kalerkantho

শনিবার । ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ । ৩০  মে ২০২০। ৬ শাওয়াল ১৪৪১

ভালুকের পিত্ত দিয়ে করোনার চিকিত্‍সা!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৫ এপ্রিল, ২০২০ ১৬:৫১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ভালুকের পিত্ত দিয়ে করোনার চিকিত্‍সা!

ভালুকের পিত্ত দিয়ে তৈরি ওষুধ।

প্রায় প্রতি সপ্তাহের কোনো না কোনো জায়গা থেকে করোনাভাইরাসের চিকিত্‍সার জন্য ওষুধের প্রাথমিক পর্যায়ের সাফল্য দাবি করা হচ্ছে। যদিও কোনোটিকে নিয়ে এখনো চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি। চীনের গবেষণা সংস্থাসহ সারা বিশ্বে অন্তত ২৫টি সংস্থা গবেষণা চালিয়ে যাচ্ছে। 

মারণ ভাইরাস করোনার এখনো কোনো টিকা বা ওষুধ আবিষ্কার করা যায়নি। এখনো এই বিষয়ে গবেষণা চালাচ্ছেন বিজ্ঞানীরা। ম্যালেরিয়া আর এইচআইভির ওষুধ প্রয়োগ করে বিকল্প পদ্ধতিতে করোনা আক্রান্তের চিকিৎসা চালাচ্ছেন বিশ্বের বিভিন্ন দেশের চিকিৎসকরা। এমন পরিস্থিতিতে নাকি করোনাভাইরাসের চিকিৎসার ‘অব্যর্থ’ ওষুধ পেয়ে গেছেন চীনের ভেষজ চিকিৎসা-ধারার গবেষকরা! তাদের দাবি, ভালুকের পিত্ত দিয়ে করোনা আক্রান্তদের সারিয়ে তোলা সম্ভব! এই পদ্ধতি কাজে লাগিয়ে করোনা চিকিৎসার সরকারি ছাড়পত্রও পেয়েছেন তারা। 

জানা গেছে, চিকিৎসার ক্ষেত্রে ভালুকের পিত্তর ব্যবহারের ইতিহাস প্রায় হাজার বছরের প্রাচীন। ভালুকের শরীরের ক্যাথারচার বসিয়ে এই পিত্ত সংগ্রহ করা হয়। তারপর এই পিত্ত থেকেই বানানো হয় ওষুধ। চীনের এই চিকিৎসা পদ্ধতি নিয়ে এরই মধ্যে বেশ হইচই শুরু হয়ে গেছে বিশ্ব চিকিৎসক-গবেষক মহলে। 

বিজ্ঞানীরা বলছেন, ভালুকের পিত্তে থাকা ‘উর্সোডায়োল’ নামের যৌগ মৃতপ্রায় কোষকেও কিছু ক্ষেত্রে সুস্থ করে তুলতে পারে, একথা ঠিক। কিন্তু করোনাভাইরাসের চিকিৎসায় এই ‘উর্সোডায়োল’ নামের যৌগ কতোটা কার্যকর তা নিয়ে এখনো সন্দিহান বিজ্ঞানীরা! বিশেষজ্ঞদের মতে, চীনে করোনার চিকিৎসার ক্ষেত্রে ভালুকের পিত্তর ব্যবহার পরোক্ষভাবে বন্যপ্রাণীর চোরা-শিকারের আশঙ্কাই বাড়িয়ে দিচ্ছে সারা বিশ্বে।

সূত্র: জিনিউজ, ডেইলি মেইল।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা