kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৯ আশ্বিন ১৪২৭ । ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০। ৬ সফর ১৪৪২

বৈরুত বিস্ফোরণে ৩ লাখ মানুষ বাস্তুচ্যুত, ক্ষতি ৫০০ কোটি ডলার

অনলাইন ডেস্ক   

৫ আগস্ট, ২০২০ ১৯:০৩ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বৈরুত বিস্ফোরণে ৩ লাখ মানুষ বাস্তুচ্যুত, ক্ষতি ৫০০ কোটি ডলার

বৈরুতে ভয়াবহ বিস্ফোরণের প্রেক্ষিতে লেবাননের রাষ্ট্রপতি মিশেল আউন বুধবার জরুরি মন্ত্রিসভার বৈঠকের আহ্বান করেছিলেন। সেখানে তিনি জানিয়েছেন, বৈরুতে বিশাল বিস্ফোরণে কমপক্ষে ১০০ জন নিহত এবং ৪০০০ এর বেশি মানুষ আহত হয়েছে।

কর্মকর্তারা বলেন, ধ্বংসস্তুপে আটকে পড়া মানুষের খোঁজে উদ্ধার অভিযান চলছে। অনেকেই চাপা পড়ে আছেন, ফলে মৃত্যুর সংখ্যা আরো বাড়বে।

বিস্ফোরণে প্রায় ৩ লাখ মানুষ বাস্তুচ্যুত হয়েছে বলে জানিয়েছেন শহরের গভর্নর মারওয়ান অবুউদ। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে অসংখ্য ঘরবাড়ি। কর্তৃপক্ষ তাদের আশ্রয়, খাদ্য এবং পানি সরবরাহে কাজ করছে।

গভর্নর বলেন, 'বৈরুত ফায়ার সার্ভিসের ১০ সদস্য নিহত হয়েছেন। ক্ষয়ক্ষতি ৩ থেকে ৫শ’ কোটি মার্কিন ডলার (প্রায় ৪৫ হাজার কোটি টাকা)। তার বেশিও হতে পারে।'

২০১৪ সালের একটি নিরাপত্তা প্রতিবেদনের তথ্য তুলে ধরেন গভর্নর। ওই প্রতিবেদনে সম্ভাব্য বিস্ফোরণের বিষয়ে সতর্ক করা হয়েছিল। শহরের মানুষের নিরাপত্তা নিশ্চিতে রাজধানী থেকে রাসায়নিকের গুদাম সরিয়ে নেয়ারও পরামর্শ দেয়া হয়েছিল।

বিস্ফোরণের পরই মন্ত্রিসভার জরুরি বৈঠক ডেকেছেন লেবাননের প্রেসিডেন্ট মিশেল আউন। বৈঠক থেকে দুই সপ্তাহের জন্য জরুরি অবস্থা জারির সিদ্ধান্ত আসতে পারে।

বিস্ফোরণের কারণ এখনো জানা যায়নি। গুদামে বাজেয়াপ্ত করা ২ হাজার ৭শ’ ৫০ টন অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট ছিল বলে জানা গেছে। যেগুলো ৬ বছর ধরে সেখানে মজুদ করে রাখা হয়েছে বলেও জানানো হয়।

বিস্ফোরণের ঘটনায় বন্দরের একটি অনিরাপদ গুদামে মজুদ হাজার হাজার টন অত্যন্ত বিপজ্জনক রাসায়নিক দ্রব্য অ্যমোনিয়াম নাইট্রেটকে সম্ভাব্য উৎস হিসেবে দেখা হচ্ছে। প্রেসিডেন্ট মিশেল আউন জানিয়েছেন, বৈরুত সমুদ্র বন্দরের কাছে একটি রাসায়নিক গুদাম থেকে বিস্ফোরণের সূত্রপাত। সেখানে ২ হাজার ৭৫০ টন অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট ছিল যা বোমা ও সার তৈরিতে ব্যবহৃত হয়ে থাকে। বিপদজনক রাসায়নিক উপাদান সংরক্ষণে কোন সতর্কতা অবলম্বন না করার বিষয়টি অগ্রহণযোগ্য।

সূত্র : আল-জাজিরা।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা