kalerkantho

রবিবার । ১৯ জানুয়ারি ২০২০। ৫ মাঘ ১৪২৬। ২২ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

জম্মু-কাশ্মীরে দমন-পীড়ন বন্ধে যুক্তরাষ্ট্রের সংসদে প্রস্তাব

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৮ ডিসেম্বর, ২০১৯ ২১:০৯ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



জম্মু-কাশ্মীরে দমন-পীড়ন বন্ধে যুক্তরাষ্ট্রের সংসদে প্রস্তাব

প্রমীলা জয়পাল নামে ভারতীয় বংশোদ্ভূত মার্কিন রাজনীতিবিদের উদ্যোগে কাশ্মীর ইস্যুতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সংসদ কংগ্রেসের প্রতিনিধি পরিষদে একটি প্রস্তাব উঠেছে। এতে ভারতীয় নিরাপত্তা বাহীনির হাতে আটক জম্মু-কাশ্মীরের  রাজনৈতিক বন্দিদের মুক্তি, যোগাযোগ ব্যবস্থা স্বাভাবিক ও দমন-পীড়ন বন্ধের দাবি জানানো হয়েছে। প্রস্তাবে কাশ্মীর পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ জানানো হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের সরকারী দল রিপাবলিকানের প্রতিনিধি পরিষদের সদস্য স্টিভ ওয়াটকিন্স ও বিরোধী দল ডেমোক্র্যাট এর সদস্য প্রমীলা জয়পাল প্রস্তাবটি পেশ করেন।

ভারতীয় বংশোদ্ভূত মার্কিন নাগরিক প্রমীলা জয়পালের ওই প্রস্তাবে শিগগিরই জম্মু-কাশ্মীরের আটক রাজনৈতিক বন্দিদের মুক্তি দিতে নরেন্দ্র মোদি সরকারের প্রতি আহ্বান জানানো হয়। মোবাইল, ইন্টারনেট সংযোগ চালু-সহ যোগাযোগ ব্যবস্থা স্বাভাবিক ও কাশ্মীরের ধর্মীয় স্বাধীনতা রক্ষার আহ্বানও জানিয়েছেন মার্কিন প্রতিনিধি পরিষদের সদস্যরা।

প্রস্তাবে বলা হয়েছে, ‘কাশ্মীরে যে সব রাজনৈতিক নেতাকে আটক করা হয়েছে, তাদের দ্রুত মুক্তির ব্যবস্থা করতে হবে। বন্দিদের বিনাশর্তে মুক্তি নিশ্চিত করতে হবে। শর্ত হিসাবে কোনও ধরনের রাজনৈতিক কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ না করা বা ভাষণ না দেয়ার বন্ডে সই করানোও বন্ধ করতে হবে।

প্রতিনিধি পরিষদের ওই প্রস্তাবে বলা হয়েছে, আন্তর্জাতিক বিভিন্ন মানবাধিকার সংস্থার পর্যবেক্ষক এবং দেশি-বিদেশি সাংবাদিকদের জম্মু ও কাশ্মীরসহ ভারতে স্বাধীনভাবে যাতায়াতের অনুমতি দিতে হবে। ধর্মীয় সংঘাত কিংবা সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ওপর আঘাত বন্ধ করতে হবে।

গত কয়েক মাসে মার্কিন কংগ্রেসের দুই দল ডেমোক্র্যাট ও রিপাবলিকানের সদস্যরা কাশ্মীরের মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে বারবার উদ্বেগ প্রকাশ করে আসছেন। গত অক্টোবরে ডেমোক্র্যাট দলীয় সদস্য ক্রিস ভ্যান যুক্তরাষ্ট্রের পাঠানো একটি প্রতিনিধিদলের সঙ্গে কাশ্মীর উপত্যকা সফরে গিয়ে ভারত সরকারের বাধার মুখে পড়েছিলেন বলে অভিযোগে করেন।

এরপর বিচ্ছিন্ন জম্মু-কাশ্মীর পরিস্থিতি নিয়ে মার্কিন কংগ্রেসে দু’বার আলোচনা হয়। তবে মার্কিন প্রতিনিধি পরিষদের এই আলোচনায় কড়া প্রতিক্রিয়া দেখায় ভারতের ক্ষমতাসীন নরেন্দ্র মোদি নেতৃত্বাধীন বিজেপি সরকার।

দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র রাবিশ কুমার বলেন, ‘জম্মু ও কাশ্মীরের মানুষের জীবন রক্ষায়, সেখানকার শান্তি-সুরক্ষা বজায় রাখতে যে ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে, তা নিয়ে মার্কিন কংগ্রেসের কয়েকজন সদস্য প্রশ্ন তুলেছেন। তবে এটি সত্যিই দুঃখজনক।’

গত ৫ আগস্ট জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা সংক্রান্ত ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিল করে ভারতের ক্ষমতাসীন বিজেপি সরকার। বিশেষ এই মর্যাদা বাতিলের পর কার্যত পুরো বিশ্ব থেকে কাশ্মীরকে বিচ্ছিন্ন করে রাখা হয়। কাশ্মীরের মোবাইল, ইন্টারনেট সংযোগ বিচ্ছিন্ন, রাজনৈতিক নেতাদের বন্দির পাশাপাশি কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয় স্থানীয় প্রশাসন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা