kalerkantho

রবিবার। ৩ মাঘ ১৪২৭। ১৭ জানুয়ারি ২০২১। ৩ জমাদিউস সানি ১৪৪২

বিবিসি বাংলায় ড. মাসুমে তরফের নিবন্ধ

মোহসেন ফখরিযাদেকে হত্যার পেছনে জটিল যেসব মোটিভ

অনলাইন ডেস্ক   

৩০ নভেম্বর, ২০২০ ১৫:৫২ | পড়া যাবে ৬ মিনিটে



মোহসেন ফখরিযাদেকে হত্যার পেছনে জটিল যেসব মোটিভ

শুক্রবার এক হামলায় তাঁর মৃত্যুর আগ পর্যন্ত ইরানের অধিকাংশ মানুষের কোনো ধারণাই ছিল না মোহসেন ফখরিযাদে কে। কিন্তু ইরানের পারমাণবিক কর্মসূচির ওপর যাঁরা নজর রাখেন, তাঁরা তাঁকে ভালোই চেনেন। ইসরায়েল এবং পশ্চিমা গোয়েন্দারা মনে করেন, ফখরিযাদে ইরানের পারমাণবিক কর্মসূচির প্রধান স্তম্ভ। তবে ইরানের সংবাদ মাধ্যম ফখরিযাদের গুরুত্ব খাটো কারে দেখাচ্ছে। তারা তাঁকে বর্ণনা করছে একজন বিজ্ঞানী হিসেবে, যিনি সাম্প্রতিক কয়েক সপ্তাহ ধরে ইরানে করোনাভাইরাস শনাক্ত করতে একটি টেস্ট কিট বানানোর গবেষণায় যুক্ত ছিলেন।

লন্ডনে গবেষণা সংস্থা ইন্টারন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব ইন্টারন্যাশনাল স্টাডিজের মার্ক ফিটজপ্র্যাট্রিক, যিনি ইরানের পারমাণবিক কর্মসূচির ওপর গভীর নজর রাখেন, মোহসেন ফখরিযাদের হত্যাকাণ্ডের পর টুইট করেন, ইরানের পারমাণবিক কর্মসূচি এখন এমন অবস্থায় চলে গেছে, যেখানে তা আর একজন মাত্র ব্যক্তির ওপর নির্ভরশীল নয়। 

যদিও আমরা জানি যে ফখরিযাদের ওপর যখন হামলা হয়, তখন তাঁর সঙ্গে বেশ কজন দেহরক্ষী ছিলেন। সুতরাং বোঝা যায় যে তাঁর নিরাপত্তাকে ইরান কতটা গুরুত্ব দিত। সুতরাং তাঁকে হত্যার পেছনে ইরানের পারমাণবিক কর্মসূচির সম্পর্ক যতটা না ছিল, রাজনৈতিক উদ্দেশ্য ছিল তার চেয়ে বেশি।

হত্যার সম্ভাব্য মোটিভ

এই হত্যাকাণ্ডের পেছনে সম্ভাব্য দুটি মোটিভ বা উদ্দেশ্য কাজ করেছে বলে এখন পর্যন্ত মনে হচ্ছে : প্রথমত, যুক্তরাষ্ট্রের জো বাইডেন সরকারের সঙ্গে ইরানের সম্পর্ক ভালো হওয়ার যেকোনো সম্ভাবনা নষ্ট করা। দ্বিতীয়ত, ইরানকে বদলা নিতে উসকানি দেওয়া।

মোহসেন ফখরিযাদের হত্যাকাণ্ডের পর প্রথম বক্তব্যে ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি মন্তব্য করেন, শত্রুরা গত কয় সপ্তাহ ধরে দুশ্চিন্তার মধ্যে রয়েছে। তাঁরা বুঝতে পারছে, বিশ্বের পরিস্থিতি বদলে যাচ্ছে এবং হাতের বাকি সময়টায় তারা এ অঞ্চলে একটি অস্থিরতা তৈরির চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। 

২০১৮ সালে এক লাইভ টিভি অনুষ্ঠানে ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহু ইরানের পারমাণবিক কর্মসূচিতে ফখরিযাদের ভূমিকা উল্লেখ করে বলেছিলেন, মোহসেন ফকরিযাদে নামটি মনে রাখুন। সন্দেহ নেই যে ‘শত্রু’ বলতে রুহানি যুক্তরাষ্ট্রের ট্রাম্প সরকার, ইসরায়েল এবং সৌদি আরবকে বুঝিয়েছেন।

মধ্যপ্রাচ্যের রাজনীতিতে পরিবর্তনের যে জোয়ার শুরু হয়েছে তা নিয়ে ইসরায়েল এবং সৌদি আরব উদ্বিগ্ন। জো বাইডেন ক্ষমতা নেওয়ার পর তার সম্ভাব্য প্রভাব নিয়ে এই দুই দেশ চিন্তিত। তার নির্বাচনী প্রচারণার সময় বাইডেন পরিষ্কার করে দিয়েছেন যে তিনি ইরানের সঙ্গে করা পারমাণবিক চুক্তিতে ফিরে যেতে চান। ২০১৫ সালে বারাক ওবামা সরকার এই চুক্তির প্রধান উদ্যোক্তা ছিল, কিন্তু ডোনাল্ড ট্রাম্প ২০১৮ সালে একতরফাভাবে চুক্তি থেকে আমেরিকাকে প্রত্যাহার করে নেন।

ইসরায়েলি এবং পশ্চিমা অনেক মিডিয়ায় গত রবিবার সৌদি আরবের নিওম শহরে সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান এবং ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর মধ্যে এক গোপন বৈঠকের খবর প্রচারিত হয় এবং বলা হয়, ইরান নিয়ে তাদের দুই দেশের উদ্বেগ নিয়ে ওই বৈঠকে আলোচনা হয়। বিভিন্ন রিপোর্টে আরো বলা হয়েছে, নিওমে ওই বৈঠকে ইসরায়েলের সঙ্গে এখনই কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনে নেতানিয়াহু যুবরাজ মোহাম্মদকে রাজি করাতে পারেননি। অবশ্য সৌদি পররাষ্ট্রমন্ত্রী এমন কোনো বৈঠক হওয়ার কথা অস্বীকার করেছেন।

যুবরাজ মোহাম্মদ এবং প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহুর বৈঠকের পরদিনই সোমবার যখন ইয়েমেনের ইরান সমর্থিত হুথি বিদ্রোহীরা জেদ্দায় একটি তেলের স্থাপনায় ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালায়, যেটিকে সৌদি আরব হয়তো বদলা নেওয়ার একটি সুযোগ হিসেবে দেখছে। ওই ক্ষেপণাস্ত্র হামলার পর ইরানের কট্টরপন্থী মিডিয়ায় ঢাকঢোল বাজিয়ে প্রচার করা হয়, হুথিরা কুদস-২ (ইরানে তৈরি) দূরপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়েছে। ইরানের সরকার সমর্থক সংবাদ সংস্থা মেহের লেখে, এই ক্ষেপণাস্ত্র হামলা একটি কৌশলগত পদক্ষেপ। সৌদি-ইসরায়েল বৈঠকের পর ওই দুই দেশকে একটি সতর্ক বার্তা দেওয়া হলো যে ইরানের বিরুদ্ধে কিছু করার আগে তারা যেন দশবার ভাবে। ওই ক্ষেপণাস্ত্র হামলা নিয়ে সৌদি ক্ষোভের প্রতি সমর্থন জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

ইরানে হামলার পরিকল্পনা ট্রাম্পের

যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জন বোল্টন তাঁর ‘দ্য রুম হোয়ার ইট হ্যাপেনড‘ বইতে লিখেছেন কিভাবে ট্রাম্প প্রশাসন ইয়েমেনের হুথি বিদ্রোহীদের প্রতি ইরানের সমর্থনকে মধ্যপ্রাচ্যে যুক্তরাষ্ট্রের স্বার্থ ক্ষুণ্ণ করার একটি প্রয়াস হিসেবে দেখে। মিডিয়ার খবর অনুযায়ী নিওমে যুবরাজ মোহাম্মদ এবং নেতানিয়াহুর বৈঠকের আয়োজন করেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও। বৈঠকের আগে তিনি কাতার এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতে গিয়ে প্রধানত ইরান নিয়ে কথা বলে আসেন।

মার্কিন মিডিয়ায় প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, তার দুই সপ্তাহ আগে ইরানের পারমাণবিক স্থাপনায় হামলার উপায় নিয়ে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প তাঁর উপদেষ্টাদের সঙ্গে পরামর্শ করেছিলেন। ট্রাম্প সম্ভবত তাঁর বিদায়ের আগে ইরানকে এক হাত দেখে নেওয়ার চিন্তা করছিলেন।

জানুয়ারিতে, ইরানি সেনা কমান্ডার কাসেম সোলেমানিকে ড্রোন হামলা চালিয়ে হত্যা করার পর তা নিয়ে খোলাখুলি বাগাড়ম্বর করেছিলেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। যদিও ওই হত্যাকাণ্ডকে জাতিসংঘের একজন কর্মকর্তা ‘বেআইনি’ বলে বর্ণনা করেন, কিন্তু ট্রাম্প সে সময় খোলাখুলি বলেন, তাঁর নির্দেশেই কাসেম সোলেমানিকে হত্যা করা হয়েছে।

সুতরাং পরমাণুবিজ্ঞানী মোহসেন ফখরিযাদেহর হত্যাকাণ্ডের পেছনেও প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের অনুমোদন থাকার সম্ভাবনা উড়িয়ে দেওয়া যায় না। তবে ইরানের প্রেসিডেন্ট এই হত্যাকাণ্ডের জন্য সরাসরি ইসরায়েলকে দায়ী করেছেন। যদিও ইসরায়েল জানে, জো বাইডেন তাদের নিরাপত্তার প্রতি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ থাকবেন; কিন্তু তাদের মনে একটি উদ্বেগ কাজ করছে যে জো বাইডেনের মনোনীত পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিনকেন ইরানের সঙ্গে করা পারমাণবিক চুক্তির একজন ঘোরতর সমর্থক।

ইসরায়েল হয়তো এ নিয়েও শঙ্কিত যে মধ্যপ্রাচ্য সমস্যা সম্পর্কে ব্লিনকেনের দৃষ্টিভঙ্গি ফিলিস্তিনিদের সুবিধা দেবে। ট্রাম্প প্রশাসন জেরুজালেমকে ইসরায়েলের বৈধ রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়াকে পছন্দ করেননি নতুন এই সম্ভাব্য মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। যদিও জো বাইডেন বলেছেন, তিনি জেরুজালেম নিয়ে ট্রাম্পের সিদ্ধান্ত বদলাবেন না।

ইরানের দ্বিধা

ইরানের শীর্ষ নেতা আয়াতুল্লাহ আলী খামেনি মোহসেন ফখরিযাদেহকে হত্যার জন্য দায়ীদের ‘নিশ্চিত শাস্তির’ কথা বলেছেন। কিন্তু ইরানের ভেতরেই নিরাপত্তা এবং গোয়েন্দা দুর্বলতা নিয়ে কথা উঠেছে। ইরানের রেভল্যুশনারি গার্ড বাহিনীর প্রভাবশালী একজন কমান্ডার মোহসিন রেজায়েই বলেন, ভেতরে ঢুকে পড়া গুপ্তচর, যারা বিদেশি গুপ্তচর সংস্থাগুলোকে খবর দিচ্ছে, তাদের খুঁজে বের করতে হবে। 

ইরানে সোশ্যাল মিডিয়ায় অনেকেই প্রশ্ন তুলছেন যে ইরানের সরকার যখন তাদের সেনা এবং গোয়েন্দা দক্ষতা নিয়ে এত বড়াই করে, তখন কিভাবে নিরাপত্তার আবরণে থাকা একজন বিজ্ঞানী এভাবে দিনদুপুরে হত্যাকাণ্ডের শিকার হলেন। এই হত্যাকাণ্ডকে কেন্দ্র করে দেশের ভেতর নির্বিচারে ধরপাকড় নিয়েও আশঙ্কা প্রকাশ করা হচ্ছে।

ট্রাম্পের প্রস্থানে ইসরায়েল এবং সৌদি আরব যেখানে তাদের প্রধান একজন মিত্র হারাচ্ছে, সে সময় ইরান আশা করছে, জো বাইডেন তাদের ওপর থেকে অনেক নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করবেন, যা তাদের অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধারে সাহায্য করবে। ফলে তারা ফখরিযাদেহর হত্যাকাণ্ডের বদলা নিতে এখনই কিছু করতে চাইছে না।

লেখক :
ড. মাসুমে তরফে
গবেষক, লন্ডন স্কুল অব ইকোনমিকস

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা