kalerkantho

রবিবার । ১০ মাঘ ১৪২৭। ২৪ জানুয়ারি ২০২১। ১০ জমাদিউস সানি ১৪৪২

টিগ্রের রাজধানীর ‘সম্পূর্ণ দখলে’ নেওয়ার দাবি ইথিওপিয়ার প্রধানমন্ত্রীর

অনলাইন ডেস্ক   

২৯ নভেম্বর, ২০২০ ১৫:৪৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



টিগ্রের রাজধানীর ‘সম্পূর্ণ দখলে’ নেওয়ার দাবি ইথিওপিয়ার প্রধানমন্ত্রীর

ইথিওপিয়ার প্রধানমন্ত্রী আবিই আহমেদ বলেছেন যে, সরকারি বাহিনী দেশটির উত্তর টিগ্রের আঞ্চলিক রাজধানী 'সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে' নিয়েছে। 'টিগ্রে পিপলস লিবারেশন ফ্রন্টের (টিপিএলএফ) বিরুদ্ধে আগ্রাসনের ব্যাপকতা বাড়ানোর পর কিছুদিন আগে মেকেলে অঞ্চল দখল করে সেনাবাহিনী। সংবাদ সংস্থা রয়টার্সকে টিপিএলএফের নেতা বলেছেন যে তারা 'আত্মসংকল্প বজায় রাখার অধিকার প্রতিষ্ঠা' করবেন এবং 'শেষ পর্যন্ত আক্রমণকারীদের বিরুদ্ধে লড়াই' করতে চান।

সাম্প্রতিক এই সংঘর্ষে শত শত মানুষ মারা গেছে এবং কয়েক হাজার মানুষ ঘড়ছাড়া হয়েছেন। আঞ্চলিক দল টিপিএলএফর বিরুদ্ধে ইথিওপিয়ার প্রধানমন্ত্রী আবিই আগ্রাসনের ঘোষণা দিলে এই মাসের শুরুতে সংঘাতের শুরু হয়।

টুইটারে এক বিবৃতিতে আবিই লিখেছেন যে সেনাবাহিনী ওই অঞ্চলের পুরো নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে। তিনি বলেন, ‘আমি জানাতে পেরে আনন্দিত যে আমাদের কাজ সম্পন্ন হয়েছে এবং টিগ্রে অঞ্চলের সেনা অভিযান স্থগিত হয়েছে।’ 

আবিই জানিয়েছেন, টিপিএলএফের হাতে আটক হওয়া কয়েক হাজার সেনাকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে এবং 'বেসমারিক নাগরিকদের নিরাপত্তার বিষয়টি মাথায় রেখে' অভিযান চালানো হয়েছে। আবিই বলেছেন, যা ধ্বংস করা হয়েছে, সেগুলো পুনর্নির্মাণের এবং যারা শহর ছেড়ে চলে গেছে, তাদের ফিরিয়ে আনার কঠিন কাজ এখন আমাদের সামনে। 

টিপিএলএফের প্রতিক্রিয়া কী? 

সংবাদ সংস্থা রয়টার্সকে পাঠানো একটি টেক্সট মেসেজে টিপিএলএফ নেতা দেব্রেতসিয়ন গেব্রেমাইকেল যুদ্ধক্ষেত্রের পরিস্থিতি সম্পর্কে সরাসরি মন্তব্য না করলেও অভিযোগ করেছেন, সরকারি বাহিনীর 'নৃশংসতা'র কারণে 'শেষ পর্যন্ত যুদ্ধ' করাটাকেই তারা একমাত্র সমাধান মনে করছেন। তিনি লিখেছেন, ‘আমাদের আত্মসংকল্প বজায় রাখার অধিকার প্রতিষ্ঠা করার প্রশ্ন এটি।’

এর আগে সংবাদ সংস্থা এএফপির একটি টিপিএলএফের বিবৃতি প্রকাশ করা হয়, যেখানে তারা ওই অঞ্চলে 'যুদ্ধবিমান ও গোলাবারুদ ব্যবহার করে হত্যাযজ্ঞ' চালানোর বিষয়ে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে নিন্দা জ্ঞাপন করার আহ্বান জানিয়েছিল।

সূত্র : বিবিসি বাংলা।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা