kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৪ চৈত্র ১৪২৬। ৭ এপ্রিল ২০২০। ১২ শাবান ১৪৪১

ট্রাম্পের করোনা যুদ্ধ

করোনা রুখতে বড়রা পাবেন ১ লাখ টাকা, ছোটরা ৪২ হাজার!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৫ মার্চ, ২০২০ ১৬:২৪ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



করোনা রুখতে বড়রা পাবেন ১ লাখ টাকা, ছোটরা ৪২ হাজার!

'লেডিস অ্যান্ড জেন্টলমেন, উই আর ডান। উই হ্যাভ এ ডিল!' বুধবার এমনই ঘোষণা করলেন হোয়াইট হাউসের কর্মী এরিক উয়েল্যান্ড। এদিন মার্কিন সিনেটে দুই দলের সদস্যরাই কোভিড-১৯ নিয়ে জরুরি বৈঠকে বসেন। সেখানে সিদ্ধান্ত হয় ব্যবসা, শ্রমিক ও স্বাস্থ্য ব্যবস্থার ত্রাণের জন্য বিরাট অঙ্কের প্যাকেজ ঘোষণা করা হবে। উভয় দলের সম্মতিতে করোনা মোকাবেলায় ২ ট্রিলিয়ন ডলারের একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয় বলে মার্কিন গণমাধ্যম নিউজ কে ফক্স১৪ এর প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। 

চুক্তিতে বলা হয়েছে, আমেরিকার প্রাপ্তবয়স্কদের প্রত্যেককে ১২০০ ডলার (বাংলাদেশি মুদ্রায় এক লাখ ২ হাজার ৩৩৬ টাকা প্রায়) এবং শিশুদের ৫০০ ডলার (বাংলাদেশি মুদ্রায় ৪২ হাজার ৬০০ টাকা প্রায়) করে দেওয়া হবে। করোনাভাইরাস রুখতে খরচ করা হবে ২ হাজার কোটি ডলার। টাকার অঙ্কে তার মূল্য সাড়ে ১৭ লাখ কোটি টাকারও বেশি।

আমেরিকায় ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে করোনাভাইরাস মহামারী। দেশটিতে এখন পর্যন্ত ৫৪ হাজার ৯৪১ জন মানুষ করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। মৃত্যু হয়েছে ৭৮৪ জনের। আশঙ্কা করা হচ্ছে শীঘ্রই মন্দা শুরু হবে মার্কিন অর্থনীতিতে। সেই মন্দা চলবে কয়েক সপ্তাহ থেকে কয়েক মাস। ধাক্কা সামলাতে মার্কিন সরকার যে প্যাকেজ ঘোষণা করেছে, তাতে অনেকের হাতে সরাসরি অর্থ পৌঁছে দেওয়া হবে। মন্দায় যাঁরা কর্মহীন হবেন, তাঁদের সাহায্য করা হবে। ছোট ব্যবসায়ীরাও সরকারি অনুদান পাবেন। এর জন্য বরাদ্দ করা হয়েছে ৩৬ কোটি ৭০ লক্ষ ডলার। অর্থাৎ ৩ হাজার ১১৩ কোটি টাকার বেশি। এছাড়া বিভিন্ন বৃহৎ শিল্প অল্প সুদে ঋণ পাবে। এর পাশাপাশি এয়ারলাইন্স ও হাসপাতালকেও ত্রাণ দেওয়ার কথা ভাবা হয়েছে।

সিনেটে সংখ্যাগরিষ্ঠ দলের নেতা মিচ ম্যাককোনেল বলেন, 'কয়েকদিন ধরে আলোচনা করার পরে দ্বিপাক্ষিক চুক্তিতে পৌঁছানো সম্ভব হয়েছে। আমরা স্বাস্থ্যের পিছনে বিপুল অর্থ ব্যয় করব। অর্থনীতিতে হাজার কোটি ডলার সরবরাহ করা হবে। আমরা দ্রুত বিভিন্ন আমেরিকান পরিবার, ছোট ব্যবসায়ী ও শিল্পপতিদের সাহায্য করব।'

মঙ্গলবার হোয়াইট হাউস থেকে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন, মানুষ যাতে শীঘ্র কর্মক্ষেত্রে ফিরতে পারে তার ব্যবস্থা করা দরকার। তাঁর বিশ্বাস, এক মাসের মধ্যে আমেরিকার অনেকাংশে স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসবে। ট্রাম্পের কথায়,'আমাদের ফের কাজে যেতে হবে। মানুষ যত তাড়াতাড়ি কাজে যাবে ভাবছে, তার আগেই যেতে হবে।' তিনি চান, ১২ এপ্রিলের মধ্যে আমেরিকায় লকডাউন তুলে দিতে।

এর মধ্যে আমেরিকা দাবি করেছে করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে ইবোলা ভাইরাস প্রতিরোধী ড্রাগ 'রেমডেসিভির' বড় হাতিয়ার হতে পারে। ইবোলা আক্রান্ত রোগীদের উপরে এই ড্রাগ তেমন প্রভাব ফেলতে পারেনি। কিন্তু বিজ্ঞানীদের দাবি, করোনার সংক্রমণ রুখার মতো ক্ষমতা নাকি আছে এই ড্রাগের। তাতে সম্মতি জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাও (ডব্লিউএইচও)।

রেমডেসিভির ড্রাগের আবিষ্কারক আমেরিকার জিলেড সায়েন্সেস। ২০১০ সালেই এই ড্রাগ তৈরি হয়। জিলেড সায়েন্সেস তাদের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে জানিয়েছে, সার্স ও মার্স ভাইরাসের সংক্রমণ রুখতে কিছুটা হলেও কাজে এসেছিল এই ড্রাগ। আর সার্স-কভ-২ যেহেতু সার্স ও মার্সের মতোই করোনাভাইরাস পরিবারের সদস্য, কাজেই এই সংক্রমণ ঠেকাতেও রেমডেসিভির কাজে আসবে আশা করাই যায়। এরই মধ্যেই চারজন করোনা আক্রান্ত রোগীর উপর এই ড্রাগের প্রভাব কার্যকরী হয়েছে বলে দাবি করেছেন জিলেড সায়েন্সেসের বিজ্ঞানীরা। যদিও এখনও গবেষণার স্তরেই রাখা হয়েছে রেমডেসিভিরকে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা