kalerkantho

শুক্রবার । ১৪ কার্তিক ১৪২৭। ৩০ অক্টোবর ২০২০। ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

মার্কিন ঘাঁটিতে ডামি হামলার ভিডিও প্রকাশ চীনা বিমানবাহিনীর

অনলাইন ডেস্ক   

২১ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ১৭:৫২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মার্কিন ঘাঁটিতে ডামি হামলার ভিডিও প্রকাশ চীনা বিমানবাহিনীর

গুয়াম দ্বীপে মার্কিন বিমান ঘাঁটিতে দাঁড়িয়ে থাকা মার্কিন সামরিক বিমানের দৃশ্য।

চীনা বিমানবাহিনী একটি ভিডিও প্রকাশ করেছে। সেই ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, পারমাণবিক বোমা হামলা চালাতে সক্ষম চীনা বোমারু বিমান এইচ-৬ মার্কিন ঘাঁটিতে হামলা করছে। বিমানটি প্রশান্ত মহাসাগরীয় দ্বীপ গুয়ামেতে অবস্থিত মার্কিন যুক্তারাষ্ট্রের অ্যান্ডারসন বিমানবাহিনীর ঘাঁটিতে ডামি হামলা (সিমুলেটেড অ্যাটাক) চালায়। এতে আবারো আঞ্চলিক উত্তেজনা বৃদ্ধি পাচ্ছে বলে জানিয়েছে ব্রিটিশ গণমাধ্যম টেলিগ্রাফ। 

শনিবার পিপলস লিবারেশন আর্মি এয়ার ফোর্সের ওয়েইবো অ্যাকাউন্টে প্রকাশ করা হয় ভিডিওটি। চীনা বিমানবাহিনীর দুই মিনিট ১৫ সেকেন্ডের ভিডিওটিতে হলিউড সিনেমার ট্রেলারের মতো জাঁকজমকপূর্ণ ও চমকপ্রদ সঙ্গীত ব্যবহার করা হয়।

ভিডিওটিতে দেখানো হয়, এইচ-৬ বিমানটি একটি মুরুভূমির বিমান ঘাঁটিতে থেকে উপরে উঠছে। অর্ধেক পথ পেরিয়ে এক পাইলট বোতাম টিপে অজ্ঞাত সমুদ্র উপকূলের রানওয়েতে ক্ষেপণাস্ত্র ছুড়ে। ভিডিওটিকে বলা হচ্ছে, ‘যুদ্ধের ঈশ্বর এইচ-৬ আক্রমণ চালাতে যায়’।

টেলিগ্রাফের প্রতিবেদনে বলা হয়, ক্ষেপণাস্ত্রগুলো রানওয়েতে ছিল। একটি স্যাটেলাইট চিত্রে দেখানো হয়েছে হামলার লক্ষ্যবস্তু ছিল অ্যান্ডারসনের লেআউট। এরপর দেখা যায় ভূমি কাঁপানোর ছবি। বিস্ফোরণের শব্দ শুরু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ভিডিওটিতে ব্যবহার করা সঙ্গীত থেমে যায়।

ভিডিওটির সংক্ষিপ্ত বিবরণে চীনা বিমানবাহিনী লিখেছে, আকাশ পথে মাতৃভূমির সুরক্ষা রক্ষাকারী আমরা; মাতৃভূমির আকাশের সুরক্ষা রক্ষার জন্য সবসময়ই আমাদের আত্মবিশ্বাস ও ক্ষমতা আছে। তবে এই ভিডিও নিয়ে চীনের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ইন্দো-প্যাসিফিক কমান্ড তত্ক্ষণাত কোনো মন্তব্য করেনি।

গুয়ামে বিমানঘাঁটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ। সেখানে দেশটির বিমান ঘাঁটিসহ নানা সামরিক সুযোগ-সুবিধা রয়েছে। তাই এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে যে কোনো সংঘাতের জবাব দেওয়ার জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ এই দ্বীপটি। 

সিঙ্গাপুরের ইনস্টিটিউট অব ডিফেন্সে অ্যান্ড স্ট্রাটেজিক স্টাডিসের ফেলো কোলিন কোহ বলেছেন, ভিডিওটির লক্ষ্য হলো চীনের ক্রমবর্ধমান দক্ষতার কথা তুলে ধরা। তার মতে, ভিডিওটি আমেরিকানদের সতর্ক করার উদ্দেশ্যে তৈরি করা হয়েছে। এটি দিয়ে বুঝানো হয়েছে, গুয়ামের মতো নিরাপদ অঞ্চলগুলোও হুমকির মুখে পড়তে পারে যখন আঞ্চলিক বিরোধ দেখা দেয়।

সূত্র: টেলিগ্রাফ। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা