kalerkantho

বুধবার । ৮ আশ্বিন ১৪২৭ । ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০। ৫ সফর ১৪৪২

করোনার উৎস সম্পর্কে স্বচ্ছ তদন্তের দাবি তিব্বতীয় প্রতিনিধিদের

অনলাইন ডেস্ক   

১৫ আগস্ট, ২০২০ ১৫:৫৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



করোনার উৎস সম্পর্কে স্বচ্ছ তদন্তের দাবি তিব্বতীয় প্রতিনিধিদের

তিব্বতের ১০টি সংস্থার প্রতিনিধিরা দিল্লিতে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডাব্লিউএইচও) এবং জাতিসংঘের (ইউএন) কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন এবং করোনা সংক্রমণের উৎস সম্পর্কে স্বচ্ছ তদন্তের দাবিতে একটি স্মারকলিপি জমা দিয়েছেন।

এরই মধ্যে ডাব্লিউএইচওর দুজন বিজ্ঞানী করোনাভাইরাসের জিনগত উৎস এবং জিনোম সিকোয়েন্স অধ্যয়ন করার জন্য চীনে অবস্থান করছেন বলে গত ১৩ জুলাই চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র হুয়াচেন ইয়াং জানিয়েছেন।

তিব্বতীয় প্রতিনিধিদের দাবি ছিল, চীনকে প্রকাশ্যে ঘোষণা দিতে হবে যে ডাব্লিউএইচওর যে বিজ্ঞানীরা ভাইরাসটির জেনেটিক উৎস চিহ্নিত করার জন্য চীনে গেছেন, তাঁরা ডাব্লিউএইচওর প্রস্তাব মেনে গবেষণা করবেন এবং চীন সরকারের সমর্থনে তা সম্পন্ন হবে।

এএনআইয়ের সঙ্গে কথা বলার সময় সাবেক ডেপুটি স্পিকার ও প্রবাসী তিব্বত সরকারের সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ডলমা গ্যারি বলেছিলেন যে ১০টি তিব্বতীয় সংগঠনের একটি দল ডাব্লিউএইচও এবং জাতিসংঘ কর্মকর্তাদের সঙ্গে এ বিষয়ে কথা বলতে গিয়েছিল।

তিনি বলেন, 'ডাব্লিউএইচওর যে বিজ্ঞানীরা ভাইরাসটির জেনেটিক উৎস অনুসন্ধান এবং মানব শরীরে কিভাবে প্রবেশ করল সেই পথ অনুসন্ধানে বর্তমানে চীনে উপস্থিত আছেন। তাঁরা সেখানে চীনের আমন্ত্রণে উপস্থিত রয়েছেন। সুতরাং তাদের পক্ষে স্বচ্ছ তদন্ত ও গবেষণা কতটা সম্ভব, সেটা নিয়ে প্রশ্ন আছে। তবে বিজ্ঞানীদের প্রতি সমর্থন অব্যাহত রেখে গ্যারি বলেছেন, ডাব্লিউএইচও বিজ্ঞানীদের বিশ্বাসযোগ্যতা ও নিরপেক্ষতার সঙ্গে তদন্তকাজ করা উচিত। বর্তমান পরিস্থিতিতে সেটা সম্ভব না হলে বিজ্ঞানীদের উচিত সবার বৃহত্তর স্বার্থে ফিরে আসা।

স্মারকলিপিতে ডাব্লিউএইচও-কে প্যানেলের প্রতিবেদন দাখিলের পর ভাইরাসের উৎস, ঘটনার সময়রেখা এবং ডাব্লিউএইচওর প্রতিক্রিয়ার একটি বিস্তৃত পর্যালোচনা জনসাধারণের কাছে প্রকাশের জন্য অনুরোধ করা হয়েছে।

দিল্লির আঞ্চলিক উৎসাং তিব্বতি সমিতির সভাপতি সোনম বলেছেন, 'আমরা জাতিসংঘকে ২০ তিব্বতি স্বেচ্ছাসেবীর গ্রেপ্তার, অবরুদ্ধকরণ ও দণ্ডপ্রদানের সুষ্ঠু তদন্ত নিশ্চিত করার জন্য অনুরোধ করেছি। চীন কর্তৃক মহামারি ছড়ানোর প্রতিবাদে বিক্ষোভ করায়  তাদের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। গ্রেপ্তার অব্যাহত থাকায় তিব্বতিরা গুরুতর মানসিক ও সামাজিক নির্যাতনে ভুগছেন।'

তিনি আরো বলেছিলেন, চীনকে অবশ্যই ডাব্লিউএইচওর প্রতিনিধি দলের সদস্যদের জন্য তিব্বতের স্বায়ত্তশাসিত অঞ্চলের সব দরজা খুলতে হবে, যাতে তারা সঠিক পরিস্থিতি অনুধাবন করতে পারেন।

সূত্র : জাস্ট আর্থ নিউজ।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা