kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৪ মাঘ ১৪২৭। ২৮ জানুয়ারি ২০২১। ১৪ জমাদিউস সানি ১৪৪২

থাইল্যান্ডে রাজতন্ত্রের বিরোধীতা না করার ট্যাবু ভাঙছে?

অনলাইন ডেস্ক   

২৯ নভেম্বর, ২০২০ ১৮:২২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



থাইল্যান্ডে রাজতন্ত্রের বিরোধীতা না করার ট্যাবু ভাঙছে?

থাইল্যান্ডে রাজতন্ত্রের বিরুদ্ধে কিছু বলা যাবে না- এই ধারণার আর অস্তিত্ব থাকছে না, গত কয়েক মাস ধরে চলা বিক্ষেভে এ কথাটি প্রমাণ হয়ে যাচ্ছে। বিক্ষোভের এ পর্যায়ে দেশটির প্রচলিত সাংবিধানিক রাজতন্ত্রের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে কথা বলা শুরু করেছে মানুষ। সে কারণে দেশটির রাজতন্ত্রের প্রতি থাই জনগণের আবেগে ভাটার টান পড়েছে বলে মনে করা হচ্ছে।

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা গেছে, বিক্ষোভকারীরা সিংহাসনে আসীন রাজা মাহা ভাজরালংকর্নের ভূমিকা নিয়ে এখন প্রকাশ্যে ক্ষোভ প্রকাশ করছেন যা রীতিমতো বিস্ময়কর। বিক্ষোভকারীদের অভিযোগ, থাইল্যান্ডের রাজা সেনাবাহিনীতে তার কিছু অনুগত ইউনিটের মাধ্যমে দেশটির রাজনীতিকে নিয়ন্ত্রণ করেন। একজন বিক্ষোভকারী বলেন, একটি সেনাবাহিনী সবসময় জনগণের সঙ্গে জড়িত থাকবে, কোনো রাজা বা রাজতন্ত্রের সঙ্গে নয়। দেশের সেনাবাহিনীকে কমান্ড করার দায়িত্ব রাজার নয় বলেও উল্লেখ করেন তিনি। দেশটির চলমান বিক্ষোভ থেকে অভিযোগ করা হচ্ছে, দেশটির কয়েক দশকের সেনা শাসনের সঙ্গে রাজতন্ত্রের ভূমিকা জড়িত রয়েছে। 

রাজতন্ত্রের প্রতি এমন বিক্ষোভ এবারই প্রথম। দেশটির রাজতন্ত্রের বিরুদ্ধাচরণ শাস্তিযোগ্য অপরাধ হিসেবে গণ্য করা হয় দেশটিতে। কিন্তু ছাত্রজনতার এবারের বিক্ষোভ রাজতন্ত্রকে সরাসরি চ্যালেঞ্জ করছে বলে প্রায় প্রতিদিনই খবর পাওয়া যাচ্ছে। দেশটির রাজতন্ত্রের প্রতি আবেগ এখন কমতির দিকে, এমনটাই মনে করা হচ্ছে। গত জুলাই মাস থেকে ক্ষমতাসীন প্রধানমন্ত্রী ও সাবেক সামরিক জান্তা প্রায়ুথ চ্যান ওচার পদত্যাগ, সেনা প্রভাবিত সংবিধান  বাতিলসহ প্রচলিত রাজতন্ত্রের সংস্কার দাবিতে বিক্ষোভ করে আসছে দেশটির মানুষ। তবে রাজন্ত্রের প্রতি অনুরাগ রয়েছে এমন মানুষের সংখ্যা একদম নেই, এমনটা নয়। সূত্র: রয়টার্স। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা