kalerkantho

বুধবার । ৬ ফাল্গুন ১৪২৬ । ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০। ২৪ জমাদিউস সানি ১৪৪১

'কুকুর শব্দে আপত্তি থাকলে বুদ্ধিজীবীদের বাঁদর বলুন,' বিজেপি নেতার মন্তব্যে তোলপাড়

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২১ জানুয়ারি, ২০২০ ১১:৩৪ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



'কুকুর শব্দে আপত্তি থাকলে বুদ্ধিজীবীদের বাঁদর বলুন,' বিজেপি নেতার মন্তব্যে তোলপাড়

সায়ন্তন বসু

বুদ্ধিজীবীদের ক্ষেত্রে 'কুকুর' শব্দটি প্রয়োগে আপত্তি থাকলে তাঁদের 'বাঁদর' বলুন। বিজেপি নেতা সায়ন্তন বসু এ কথা বলেছেন। একথা বলেই বিতর্কে জড়িয়েছেন তিনি। এর আগে বিজেপি সাংসদ সৌমিত্র খাঁ বলেছেন, যারা নিজেদের বুদ্ধিজীবী বলে রাস্তায় নামছেন, তাঁরা আদতে বুদ্ধিজীবী নন, তারা শয়তান। এই পরিস্থিতিতে এবার দলীয় সাংসদের পাশে দাঁড়ালেন বিজেপি নেতা সায়ন্তন বসু। সোমবার তিনি বলেন,বিশিষ্টজনদের ক্ষেত্রে 'কুকুর' শব্দ প্রয়োগে যদি আপত্তি থাকে, কুকথা বলে মনে হয় সেক্ষেত্রে 'বাঁদর' বলতেই পারেন।

নাগরিকত্ব আইনের বিরোধিতায় সরব পুরো ভারত। ক্ষোভে ফুঁসছে দেশবাসী। পথে নেমেছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শান্তিপূর্ণ পথে আন্দোলনের ডাক দিয়েছেন তিনি। একইভাবে আইনের বিরোধিতায় পথে নেমেছেন বুদ্ধিজীবীরাও। সিএএ ও এনআরসির প্রতিবাদে সুর চড়িয়েছেন তাঁরা। আর সেই কারণেই বারবার বিজেপি নেতৃত্বের দ্বারা বিদ্ধ হচ্ছেন বিশিষ্টজনেরা। 

সৌমিত্র খাঁ বলেন, যারা নিজেদের বুদ্ধিজীবী বলে রাস্তায় নামছেন, তাঁরা আদতে বুদ্ধিজীবী নন। তাঁদের বলছি, আপনারা শয়তান। যাঁরা শিক্ষক, তাঁরাই আদতে বুদ্ধিজীবী।

বুদ্ধিজীবীরা রাজ্য সরকারের থেকে নিয়মিত টাকা পান বলেই তৃণমূলের সমর্থন করে, এমন বিস্ফোরক অভিযোগও করেন তিনি। 

তিনি বলেন, যারা পার্ক স্ট্রিট কাণ্ডে চুপ থাকেন, তাঁরা তৃণমূলের কুকুর ছাড়া আর কিছু নয়।

এদিকে, সায়ন্তন বসুর মন্তব্যেই ফের শুরু হয়েছে বিতর্ক। একের পর এক বিজেপি নেতৃত্বের আক্রমণে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেন অভিনেতা সুজন মুখোপাধ্যায়। সংস্কৃতিমনস্ক ব্যক্তি হিসেবে গোটা ঘটনাটিকে দুঃখজনক বলেই মন্তব্য করেন তিনি। 

এই রাজনীতির শেষ কোথায়, প্রশ্নও তোলেন। সব মিলিয়ে দিলীপ-সৌমিত্র থেকে সায়ন্তন বিজেপি নেতৃত্বের নজিরবিহীন আক্রমণে মর্মাহত অভিনেতা।  

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা