kalerkantho

সোমবার। ২৭ জানুয়ারি ২০২০। ১৩ মাঘ ১৪২৬। ৩০ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

'রেপ ইন ইন্ডিয়া' মন্তব্যে রাহুলকে ক্ষমা চাইতে হবে, দাবি গেরুয়া শিবিরের

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৩ ডিসেম্বর, ২০১৯ ১৬:১০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



'রেপ ইন ইন্ডিয়া' মন্তব্যে রাহুলকে ক্ষমা চাইতে হবে, দাবি গেরুয়া শিবিরের

ধর্ষণ নিয়ে রাহুল গান্ধীর বিতর্কিত মন্তব্যের জেরে শুক্রবার উত্তপ্ত হয়ে ওঠে ভারতের সংসদ। লোকসভায় বিক্ষোভ দেখান বিজেপি সাংসদরা। অবিলম্বে রাহুল গান্ধীকে ক্ষমা চাইতে হবে বলে দাবি জানান স্মৃতি ইরানি, লকেট চট্টোপাধ্যায়সহ গেরুয়া শিবিরের সাংসদরা। বিজেপির বিক্ষোভের জেরে ব্যাপক হট্টগোল হয় এদিন লোকসভায়।

ঘটনার সূত্রপাত বৃহস্পতিবার। ঝাড়খণ্ডে নির্বাচনী প্রচারে গিয়ে রাহুল গান্ধী মন্তব্য করেন, ‘মেক ইন ইন্ডিয়া’র কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। কিন্তু এখন সব জায়গায় ‘রেপ ইন ইন্ডিয়া’ হচ্ছে। উত্তরপ্রদেশে মোদিরই বিধায়ক ধর্ষণ করেছে এক মহিলাকে। নির্যাতিতাকে গাড়ি দুর্ঘটনায় খুনের চেষ্টা করা হয়। কিন্তু তখন মোদি একটি শব্দও খরচ করেননি।’ 

রাহুলের আরো অভিযোগ, ‘বেটি বাঁচাও, বেটি পড়াও’ বার্তা দিলেও কাদের হাত থেকে মেয়েদের বাঁচা উচিত তা মোদি বলেননি। বিজেপি বিধায়কের হাত থেকে মেয়েদের বাঁচা উচিত বলে মনে করেন কংগ্রেস সাংসদ।

রাহুলের এই বিতর্কিত মন্তব্য ঘিরেই উত্তাল হয় লোকসভার অধিবেশন। কেন্দ্রীয় মন্ত্রী স্মৃতি ইরানি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘দেশের মহিলাদের ধর্ষণ করার কথা কোনো নেতা প্রকাশ্যে বলছেন, দেশের ইতিহাসে প্রথম। ধর্ষণের মতো পাশবিক বিষয় নিয়ে রাজনীতি করছেন রাহুল।’ অবিলম্বে রাহুলকে ক্ষমা চাইতে হবে বলে দাবি তার। এর পাশাপাশি অধ্যক্ষের কাছে কড়া শাস্তির দাবি জানিয়েছেন আমেঠির সাংসদ। 

হুগলির বিজেপি সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায়ও আক্রমণ করেছেন রাহুলকে। তিনি বলেন, ‘মেক ইন ইন্ডিয়ার মাধ্যমে বিশ্বের সব মানুষকে ভারতে আসার বার্তা দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী আর রাহুল গান্ধী বলছেন, ‘রেপ ইন ইন্ডিয়া’। সবাইকে ধর্ষণের জন্য আমন্ত্রণ জানাচ্ছেন। দেশের মহিলাদের জন্য এ অপমানজনক। ধর্ষণের যন্ত্রণা তিনি বুঝবেন কী করে নিরাপত্তা ছাড়া বাইরে বের হন না যখন।’ কংগ্রেস গোটা দেশকেই ধর্ষণ করেছে বলে রাহুলকে কটাক্ষ করেন লকেট।

এদিকে, নিজের মন্তব্যের জন্য ক্ষমা চাইবেন না বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন রাহুল গান্ধী। নিজের বক্তব্যের ব্যাখ্যা দিয়ে তিনি বলেছেন, ‘আমি ক্ষমা চাইব না। আমি বলতে চেয়েছি, প্রধানমন্ত্রী সবসময় মেক ইন ইন্ডিয়ার কথা বলেন। কিন্তু এখন আমরা খবরের কাগজে শুধু ধর্ষণের খবরই দেখতে পাই। সেই কারণেই রেপ ইন ইন্ডিয়া।’ এরপর তিনি অভিযোগ করেছেন, মোদি এবং বিজেপি নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলের প্রতিবাদে উত্তর-পূর্ব ভারতে অশান্তির খবর থেকে দেশের নজর ঘোরাতেই এসব করছে। রাহুল একটি পুরনো ভিডিও টুইট করেছেন যেখানে নরেন্দ্র মোদি দিল্লিকে দেশের ধর্ষণের রাজধানী হিসাবে কটাক্ষ করছেন।

সূত্র: সংবাদ প্রতিদিন

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা