র : এএফপি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা