kalerkantho

বুধবার । ১০ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ২৫ নভেম্বর ২০২০। ৯ রবিউস সানি ১৪৪২

‘কাশ্মীরে অশান্তির জন্য ইসলামাবাদকে অবশ্যই জবাবদিহি করতে হবে’

অনলাইন ডেস্ক   

২১ অক্টোবর, ২০২০ ১৬:০৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



‘কাশ্মীরে অশান্তির জন্য ইসলামাবাদকে অবশ্যই জবাবদিহি করতে হবে’

কাশ্মীরের একটি অংশ দখল এবং এর শাসক মহারাজা হরি সিংহকে সিংহাসনচ্যুত করার ক্ষেত্রে ইসলামাবাদের ভূমিকা নিয়ে বলতে গিয়ে উপত্যকার চলমান অশান্তির জন্য পাকিস্তানের জবাবদিহিতা নিশ্চিতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন ইউরোপীয় পার্লামেন্টের সদস্য ফুলভিও মার্টোসসিলো।

১৯৪৭-৪৮ সালের কাশ্মীর যুদ্ধের স্মরণে ২৬ অক্টোবরকে ‘কালো দিবস’ পালন করে পাকিস্তানের ইতিহাস বিকৃতির চেষ্টারও সমালোচনা করেন ফুলভিও মার্টোসসিলো। সম্প্রতি ইইউ ক্রনিকলে লেখা এক নিবন্ধে পাকিস্তানের কাশ্মীর আক্রমণ নিয়ে এই সমালোচনা করেন তিনি।

ইসলামাবাদের প্রতারণামূলক আগ্রাসনের সমালোচনা করে তিনি বলেন, পাকিস্তান একদিকে কালো দিবস পালন করে দেশটির ক্ষয়ক্ষতির কথা স্মরণ করে। কিন্তু কাশ্মীরে আক্রমণ করে জাতিগত নির্মূল ও নির্যাতনের সময় যে হাজার হাজার মানুষকে হত্যা করা হয়েছে তা মনে করে না। বারমুলা নামক একটি শহরে ১৪ হাজার কাশ্মীরি হিন্দু, মুসলিম ও শিখকে জবাই করা হয়েছিল। 

তিনি বলেন, পাকিস্তান হলো এমন একটি দেশ, যা শুধু নিজের ব্যর্থতা নিয়ে আর্তনাদ করে।

নিবন্ধে তিনি আরো লেখেন, পাকিস্তানের রাজনৈতিক নেতৃত্বের নির্দেশে পাকিস্তানি সামরিক বাহিনী কাশ্মীরে আক্রমণ চালায়। মূল ভূখণ্ডের সঙ্গে কাশ্মীরকে সংযুক্ত করার জন্য অবৈধভাবে কাশ্মীর দখল করে এবং শাসক হরি সিংহকে ক্ষমতাচ্যুত করে। অঞ্চলটিতে শক্তি, ভূখণ্ড বৃদ্ধি এবং প্রভাব বাড়ানোর জন্য পাকিস্তানের করা দুর্দান্ত একটি নীলনকশার অংশ ছিল ওই সামরিক পদক্ষেপ। কিন্তু পাকিস্তানের রাজনৈতিক নেতৃত্ব ও দেশটির সামরিক বাহিনী তাতে ব্যর্থ হয়েছে। 

‘জম্মু-কাশ্মীরের বিষয়টি পাকিস্তান তার নিজস্ব লাভের জন্যই আন্তর্জাতিক অঙ্গনে উত্থাপন করছে’- এমনটির স্বীকৃতি দিতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে অনুরোধ করেছেন ফুলভিও মার্টোসসিলো। কাশ্মীরে চলমান অশান্তির জন্য ইসলামাবাদকে অবশ্যই জবাবদিহি করতে হবে বলে উল্লেখ করেছেন তিনি।

সূত্র : টাইমস অব ইন্ডিয়া।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা