kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৪ আশ্বিন ১৪২৭ । ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০। ১১ সফর ১৪৪২

সীমান্তে বিএসএফের অত্যাচার নিয়ে সরব তৃণমূল মন্ত্রী

অনিতা চৌধুরী, কলকাতা প্রতিনিধি   

১২ আগস্ট, ২০২০ ০১:২০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সীমান্তে বিএসএফের অত্যাচার নিয়ে সরব তৃণমূল মন্ত্রী

পশ্চিমবঙ্গ সরকারের উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ মঙ্গলবার কুচবিহারের মধ্য বালাভুত গ্রামের বাসিন্দাদের জানান, সীমান্তবর্তী গ্রামগুলোতে বিএসএফের অত্যাচারের ঘটনা সম্পর্কে মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির সঙ্গে তিনি আলোচনা করবেন।

রবিবার রাতে বিএসএফের কিছু জওয়ান তুফানগঞ্জ মহকুমার এই গ্রামে ঢুকে গুলি চালান। বিএসএফের গুলিতে গ্রামের ১৯ বছর বয়সের শাহিনুর হকের মৃত্যু হয়।

যদিও বিএসএফের পক্ষ থেকে জানানো হয় যে, তারা গরু চোরাকারবারিদের ধরতে এসেছিলেন, গ্রামের মানুষ জানান, শাহিনুর এক পরিযায়ী শ্রমিক ছিলেন এবং তিনি বস্ত্র শিল্পের কাজ করতেন।

সোমবার সারা দিন ধরে শাহিনুরের মৃত্যুর পরে গ্রামবাসীরা প্রতিবাদ করেন এবং মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য নিয়ে যাওয়ার সময় বাধা দেন। পরে রবীন্দ্রনাথ বাবুর হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে।

এই ঘটনা খুব মর্মান্তিক...মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি আমাকে আপনাদের কাছে পাঠিয়েছেন। বিএসএফের অত্যাচারের কাহিনী আমি তাঁকে জানাব বলে গ্রামের মানুষদের জানান রবীন্দ্রনাথ বাবু।

তিনি আরো জানান, পুলিশ গোটা ঘটনা তদন্ত করে দেখবে এবং দোষী বিএসএফ জওয়ানদের শাস্তি হবে।

এদিকে মঙ্গলবার বনগাঁতে আর এক ঘটনায় বিএসএফের জওয়ানরা উত্তর ২৪ পরগনার ভারত বাংলাদেশ সীমান্তের হরিদাসপুর চেকপোস্টের কাছে কিছু চোরাকারবারিদের ওপর গুলি চালায়, যা নিয়ে আবার বিতর্ক শুরু হয়েছে। 

বিএসএফের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে ইছামতি নদী দিয়ে কিছু চোরাকারবারি বাংলাদেশে অবৈধভাবে ওষুধ পাচার করার চেষ্টা করছিল। প্রায় ২১ লাখ রুপির জীবনদায়ী ওষুধ বিএসএফ কর্মকর্তারা আটক করেন।

বিএসএফের এক কর্মকর্তা জানান, চোরাকারবারিরা পালানোর চেষ্টা করলে গুলি চালানো হয়।

লকডাউনের কারণে বাংলাদেশের অনেক মানুষ চিকিৎসার জন্য কলকাতায় আসতে পারছেন না... আবার ওষুধ রপ্তানি ক্ষেত্রেও সমস্যা আছে। এই সময় বিএসএফের গুলি চালানো খুবই দুঃখজনক বলে জানান এক তৃণমূল নেতা।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা