kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৭ চৈত্র ১৪২৬। ৩১ মার্চ ২০২০। ৫ শাবান ১৪৪১

লকডাউনের সমস্যা সমাধানের চেষ্টায় মমতা

অনিতা চৌধুরী, কলকাতা প্রতিনিধি   

২৬ মার্চ, ২০২০ ০৪:৫১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



লকডাউনের সমস্যা সমাধানের চেষ্টায় মমতা

জাতীয় লকডাউনের প্রথম দিনে সাংবাদিক সম্মেলন করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং চেষ্টা করলেন লকডাউন সংক্রান্ত সমস্যার সমাধান করার। কয়েকদিন ধরেই রাজ্যের নানা প্রান্ত থেকে খবর এসেছে, হাসপাতাল থেকে ফেরার পরে ডাক্তার ও নার্সদের সামাজিক অসম্মানের মুখে পড়তে হয়েছে। 

কোথাও কোথাও বাড়িও ছেড়ে দিতে হয়েছে। কোথাও আবার কাজ করে বাড়ি ফেরা কোনো জরুরি কর্মীকে নিয়ে গুজব ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছে, করোনায় আক্রান্ত তিনি। ফলে স্থানীয়দের কাছে হেনস্থা হতে হয়েছে অনেককে। 

সামাজিক সংস্পর্শ এড়িয়ে চলতে হবে, কিন্তু তার মানে এই নয়, যে কাউকে একঘরে করতে হবে! বিশেষ করে জরুরি পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত কোনো কর্মীকে যদি হেনস্থা করা হয়, তবে তা মোটেও বরদাস্ত করা হবে না, কড়া বার্তা দিলেন মমতা।

এছাড়াও লকডাউনের জেরে সমস্যা মোকাবেলাতেও পরামর্শ ও নির্দেশ দিলেন তিনি। এর মধ্যে নাগরিকদের জন্য যেমন ছিল পরামর্শ, তেমনই লকডাউনের সময় পুলিশ-প্রশাসনের ভূমিকা নিয়েও ছিল একাধিক নির্দেশ।

মুখ্যমন্ত্রী গতকাল বুধবার বলেন, 'অযথা আতঙ্কিত হয়ে জিনিস মজুদ করবেন না। নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের জোগান থাকছেই। তবে সবাই সোশ্যাল ডিসট্যান্সিং মেনে চলুন। মনে রাখবেন দূরত্ব মেনে চলা মানে মানুষকে আলাদা করা নয়।' বাজারে গিয়ে কীভাবে দূরত্ব বজায় রেখে দাঁড়াতে হবে, তা ছবি এঁকেও বুঝিয়ে দেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। হাউজিং সোসাইটিতে প্রবীণদের দেখভালের জন্য অন্য আবাসিকদের এগিয়ে আসার অনুরোধও করেন তিনি।

পুলিশের উদ্দেশে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, 'অনেক ক্ষেত্রেই খবর পেয়েছি যে, অকারণে জরুরি পরিষেবাকে আটকে দেওয়া হচ্ছে। সবজিওয়ালাকে আটকাবেন না। হোম ডেলিভারি বয়কে আটকাবেন না। জরুরি পরিষেবাকে আকটাবেন না। কৃষককে চাষ করা থেকেও নয়। তবে দেখতে হবে, কোথাও জমায়েত হতে দেওয়া চলবে না।' 

এই বিষয়ে নজর দিতে পুলিশের পদস্থ কর্তাদের পাশাপাশি জেলা প্রশাসক, বিডিও-দেরও ভূমিকা নিতে বলে জানান মুখ্যমন্ত্রী। জরুরি পরিষেবাকে বাধা দিলেও বিপর্যয় মোকাবেলা আইনে ব্যবস্থার হুঁশিয়ারি দেন তিনি। হোম ডেলিভারির জন্য সংস্থাগুলিকে লালবাজার বা পুলিশের থেকে পাস বানিয়ে নেওয়ার পরামর্শ দেন মুখ্যমন্ত্রী। এছাড়াও পুলিশের মধ্যেও সমন্বয় বাড়ানোর কথা বলেন মুখ্যমন্ত্রী।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা