kalerkantho

বৃহস্পতিবার  । ১৯ চৈত্র ১৪২৬। ২ এপ্রিল ২০২০। ৭ শাবান ১৪৪১

‘কাশ্মীরের মতো করেই ঠাণ্ডা করা হবে দিল্লিকে!’

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ২২:২৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



‘কাশ্মীরের মতো করেই ঠাণ্ডা করা হবে দিল্লিকে!’

তিনি মানেই বিতর্ক। তিনি মানেই এমন কথা বলবেন, যাতে ইন্ধন লাগবে অশান্তিতে। দ্বিতীয় বার সভাপতি হয়ে যেন আরও বিতর্কিত হয়ে উঠেছেন বিজেপির পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। সিএএ বিরোধীদের গুলি করে মারার হুমকি দেওয়া থেকে যে নতুন দিলীপ ঘোষকে দেখা যাচ্ছে, তাতে সংযোজন বৃহস্পতিবারের মন্তব্যও। এ দিন দিল্লির হিংসা নিয়ে ফের মুখ খুললেন দিলীপ ঘোষ। আর যা বললেন, তাতেই শুরু হয়েছে বিতর্ক।

বৃহস্পতিবার দিলীপ ঘোষ বলেন, ‘কাশ্মীরে উপদ্রবকারীদের সরকার যেভাবা ঠাণ্ডা করেছিল, দিল্লিতেও সেই রাস্তাই নেওয়া হবে সবাইকে ঠাণ্ডা করতে। আমাদের সরকারই তা করবে।’ তাঁর প্রশ্ন, ‘জামিয়াতে গন্ডগোলের সময় পুলিশকে বাধা দিয়েছিল, এখন কেন ওরা পুলিশকে খোঁজাখুঁজি করছে?’

যদিও দিল্লি হিংসা নিয়ে এবারই প্রথম নয়। মঙ্গলবার এ প্রসঙ্গে তিনি বলেছিলেন, ‘যারা পুলিশকে পাথর মারছে, গুলি করছে তাদের কি ডেকে চা খাওয়ানো উচিত ছিল? এই ধরণের দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে আরও কড়া আচরণ করা উচিত।’ এখানেই থামেননি তিনি। তাঁর সংযোজন, ‘জামিয়াতে পুলিশ ঢুকে যখন দশজনকে গ্রেপ্তার করেছিল, তারা কেউ ছাত্র ছিল না। অথচ গোটা দেশে তুলকালাম হয়ে গেল। আর আজকে যখন তারাই আগুন জ্বালাচ্ছেন, তখন বিরোধী নেতারা দাঁড়িয়ে সেলফি তুলছেন, বলা হচ্ছে প্রশাসন কোথায়? সরকার অনেক সহ্য করেছে, আর নয়।’

তবে দিল্লি নিয়ে আক্রমণ করতে গিয়ে কংগ্রেস নেতা অধীর চৌধুরীকেও আক্রমণ করেছিলেন তিনি। বলেন, ‘অধীরবাবু চাকরি করেন সোনিয়া গান্ধীর অধীনে। তিনি একজন কর্মচারী। তিনি ভাবেন, এ দেশের মালিক গান্ধী পরিবার। সেটা হচ্ছে না। এর আগে যতবার আমেরিকার রাষ্ট্রপ্রধান এসেছেন, পাকিস্তান হয়ে এসেছেন। মোদী সরকার সেই ট্র্যাডিশন ভেঙে দিয়েছে। এর জন্যই সকলের খুশি হওয়া উচিত।’

এদিন অবশ্য দিল্লির পরিস্থিতি নিয়ে বলতে গিয়ে কাশ্মীর প্রসঙ্গ টেনে এনেছেন দিলীপ ঘোষ। ৩৭০ ধারা বিলোপের পর এখনও স্বাভাবিক হয়নি কাশ্মীর। যদিও বিজেপির রাজ্য সভাপতি বলছেন, ‘আমাদের সরকার একদম ঠিকঠাক ব্যবস্থা নিয়েছে। কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা বিলোপের পর উপদ্রবকারীদের ঠান্ডা করেছিল। এবার দিল্লিতেও সবাইকে ঠান্ডা করবে সরকার। কোনও চিন্তা করতে হবে না। ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে শান্ত হয়ে যাবে দিল্লি।’

সূত্র: এই সময়

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা