kalerkantho

রবিবার । ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ২৯ নভেম্বর ২০২০। ১৩ রবিউস সানি ১৪৪২

নামের কারণে পাকিস্তানি কূটনীতিক জেবকে আসলেই কি প্রত্যাখ্যান করেছিল সৌদি?

অনলাইন ডেস্ক   

২০ নভেম্বর, ২০২০ ০৯:৪২ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



নামের কারণে পাকিস্তানি কূটনীতিক জেবকে আসলেই কি প্রত্যাখ্যান করেছিল সৌদি?

নামের কারণে পাকিস্তানের কূটনীতিবিদ আকবার জেব সৌদি আরবে নিযুক্ত পাকিস্তানি অ্যাম্বাসেডর হতে পারেননি। এমন একটি খবর আরব টাইমস, ফরেন ফলিসি, ফক্স নিউজ, আলবাওয়াবা ও ঘানা বিজনেস নিউজসহ বিশ্বের বেশ কয়েকটি গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয় আজ থেকে ১০ বছর আগে। এরপর সম্প্রতি দেশের বিভিন্ন মূলধারার সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত হলে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে এই খবরটি। কিন্তু আসলেই কি জেবকে নামের কারণে প্রত্যাখ্যান করেছিল সৌদি? এই সংবাদের তথ্য ঘাটতে গিয়ে বেরিয়ে এসেছে আসল তথ্য। 

আন্তর্জাতিক কয়েকটি গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবদনে দাবি করা হয়, আকবার জেব নামের আরবি অর্থ একেবারে নিকৃষ্ট গালি হওয়ার কারণে সৌদি প্রশাসন তাঁকে পছন্দ করেনি। ৫৫ বছর বয়সী এই কূটনীতিকের নাম আরবিতে একেবারে ন্যক্কারজনক। আকবার জেব শব্দের আরবি অর্থ 'বিশালাকার শিশ্ন'। জনগণ ওই নাম মুখে নিতেও চাইবে না সৌদিতে। জনপরিসরে এই শব্দ এড়াতেই আকবার জেবকে অ্যাম্বাসাডর হিসেবে প্রত্যাখ্যান করেছে সৌদি। আরব টাইমসের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, সৌদি আরব আকবার জেবকে অ্যাম্বাসাডর হিসেবে রাখতে আপত্তি জানাল। 

নামের কারণে সৌদি কর্তৃপক্ষ পাকিস্তানি কূটনীতিবীদকে প্রত্যাখ্যান করার এই বিষয়টি আরব টাইমসের অনলাইন পোর্টালের বরাতে ২০১০ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি ফরেন পলিসির ওয়েবসাইটেও প্রকাশিত হয়। এরপর একই বছর হাফিংটন পোস্টেও এই খবর প্রকাশিত হয় আরব টাইমস এবং ফরেন পলিসির প্রতিবেদনের বরাত দিয়ে। ফরেন পলিসির বরাত দিয়ে ফক্স নিউজও এই প্রতিবেদন প্রকাশ করে। কিন্তু কিছুদিন পরেই আরব টাইমস প্রতিবেদনটি সরিয়ে ফেলে। পরে ফরেন পলিসি তাদের প্রতিবেদন সংশোধন করে জানায়, তাদের প্রথমে প্রকাশিত খবরটি সম্পর্কে বিস্তারিত খোঁজ খবর নিতে গিয়ে খবরটিকে ভুয়া বলে ধরা পড়েছে। আগের প্রতিবেদন যেই সাংবাদিক লিখেছিলেন তিনি ফরেন পলিসির ওয়েবসাইটেই আরেকটি কৈফিয়তমূলক প্রতিবেদন লিখে জানান, ছাপার অক্ষরে পাওয়া যে কোনো খবর পেয়েই যাচাই-বাছাই ছাড়া বিশ্বাস না করার ক্ষেত্রে ওই প্রতিবেদনটি তার জন্য শিক্ষা হয়ে থাকবে। 

এদিকে, আকবর জেব নিজে এটিকেও ভিত্তিহীন আখ্যা দিয়ে তার নাম নিয়ে ইন্টারনেটে ছড়ানো একটি তামাশা বলে উল্লেখ করেন। পাকিস্তান সরকারের মুখপাত্রের বরাতে ডেভিড কেনার জানান, আকবর জেবকে কখনো সৌদি আরবে রাষ্ট্রদূত হিসেবে নিয়োগই দেওয়াই হয়নি। বরং যখনকার কথা বলা হয়েছে তার ৯ মাস আগে থেকে জেব কানাডায় ৩ বছরের জন্য পাকিস্তানের রাষ্ট্রদূত হিসেবে নিয়োজিত ছিলেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা