kalerkantho

সোমবার  । ১৯ শ্রাবণ ১৪২৭। ৩ আগস্ট  ২০২০। ১২ জিলহজ ১৪৪১

চীনকে দূরে ঠেলে ভারতের পাশে জাপান

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৩ জুলাই, ২০২০ ১৯:০৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



চীনকে দূরে ঠেলে ভারতের পাশে জাপান

গালওয়ান ভ্যালিতে চীনা লাল ফৌজের সঙ্গে শারীরিক সংঘাতে ২০ ভারতীয় সেনা নিহতের ঘটনায় লাদাখে যুদ্ধ পরিস্থিতির বিরাজ করছে। চীন নিজেদের বাহুবল দেখিয়ে ভারতকে কাবু করবে ভেবেছিল। তবে বেইজিংয়ের সেই আশায় গুড়েবালি। চীনের দখলদারি মানসিকতার বিরুদ্ধে একের পর এক আন্তর্জাতিক স্তরে সমর্থন পেয়ে চলেছে ভারত। এবার সেই তালিকায় যোগ হল জাপানের নাম।

জাতিসংঘে চীনের ভারতবিরোধী বিবৃতির বিরুদ্ধে সরব হয়েছিল আমেরিকা-জাপান। এবার শুক্রবার সরকারিভাবে বিবৃতি জারি করে লাদাখে চীনের আগ্রাসী ভূমিকার নিন্দা করল সূর্যোদয়ের দেশটি।

পূর্ব লাদাখ সীমান্তে ভারত-চীনের টানটান স্নায়ুযুদ্ধ চলছে। চীনা লালফৌজের হাতে ২০ ভারতীয় সেনা সদস্য নিহত হয়েছেন। এই ঘটনার প্রভাব পড়েছে আন্তর্জাতিক কূটনীতিতেও। এই ইস্যুতে বেশিরভাগ রাষ্ট্রই ভারতের পাশে দাঁড়িয়েছে বলে ভারতীয় গণমাধ্যমে দাবি করা হয়েছে।

শুক্রবার এক টুইট বার্তায় ভারতে জাপানের রাষ্ট্রদূত সাতোশি সুজুকি জানান, প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা (এলএসি) বরাবর এমন কিছু না ঘটা উচিৎ, যাতে ভারত ও চীনের মধ্যে বর্তমান স্থিতাবস্থা পাল্টে যায়। এককথায় আগ বাড়িয়ে চীনের আগ্রাসী নীতিকেই আক্রমণ করেছে জাপান। ভারতের পাশে দাঁড়াল তারা।

ভারতের পররাষ্ট্র সচিব হর্ষবর্ধন শ্রিংলার সঙ্গে বৈঠক করেন ভারতে জাপানের রাষ্ট্রদূত সাতোশি সুজুকি। তারপরই তিনি জানিয়েছেন, 'পররাষ্ট্র সচিব শ্রিংলার সঙ্গে ভাল আলোচনা হয়েছে। প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা (এলএসি) বরাবর কী অবস্থা তা নিয়ে ওর বক্তব্যের যুক্তি আছে। পাশাপাশি আমরা চাই সীমান্তে শান্তি বজায় থাকুক। জাপান চায়, কথাবার্তার মাধ্যমে সমস্যার সমাধান করা হোক। দ্বিপাক্ষিক দিক থেকেই স্থিতাবস্থা ভঙ্গ হয় এমন কোনো ঘটনা ঘটুক জাপান সেটা কোনোভাবেই চায় না।'

প্রসঙ্গত, ডোকলামে টানপোড়েনেও ভারতের পাশে দাঁড়িয়েছিল জাপান। এমনকি, ১৫ জুনের সংঘর্ষে ভারতীয় ২০ সেনার মৃত্যুর পর প্রকাশ্যে শোকজ্ঞাপন করেছিল জাপান। এবার সরকারিভাবে বিববৃতি জারি করে ভারতকে সমর্থন করল জাপান। এর জেরে চীন যে আরো চাপে পড়বে তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

সূত্র- সংবাদ প্রতিদিন। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা