kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৭ চৈত্র ১৪২৬। ৩১ মার্চ ২০২০। ৫ শাবান ১৪৪১

ফিনল্যান্ডের সাবেক প্রেসিডেন্টও করোনায় আক্রান্ত

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৬ মার্চ, ২০২০ ১৮:৩২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ফিনল্যান্ডের সাবেক প্রেসিডেন্টও করোনায় আক্রান্ত

করোনাভাইরাস থেকে রেহাই পাচ্ছেন না কেউ। এবার আক্রান্ত হলেন ফিনল্যান্ডের সাবেক প্রেসিডেন্ট। কয়েকদিন আগে সাবেক প্রেসিডেন্টে মার্টি আহতিসারির স্ত্রীও করোনায় আক্রান্ত হন। আর এবার তিনি নিজেই করোনায় আক্রান্ত। দেশটির প্রেসিডেন্টের কার্যালয় থেকে বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে। করোনায় আক্রান্ত হলেও তিনি সুস্থ আছেন বলে জানানো হয়েছে।

চলতি মাসের ৮ মার্চ নারী দিবসের একটি গানের অনুষ্ঠানে যোগ দেন ৮২ বছর বয়সী মার্টি আহতিসারি ও ৮০ বছর বয়সী তার স্ত্রী। সেই অনুষ্ঠানে একজন ব্যক্তি করোনা আক্রান্ত ছিলেন। ধারণা করা হচ্ছে, ওই ব্যক্তির মাধ্যমেই আহতিসারির স্ত্রী করোনায় আক্রান্ত হন। আর মঙ্গলবার মার্টি আহতিসারির শরীরে করোনা ধরা পড়ে।

এর আগে গতকাল ব্রিটেনে রাজকুমার প্রিন্স চার্লসের শরীরে করোনা ধরা পড়ে। করোনার লক্ষণ দেখা দেওয়ার পর করোনা টেস্ট করা হলে তার শরীরে এই মারণ ভাইরাস ধরা পড়ে। করোনা আক্রান্ত সন্দেহে জার্মানির চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল কোয়ারেন্টিনে রয়েছেন। তবে প্রথম পরীক্ষায় তার শরীরে করোনা ধরা পড়েনি। তারপরও তাকে দুই সপ্তাহ নিজের বাড়িতে ঘরোয়া কোয়ারেন্টিন থাকতে হবে। আর নিয়মিত করোনাভাইরাস আক্রান্ত কি-না, তা পরীক্ষা করতে হবে।

এদিকে, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে বিশ্বজুড়ে ২১ হাজার একশ ৯১ জনের মৃত্যু হয়েছে। তার মধ্যে বুধবার ছিল যুক্তরাষ্ট্রের জন্য এখন পর্যন্ত ভয়াবহ দিন। সে দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৬০ হাজার ৪৮ জনে ঠেকেছে। তবে জন হপকিন্স ইউনিভার্সিটির দাবি, নতুন করে ১৬৪ জনের প্রাণহানির পর যুক্তরাষ্ট্রে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে নয়শ ৪৪ জন। তবে তিনশ ৯৪ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। যুক্তরাজ্যে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে চারশ ৫৬ জনে। নতুনভাবে আক্রান্ত হয়েছেন আরো দেড় হাজার মানুষ। স্পেনে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে তিন হাজার চারশ ৩৪ জন।

ইতালিতে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ছয় হাজার আটশ ২০ জনে ঠেকেছে। অন্যদিকে ফ্রান্সে মারা গেছে ১৩৩১ জন। সার্বিয়াতে দুই শিশু আক্রান্ত হয়েছে। স্পেনে গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যুর সংখ্যা চীনকেও ছাড়িয়ে গেছে। স্পেনে এখন পর্যন্ত ৪৭ হাজার ছয়শ ১০ জন আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন। বিশ্ব পরিস্থিতি বিবেচনা করে দেখা গেছে, চীন এবং ইতালির পরেই যুক্তরাষ্ট্রে সবচেয়ে বেশি মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা