kalerkantho

শুক্রবার । ৩ আশ্বিন ১৪২৭। ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০। ২৯ মহররম ১৪৪২

সিরিয়ায় বিমান হামলা চালিয়েছে ইসরায়েল, যুদ্ধ পরিস্থিতি

অনলাইন ডেস্ক   

৪ আগস্ট, ২০২০ ১৪:৫০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সিরিয়ায় বিমান হামলা চালিয়েছে ইসরায়েল, যুদ্ধ পরিস্থিতি

ফাইল ছবি।

সিরিয়ার সামরিক বাহিনীর বিভিন্ন স্থাপনায় বিমান হামলা চালিয়েছে ইসরায়েল। গোলান মালভূমিতে সাম্প্রতিক উত্তেজনাকে কেন্দ্র করে এ হামলা চালানো হয়। এক বিবৃতিতে ইসরায়েলি সেনাবাহিনী এ তথ্য নিশ্চিত করেছে। সিরিয়ার রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যমও  বিমান হামলার কথা স্বীকার করেছে।

সোমবার সিরিয়ার বেশ কিছু সেনা কাঠামো লক্ষ্য করে একের পর এক বিমানহানা চালায় ইসরায়েল। হেলিকপ্টার থেকেও আক্রমণ চালানো হয়েছে বলে কয়েকটি সংবাদমাধ্যমের দাবি।

সিরিয়ার সরকারি গণমাধ্যম সানা জানিয়েছে, ইসরায়েলের বিমান সিরিয়ার সীমান্তে ঢোকার পরেই অ্যান্টি এয়ারক্রাফট মিসাইল ব্যবহার করেছে সিরিয়ার সৈন্যরা। রাজধানী দামাস্কাসের কাছে সেনা ছাউনিতে আক্রমণের কথাও তারা জানিয়েছে। তবে সাধারণ মানুষের মৃত্যুর খবর মেলেনি।

উত্তেজনা শুরু হয়েছিল জুলাই মাসেই। সিরিয়া অভিযোগ করেছিল তাদের উপর মিসাইল হামলা চালিয়েছে ইসরায়েল। তবে, মিসাইল হামলার কথা স্বীকার করেনি ইসরায়েল। এরপর দিন কয়েক আগে লেবানন সীমান্তে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে ইসরায়েলের সৈন্য এবং হিজবুল্লাহ যোদ্ধারা। ইসরায়েল অভিযোগ করে, সীমান্ত পেরিয়ে ইসরায়েলে ঢোকার চেষ্টা করছিলেন ওই যোদ্ধারা। সীমান্তের ব্লু লাইন পেরনোর পরেই তাঁদের লক্ষ্য করে গুলি চালানো হয়। পাল্টা গুলি চালায় হেজবুলও। তবে শেষ পর্যন্ত তাঁদের মৃত্যু হয়।

ইসরায়েলের অভিযোগ, গোলান সীমান্তে রোববার ফের উত্তেজনা তৈরির চেষ্টা করে সিরিয়া। দুই দেশের কাঁটাতারের কাছে বোমা রাখার চেষ্টা করছিল সিরিয়ার কয়েকজন ব্যক্তি। ইসরায়েল সেনাদের গুলিতে তাদের মৃত্যু হয়েছে। এই ঘটনার জন্য সিরিয়াকেই দাবি করে ইসরায়েল প্রশাসন। যদিও সিরিয়া এ বিষয়ে সরকারি ভাবে কোনো প্রতিক্রিয়া জানায়নি।

গত সপ্তাহে হিজবুল্লাহর হামলার পর ইসরায়েল অবশ্য হুমকি দিয়েছিল, এর জবাব দেওয়া হবে। সোমবারের এয়ারস্ট্রাইক তারই জের বলে মনে করা হচ্ছে। ইসরায়েল ডিফেন্স ফোর্স (আইডিএফ) জানিয়েছে, সিরিয়ার সেনা কাঠামো, গোয়েন্দা তথ্য সংগ্রহ সেন্টার এবং অ্যান্টি এয়ারক্রাফট মিসাইল লঞ্চার লক্ষ্য করে এয়ার স্ট্রাইক চালানো হয়েছে। বিমানহানা সফল হয়েছে বলেও ইসরায়েল দাবি করেছে।

সামরিক বিশ্লেষকরা বলছেন, ইসরায়েলের এই বিমান হামলা সিরিয়া-লেবানন-ইসরায়েল সীমান্তে উত্তেজনা অনেকটাই বাড়িয়ে দিয়েছে। কার্যত যুদ্ধের পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। ইসরায়েল গোলান অঞ্চলে অতিরিক্ত সৈন্য মোতায়েন করেছে। সিরিয়াও সীমান্তে সেনার সংখ্যা বাড়িয়েছে।

সূত্র : ডয়েচে ভেলে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা