kalerkantho

সোমবার । ২৬ শ্রাবণ ১৪২৭। ১০ আগস্ট ২০২০ । ১৯ জিলহজ ১৪৪১

চীন-পাকিস্তানের বিরুদ্ধে বাণিজ্য অস্ত্র ব্যবহারের কথা ভাবছে ভারত

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৩ জুলাই, ২০২০ ১৫:১৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



চীন-পাকিস্তানের বিরুদ্ধে বাণিজ্য অস্ত্র ব্যবহারের কথা ভাবছে ভারত

পূর্ব লাদাখের গালওয়ান উপত্যকায় চীনা বাহিনীর হাতে এক কর্মকর্তা-সহ ২০ ভারতীয় সেনা নিহতের ঘটনায় সীমান্তে যুদ্ধ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। চীনকে উচিত জবাব দিতে মরিয়া ভারত লাদাখে বিপুল অস্ত্র ও সেনা মোতায়েন করেছে। পিছু হটার পাত্র নয় চীনা লাল ফৌজ, তারাও সীমান্তে সৈন্য বৃদ্ধি করে আরো অনড় অবস্থানে। ফলে রক্তক্ষয়ী সংঘাত অনিবার্য বলে মনে করছেন অনেকেই।

তবে এমন পরিস্থিতে মোদি সরকার শুধু সামরিক ভাষায় নয়, কঠোর বাণিজ্যিক বিধিনিষেধ আরোপ করে চীনকে শিক্ষা দেওয়ার বিকল্প কৌশল নিয়েও ভাবছে।

এরই মধ্যে বিকল্প এই প্রস্তাবকে সামনে রেখে উচ্চপর্যায়ের আলোচনা শুরু করেছে নয়াদিল্লি। নির্দিষ্ট কিছু দেশের কম্পানিগুলোর ক্ষেত্রে এই নিয়ম লঘু হতে চলেছে বলেও জানা গেছে। সঠিকভাবে প্রয়োগ এবং তার প্রভাবও দেখা হবে। তবে এখনো কোন চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়নি।

ভারতের এমন সিদ্ধান্তে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হবে চীনা কম্পানিগুলো কারণ এখনো ভারতের ভূখন্ডের ৩৮ হাজার বর্গকিলোমিটার দখল করে রয়েছে বেইজিং। সেই সঙ্গে রয়েছে পাকিস্তান যারা পাক অধিকৃত কাশ্মীরের অনেকটা দখল করেছে এবং শাক্সম ভ্যালি থেকে চীন পর্যন্ত ৫০০০ বর্গকিলোমিটার দখল করে রয়েছে বলে দাবি ভারতের।

এই প্রস্তাব যদি সর্বসম্মতিতে পাশ হয় তাহলে তা 'মেক ইন ইন্ডিয়া'র আওতায় পাবলিক প্রোকিওরমেন্ট অর্ডার ২০১৭ আওতায় আসবে। উচ্চপর্যায়ে এই আলোচনা বিশেষ নজর দিয়ে দেখা হচ্ছে। অতি স্পর্শকাতর এই বিষয়ে বিভিন্ন ফলাফল থাকতে পারে এবং চীনের সঙ্গে সামগ্রিক কূটনৈতিক সম্পর্ককে মাথায় রেখে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হচ্ছে। চলতি সপ্তাহের শুরুর দিকে ৫৯টি চিনা অ্যাপ্লিকেশনকে ব্লক করেছে ভারত সরকার।

চীনের সঙ্গে সীমান্ত সংঘাত নিরসনে একাধিক উচ্চপর্যায়ের বৈঠকেও কোন সুরাহা মেলেনি। এমন পরিস্থিতিতে শেষ নিদান 'বাণিজ্য অস্ত্র' ব্যবহারের কথা বিবেচনা করছে নয়াদিল্লি। তবে এর ফলাফল কতোটা ভয়ানক হতে পারে সেটা নিয়ে চুলচেরা বিশ্লেষণ চলছে।

উত্তেজনার মধ্যে শুক্রবার (০৩ জুলাই) হঠাৎ করেই লাদাখ পরিদর্শনে গেছেন ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তার সঙ্গে আছেন সেনাপ্রধান ও চিফ অব ডিফেন্স বিপিন রাওয়াত। অঘোষিত এই সফরে মোদি পৌঁছে গেছেন লাদাখের নিমু অঞ্চলে। সেখানে ভারতীয় সেনা, ভারতীয় নৌ-সেনা এবং ইন্ডো-তিব্বত পুলিশ বাহিনীর সঙ্গে দেখা করেছেন তিনি। তাদের মনের জোর বাড়াতেই এমন সফরের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন মোদী।

সূত্র- কলকাতা ২৪।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা