kalerkantho

মঙ্গলবার । ১১ কার্তিক ১৪২৭। ২৭ অক্টোবর ২০২০। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

শান্তি ফেরানোর উদ্যোগ

এলএসিতে আর সেনা বৃদ্ধি নয়, যৌথ বিবৃতিতে জানাল ভারত-চীন

অনলাইন ডেস্ক   

২৩ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ১৮:২৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



এলএসিতে আর সেনা বৃদ্ধি নয়, যৌথ বিবৃতিতে জানাল ভারত-চীন

লাদাখের আকাশে ভারতীয় যুদ্ধবিমানের মহড়া, ফাইল ছবি।

সীমান্ত সমস্যা সমাধানের উদ্দেশ্যে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখায় (এলএসি) নতুন করে আর কোনো সেনা পাঠানো হবে না বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভারত ও চীন। সামরিক কমান্ডার পর্যায়ে সাম্প্রতিক আলোচনার পর  উভয় দেশ এক যৌথ বিবৃতিতে এ ঘোষণা দিয়েছে।

মঙ্গলবার চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ওয়্যাং ওয়েনবিনকে উদ্ধৃত করে এই বিবৃতি প্রকাশ করেছে চীনা সংবাদমাধ্যম গ্লোবাল টাইমস।

গত ২১ সেপ্টেম্বর ভারত ও চীনের মধ্যে ষষ্ঠ কমান্ডার স্তরের বৈঠকে সাম্প্রতিক সীমান্ত পরিস্থিতি নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে মতবিনিময় হয়। আলোচনায় পূর্ব লাদাখ থেকে সেনা প্রত্যাহার ও উত্তেজনা প্রশমিত করার উদ্দেশ্যে ভারত ও চীনের মধ্যে একটি পাঁচ দফা প্রস্তাবনা বিষয়ক চুক্তি সম্পাদনের কথা হয়েছে।

সোমবার পূর্ব লাদাখের চুসুল অতিক্রম করে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখার বিপরীত দিকে চীনা ভূখণ্ডের মলডো-তে সকাল ১০টা নাগাদ বৈঠকে বসেন দুই দেশের সামরিক কর্মকর্তারা। আলোচনা চলে রাত ১১টা পর্যন্ত। ভারতীয় দলের নেতৃত্বে ছিলেন লেহতে ভারতীয় সেনাবাহিনীর ১৪ কর্পস বাহিনীর কমান্ডার লেফটেন্যান্ট জেনারেল হরিন্দর সিং।

এ ছাড়া ওই দলে ছিলেন ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন যুগ্ম সচিব পর্যায়ের কর্মকর্তা এবং লেফটেন্যান্ট জেনারেল পি জি কে মেনন, যিনি আগামী অক্টোবর মাসে লেফটেন্যান্ট জেনারেল হরিন্দর সিংয়ের স্থলাভিষিক্ত হতে চলেছেন। চীনা দলের নেতৃত্ব দেন দক্ষিণ জিনজিয়াং সামরিক অঞ্চলের কমান্ডার মেজর জেনারেল লিউ লিন। উল্লেখ্য, এই প্রথম ভারত-চীন সীমান্ত সমস্যা সংক্রান্ত সামরিক পর্যায়ের বৈঠকে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কোনো প্রতিনিধি উপস্থিত থাকলেন।

বৈঠকের আগে ভারতের পক্ষে আলোচনার বিষয়বস্তু চূড়ান্ত করা হয় জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভাল, চিফ অব ডিফেন্স স্টাফ বিপিন রাওয়াত ও সেনাপ্রধান জেনারেল মনোজ মুকুন্দ নরভানের মধ্যে শুক্রবার অনুষ্ঠিত এক বৈঠকে।

বৈঠকের একটি সূত্র জানিয়েছে, উচ্চ পর্যায়ের এই আলোচনায় সীমান্ত পরিস্থিতিকে জটিল বলে বর্ণনা করা হয়েছে। তবে উভয় পক্ষই সীমান্তে শান্তি নিশ্চিত করার জন্য ছাড় দেওয়া দরকার বলে একমত হয়েছে।

সূত্র : হিন্দুস্তান টাইমস।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা