kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৮ জানুয়ারি ২০২০। ১৪ মাঘ ১৪২৬। ২ জমাদিউস সানি ১৪৪১     

বাবরির রায় পুনর্বিবেচনায় ১০ আবেদন, কাল শুনানি পাঁচ বিচারপতির চেম্বারে

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১১ ডিসেম্বর, ২০১৯ ২২:৪০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বাবরির রায় পুনর্বিবেচনায় ১০ আবেদন, কাল শুনানি পাঁচ বিচারপতির চেম্বারে

বাবরি মসজিদ মামলার রায় পুনর্বিবেচনার আবেদন শুনতে রাজি হয়েছে ভারতের সুপ্রিম কোর্ট। তবে সরাসরি আদালতের পদ্ধতি মেনে নয়। বিচারপতিদের চেম্বারে হবে শুনানি। কাল বৃহস্পতিবার থেকেই শীর্ষ আদালতের পাঁচ বিচারপতির বেঞ্চ শুনবে এই মামলা। গত ৯ নভেম্বর বাবরি মসজিদ মামলার ঐতিহাসিক রায়ের পর এ সংক্রান্ত মোট ১০টি মামলা দায়ের হয়েছে ভারতের শীর্ষ আদালতে।

ভারতের সুপ্রিম কোর্টের সাবেক প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ-এর নেতৃত্বে পাঁচ সদস্যের সাংবিধানিক বেঞ্চ গত ৯ নভেম্বর ঐতিহাসিক বাবরি মসজিদ মামলার রায় দেয়। অযোধ্যার মূল বিতর্কিত ২.৭৭ একর জমি রামলালাকে দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে শীর্ষ আদালত। মসজিদ নির্মাণের জন্য অযোধ্যাতেই পাঁচ একর জমি দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়। বিতর্কিত জমিতে রামমন্দির তৈরিতে বাধা নেই বলেও জানিয়ে দেয় প্রধান বিচারপতির বেঞ্চ।

সেই রায় পুনর্বিবেচনার আবেদন জানিয়ে শীর্ষ আদালতেরই দ্বারস্থ হয়েছে অল ইন্ডিয়া পার্সোনাল ল বোর্ড। তাদের যুক্তি, বাবরি মসজিদে যে রামলালার মূর্তি জোর করে বসানো হয়েছিল, সুপ্রিম কোর্ট সেটা মেনে নিয়েছে। হিন্দু শাস্ত্র মতে ওই মূর্তির প্রাণপ্রতিষ্ঠা হয়নি। 

তাই রামলালা জমির মালিকানা দাবি করতে পারে না বলেও যুক্তি ছিল ল বোর্ডের। পাশাপাশি, মুসলিমদের পক্ষে আরো কয়েকটি মামলা দায়ের হয়েছে পুনর্বিবেচনার আর্জিতে। তাদের এক পক্ষের দাবি, বেআইনিভাবে ধ্বংস করা, ফৌজদারি অনুপ্রবেশ, আইনভঙ্গ এবং মসজিদের ক্ষতিসাধন ও ধ্বংসের কথা উল্লেখ করা হয়েছে রায়ে। আবার অন্য একটি পক্ষের বক্তব্য, তারা শান্তি ভঙ্গ করতে চান না। তারা সব সময়ই শান্তিরক্ষা করেছেন। কিন্তু সব সময়ই অশান্তি ও অবিচারের শিকার হয়েছেন। তাই সুবিচার পেতেই তারা পুনর্বিবেচনার আবেদন নিয়ে আদালতের দ্বারস্থ হয়েছেন।

এর পাশাপাশি নির্মোহী আখড়াও একটি মামলা দায়ের করেছে। মূল মামলাতেও অন্যতম পক্ষ ছিল তারা। কিভাবে রামমন্দির তৈরি হবে বা মুসলিমদের জমি দেওয়া হবে, তা নিয়ে সরকারকে একটি ট্রাস্ট গঠনের নির্দেশ দিয়েছিল সুপ্রিম কোর্ট। কিন্তু সেই ট্রাস্টে নির্মোহী আখড়ার কত জন থাকবে, সে বিষয়ে তাদের কাছে কোনো স্পষ্ট ধারণা নেই। যদিও সুপ্রিম কোর্ট রায়ে বলেছিল, নির্মোহী আখড়ার ‘পর্যাপ্ত প্রতিনিধি’ রাখতে হবে ট্রাস্টে। কিন্তু সেই ‘পর্যাপ্ত’ সংখ্যার অর্থই স্পষ্ট করতে চান আখড়ার প্রতিনিধিরা।

এ রকমই মোট ১০টি মামলা একত্রিত করে বৃহস্পতিবার থেকে শুনানি শুরু করছে শীর্ষ আদালতের পাঁচ সদস্যের বেঞ্চ।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা