kalerkantho

মঙ্গলবার  । ২০ শ্রাবণ ১৪২৭। ৪ আগস্ট  ২০২০। ১৩ জিলহজ ১৪৪১

পিছু হটেছে, ফিরেও আসতে পারে! চীন নিয়ে দোটানায় ভারত

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৭ জুলাই, ২০২০ ১৪:৩৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পিছু হটেছে, ফিরেও আসতে পারে! চীন নিয়ে দোটানায় ভারত

পূর্ব লাদাখের গালওয়ান উপত্যকার ১৪ নম্বর পেট্রোলিং পয়েন্ট থেকে মাত্র এক কিলোমিটার সরে গেছে চীনের সেনাবাহিনী। প্যাংগং রেঞ্জের ফিঙ্গার পয়েন্টে তাদের অস্থায়ী ছাউনিগুলোও সরানো হয়েছে। 

তবে চীনের সেনাবাহিনীল সামান্য পদক্ষেপে এখনো আশার আলো দেখছে না ভারতের সেনাবাহিনী। ভারতের সেনা সূত্রে জানানো হয়েছে, ভারতীয় ভূখণ্ডে যে প্রায় ১৮ কিলোমিটার এলাকা পর্যন্ত ঢুকে এসেছিল চীনের বাহিনী। সেখানে মাত্র এক থেকে দুই কিলোমিটার পিছু হটেছে তারা। 

প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা পেরিয়ে নিজেদের নিয়ন্ত্রণাধীন এলাকায় ফিরে যায়নি তারা। সে কারণে চীনের সেনাবাহিনীর আবারো ফিরে আসার শঙ্কা একেবারেই উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না।

সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, দুই দেশের বাহিনীর যেখানে সংঘর্ষ হয়েছিল সেই পিপি ১৪ থেকে মাত্র দেড় কিলোমিটার সরে গেছে চীনের বাহিনী। পেট্রোলিং পয়েন্ট ১৫ ও পেট্রোলিং পয়েন্ট ১৭ থেকে কিছু তাঁবু গুটিয়ে ফেলা হয়েছে। তবে চীনের সেনাবাহিনীর হাবভাবে খুব একটা স্বস্তি মিলছে না। সীমান্তে পরিস্থিতির দিকে সতর্ক নজর রাখা হচ্ছে ভারতের পক্ষ থেকে।

এদিকে ৩০ জুন চীন-ভারত সেনা কম্যান্ডার পর্যায়ের বৈঠকের পর সীমান্ত সমস্যার সমাধান না হওয়ায় চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই-র সঙ্গে ফোনে কথা বলেন ভারতের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভাল। 

ওই কথোপকথনের পর ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে জানায়, এই আলোচনায় দুই পক্ষই সীমান্ত থেকে সেনাবাহিনী সরানোর ব্যাপারে নিশ্চিত হয়েছে। প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখায় দুই দেশের সীমান্তে শান্তি ও সুস্থিতি ফিরিয়ে আনতে দুই দেশ তাদের বাহিনী সরিয়ে নেবে। মধ্যবর্তী স্থানে অন্তত তিন কিলোমিটার জুড়ে একটা নিরপেক্ষ এলাকা বা বাফার জোন তৈরি করা হবে। দুই দেশই যাতে এলএসি-র বিধি কঠোরভাবে মেনে চলে সেটা সুনিশ্চিত করা হবে।

ডোফালের সঙ্গে কথার পর বরফ কিছুটা গলে। গতকাল রাত থেকেই ধীরে ধীরে বাহিনী ও সাঁজোয়া গাড়ি নিয়ে পিছু হটতে শুরু করেছে চীন। বাহিনী সরিয়েছে ভারতও। তবে গালওয়ান ও প্যাংগং রেঞ্জের পুরো পরিস্থিতি খতিয়ে না দেখে এখনই নিশ্চিত হওয়া যাচ্ছে না বলেই জানিয়েছে ভারতীয় সেনা সূত্র। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা