kalerkantho

শনিবার । ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ২৮ নভেম্বর ২০২০। ১২ রবিউস সানি ১৪৪২

ধর্মীয়বিদ্বেষের অভিযোগে ব্রিটেনের সাবেক বিরোধীদলীয় নেতা বহিষ্কার

জুয়েল রাজ, লন্ডন থেকে   

৩১ অক্টোবর, ২০২০ ০৩:০৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ধর্মীয়বিদ্বেষের অভিযোগে ব্রিটেনের সাবেক বিরোধীদলীয় নেতা বহিষ্কার

ধর্মীয়বিদ্বেষ নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থতার অভিযোগে ব্রিটেনের লেবার পার্টি থেকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে সাবেক বিরোধীদলীয় নেতা জেরেমি করবিনকে।

করবিনের আমলে ইহুদি বিদ্বেষ নিয়ে মানবাধিকার কমিশনের তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশের পর করবিন তা প্রত্যাখ্যান করে যেসব মন্তব্য করেছেন তার জেরে তাকে দল থেকে সরানো হয়েছে।

যুক্তরাজ্যের ইকুয়ালিটি অ্যান্ড হিউম্যান রাইটস কমিশনের (ইএইচআরসি) দীর্ঘ প্রতিক্ষীত ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, করবিন লেবার পার্টির দায়িত্বে থাকার সময় তার দল ইহুদিদের বিরুদ্ধে হয়রানি এবং বৈষম্য ঠেকাতে ব্যর্থ হয়ে সমতা আইন (ইকুয়ালিটি অ্যাক্ট) ভঙ্গ করেছে।

বিবিসি জানায়, তিনটি ক্ষেত্রে লেবার পার্টি আইন ভঙ্গ করেছে জানিয়ে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইহুদি বিদ্বেষের অভিযোগের ক্ষেত্রে রাজনৈতিক হস্তক্ষেপ করা হয়েছে। এ ধরনের অভিযোগের বিষয়টি যারা দেখভাল করেন তাদের পর্যাপ্ত প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়নি এবং হয়রানির ঘটনা ঘটেছে।

করবিনের নেতৃত্বে ইহুদিবিদ্বেষ রোধে যথেষ্ট পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি এবং করবিন এই বিদ্বেষ দূর করতে ব্যর্থ হয়েছেন বলে অভিযোগ করা হয়েছে ইএইচআরসি প্রতিবেদনে।

করবিন সঙ্গে সঙ্গেই এ প্রতিবেদন গ্রহণযোগ্য নয় বলে তা প্রত্যাখ্যান করেছেন এবং তিনি ইহুদি বিদ্বেষের ক্যান্সার নির্মূল করার চেষ্টা করেছেন বলেও জোর গলায় দাবি করেছেন।

করবিনের আরো দাবি, তিনি ইহুদিবিদ্বেষের নিন্দা করেছিলেন। তবে তার নেত্বেত্বের সময় লেবার পার্টিতে যে মাত্রায় ইহুদিবিদ্বেষ ছিল রাজনৈতিক ফায়দা নিতে বিরোধীরা তা নাটকীয়ভাবে অনেক বাড়িয়ে দেখিয়েছিল।

পার্টিতে আমলাতান্ত্রিক জটিলতার কারণে সংস্কার প্রচেষ্টা বাধাগ্রস্ত হয়েছে বলেও দাবি করেছেন করবিন।

তার এইসব মন্তব্যের কঠোর সমালোচনা হয়েছে দলের ভেতরেই। করবিনকে সাময়িক বরখাস্ত করেছেন লেবার দলের বর্তমান নেতা স্টারমার। মানবাধিকার কমিশনের প্রতিবেদন নিয়ে এক মন্তব্যে স্টারমার বলেন, “লেবার পার্টির জন্য এ এক লজ্জার দিন।” গত এপ্রিলে লেবার নেতা হন স্টারমার।

লেবার পার্টি পরবর্তীতে এক বিবিৃতিতে বলেছে, “আজ করবিন সেসব মন্তব্য করেছেন তার প্রেক্ষিতে এবং এরপর তিনি তা প্রত্যাহার করে নিতে না পারার কারণে লেবার পার্টি তাকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে।”

এদিকে করবিন বরখাস্তের এই পদক্ষেপ রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত আখ্যা দিয়ে এর বিরুদ্ধে কঠোরভাবে লড়ে যাওয়ার অঙ্গীকার করেছেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা