kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৪ আশ্বিন ১৪২৭ । ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০। ১১ সফর ১৪৪২

অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা নিয়ে জাতিসংঘে ফের ইরান-যুক্তরাষ্ট্র সংঘাত

অনলাইন ডেস্ক   

১৪ আগস্ট, ২০২০ ১৭:৪৫ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা নিয়ে জাতিসংঘে ফের ইরান-যুক্তরাষ্ট্র সংঘাত

জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠক, ফাইল ছবি।

জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের মাধ্যমে ইরানের ওপর অস্ত্র নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ বাড়াতে জোরাল তৎপরতা শুরু করেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। তবে রাশিয়া, চীন ও অন্যান্য দেশের বিরোধিতার ফলে বিষয়টি ঘিরে নতুন করে সংঘাতের আশঙ্কা বাড়ছে৷ আগামী ১৮ অক্টোবর ইরানের অস্ত্র নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ শেষ হচ্ছে৷

বৃহস্পতিবারই ট্রাম্প প্রশাসনের উদ্যোগে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে এই প্রশ্নে ভোটাভুটি শুরু হয়েছে৷ করোনা সংকটের কারণে পরিষদের বৈঠকে প্রতিনিধিরা সশরীরে উপস্থিত থাকতে না পারায় ভোটাভুটির জন্য ২৪ ঘণ্টা ধার্য করা হয়েছে৷ এই সময়ের মধ্যে ১৫টি সদস্য দেশকে এই প্রশ্নে অবস্থান নিতে হবে৷ নিউ ইয়র্ক সময় শুক্রবার সন্ধ্যায় ভোটাভুটির ফল জানা যাবে বলে ধরে নেওয়া হচ্ছে৷

নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী সদস্য রাশিয়া ও চীন আগেই এই প্রস্তাব বানচাল করতে ভেটো প্রয়োগ করার হুমকি দিয়েছে৷ অন্য কিছু সদস্যও প্রস্তাবের বিরোধিতা অথবা ভোটদানে বিরত থাকতে পারে৷ কমপক্ষে ৯টি দেশ প্রস্তাবের পক্ষে সায় না দিলে ভেটো প্রয়োগেরও প্রয়োজন পড়বে না৷ ফলে বিষয়টিকে ঘিরে সংঘাতের আশঙ্কা বাড়ছে৷ তবে ট্রাম্প প্রশাসন ব্রিটেন, ফ্রান্স ও জার্মানির কাছে ইরানকে অস্ত্র বিক্রির ওপর নিষেধাজ্ঞা চালু রাখার প্রস্তাব চেয়েছে৷ বিকল্প কোনো প্রস্তাব পছন্দ হলে অনির্দিষ্টকালের জন্য নিষেধাজ্ঞার মেয়াদের দাবি থেকে সরে আসার ইঙ্গিত দিয়েছে ওয়াশিংটন৷ সে ক্ষেত্রে শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রের প্রস্তাব বিফল হলে ইউরোপীয় তিন শক্তির উদ্যোগে সীমিত সময়ের জন্য নিষেধাজ্ঞার প্রস্তাব পেশ করা হতে পারে৷

ইরানের সঙ্গে পরমাণু চুক্তির প্রেক্ষাপটে জাতিসংঘের নিষেধাজ্ঞা বাড়তি গুরুত্ব পাচ্ছে৷ ২০১৫ সালে ভিয়েনায় এই চুক্তি স্বাক্ষরের সময় ইরানের আচরণের ওপর নির্ভর করে অস্ত্র বিক্রির ওপর নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়ার উদ্যোগ শুরু হয়েছিল৷ নিরাপত্তা পরিষদ এই চুক্তির প্রতি সমর্থন জানিয়ে নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ ২০২০ সালের অক্টোবর মাস পর্যন্ত সীমিত করতে একটি প্রস্তাব পাস করেছিল৷ কিন্তু ডোনাল্ড ট্রাম্প ক্ষমতায় এসে ২০১৮ সালে এই চুক্তি থেকে যুক্তরাষ্ট্রকে সরিয়ে নেওয়ার পর থেকে নানা ক্ষেত্রে জটিলতা বাড়ছে৷

বাকি স্বাক্ষরকারী দেশগুলো পরমাণু চুক্তি মেনে চলতে চাইলেও ওয়াশিংটন থেকে ক্রমাগত বাধার মুখে জটিলতা বাড়ছে৷ যেমন ট্রাম্প প্রশাসন বৃহস্পতিবারের প্রস্তাবে ইরানকে অস্ত্র বিক্রির ওপর নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ অনির্দিষ্টকালের জন্য বাড়ানোর ডাক দিয়েছে৷ সন্ত্রাসবাদের মদদ দেওয়া দেশ হিসেবে ইরানকে অস্ত্র বিক্রির পক্ষে কোনো যুক্তি নেই বলে ওয়াশিংটন মনে করে৷ পরমাণু চুক্তির সঙ্গে বিষয়টির কোনো সম্পর্ক নেই বলে দাবি করেছেন জাতিসংঘে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত কেলি ক্রাফট৷

নিরাপত্তা পরিষদ এই প্রস্তাব অনুমোদন না করলে ট্রাম্প প্রশাসন পরমাণু চুক্তির আওতায় ‘স্ন্যাপব্যাক' প্রক্রিয়া চালু করার হুমকি দিয়েছে৷ সেই প্রক্রিয়া অনুযায়ী ইরান চুক্তির গুরুত্বপূর্ণ শর্ত না মানলে জাতিসংঘের সব নিষেধাজ্ঞা আবার চালু করার বিধান রাখা হয়েছে৷ ওয়াশিংটন সত্যি এমন উদ্যোগ নিলে গোটা পরমাণু চুক্তির ভবিষ্যৎ হুমকির মুখে পড়তে পারে৷ তবে সমালোচকদের মতে, যুক্তরাষ্ট্রের এই চুক্তি থেকে সরে আসার পর সে দেশের ‘স্ন্যাপব্যাক' প্রক্রিয়া চালু করার অধিকারই আর নেই৷ ফলে এই মুহূর্তে ইরান ছাড়াও রাশিয়া, চীন, ব্রিটেন, ফ্রান্স ও জার্মানি চুক্তির বিষয়বস্তু নিয়ে আলোচনা করতে পারে৷

ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ অস্ত্র বিক্রির ক্ষেত্রে তাঁর দেশের ওপর নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিলে তার পরিণাম সম্পর্কে সতর্ক করে দিয়েছেন৷ তবে ইরান সে ক্ষেত্রে ঠিক কোন পদক্ষেপ নেবে, সে বিষয়ে তিনি কিছু জানাননি৷

সূত্র : ডয়েচে ভেলে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা