kalerkantho

মঙ্গলবার । ৫ ফাল্গুন ১৪২৬ । ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০। ২৩ জমাদিউস সানি ১৪৪১

মার্কিন ঘাঁটিতে হামলা না চালালে পিছিয়ে পড়ত ইরান

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২০ জানুয়ারি, ২০২০ ০৯:২১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মার্কিন ঘাঁটিতে হামলা না চালালে পিছিয়ে পড়ত ইরান

ট্রাম্প নিজের শক্তিম্ততা প্রদর্শনের উদ্দেশ্যে জেনারেল সোলাইমানির ওপর ড্রোন হামলা চালালেও ইরান পাল্টা হামলা চালিয়ে তার জবাবে দেয়

সম্প্রতি মার্কিন সেনারা ইরানের কুদস ফোর্সের সাবেক কমান্ডার লে. জেনারেল কাসেম সোলাইমানিকে হত্যা করে। এ ঘটনার পর ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় আন্তর্জাতিক অঙ্গনে যে কূটনৈতিক তৎপরতা চালায় তার ফলে মার্কিন সামরিক ঘাঁটিতে ইরানি ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপের ক্ষেত্র তৈরি হয়।

ইরানের পার্লামেন্ট স্পিকারের বিশেষ সহকারী ও সাবেক উপ পররাষ্ট্রমন্ত্রী হোসেইন আমির আব্দুল্লাহিয়ান এ কথা বলেছেন। 

গতকাল  তেহরানে এক সম্মেলনে বক্তব্য রাখতে গিয়ে এ মন্তব্য করেন তিনি।

কাসেম সোলাইমানির শাহাদাতের সম্ভাব্য রাজনৈতিক ও কৌশলগত পরিণতি নিয়ে আলোচনা করার জন্য ওই সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

আব্দুল্লাহিয়ান বলেন, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও তার আশপাশের ব্যক্তিদের শক্তিমত্তা প্রদর্শনের উদ্দেশে জেনারেল সোলাইমানিকে হত্যা করা হয়। ইরানের পক্ষ থেকে যদি পাল্টা শক্তিমত্তা প্রদর্শন করে তার জবাব দেয়া না হতো তাহলে মার্কিনীরা শক্তির ভারসাম্যে একধাপ এগিয়ে যেত।

জেনারেল সোলাইমানির শাহাদাতের আগে ও পরে পশ্চিম এশিয়ার পরিস্থিতির গুণগত পার্থক্য তৈরি হয়েছে বলে মন্তব্য করেন ইরানের এই শীর্ষস্থানীয় কূটনীতিক।

তিনি বলেন, ইরানের এই জেনারেলকে হত্যা করার পর পশ্চিম এশিয়ায় মার্কিনীদের নিরাপত্তা বলে আর কিছু নেই এবং তারা আগের মতো আর স্বস্তিতে তৎপরতা চালাতে পারছে না।

জেনারেল সোলাইমানির জানাযার নামাজে হামাস নেতা ইসমাইল হানিয়াসহ শীর্ষস্থানীয় ফিলিস্তিনি নেতাদের উপস্থিতির কথা স্মরণ করেন আব্দুল্লাহিয়ান।

তিনি বলেন, জেনারেল সোলাইমানি ফিলিস্তিনিদের প্রতিরোধ আন্দোলনের পৃষ্ঠপোষক ছিলেন বলেই ফিলিস্তিনি সংগ্রামী নেতারা কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করতে তেহরানে এসেছিলেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা