kalerkantho

রবিবার । ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১০ রবিউস সানি ১৪৪১     

ধর্ষণের রোমহর্ষক বর্ণনা

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৩ ডিসেম্বর, ২০১৯ ১৬:৫৪ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ধর্ষণের রোমহর্ষক বর্ণনা

ভারতের উত্তরপ্রদেশে ঘুমন্ত দম্পতিকে খুনের পর মৃত গৃহবধূকে তিনঘণ্টা ধরে ধর্ষণ করার অভিযোগ উঠেছে। শুধু তাই নয়, ওই দম্পতির ১০ বছরের নাবালিকা মেয়েও ছাড় পায়নি ধর্ষকের হাত থেকে। ঘটনাটি ঘটেছে উত্তরপ্রদেশের আজমগড়ের মুবারকপুর এলাকা। তদন্তে নেমে ধর্ষক নাসিরুদ্দিন খানকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

ভারতের স্থানীয় সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা যায়, সপ্তাহখানেক আগে আজমগড়ের মুবারকপুর এলাকার একটি বাড়ি থেকে এক দম্পতি ও তাদের চারমাসের শিশুপুত্রের নগ্ন মৃতদেহ উদ্ধার হয়। গুরুতর জখম ছিল দম্পতির ১০ বছরের নাবালিকা মেয়ে ও তার চার বছরের ভাই। কোনো রকমে বাড়ি থেকে বের হয়ে বিষয়টি সম্পর্কে প্রতিবেশীকে জানায় তারা। পরে খবর পেয়ে পুলিশ এসে মৃতদেহগুলো উদ্ধার করে। এমন সময় মৃত গৃহবধূর গোপনাঙ্গ দিয়ে রক্ত পড়ছিল। রক্তাক্ত ছিল তার ১০ বছরের মেয়ের শরীরও। বিষয়টি দেখে পুলিশের প্রাথমিকভাবে সন্দেহ হয় তাদের ধর্ষণ করা হয়েছে। তদন্তে নেমে ৩৪ বছরের নাসিরুদ্দিনের সন্ধান পান তারা। এরপর সোমবার তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

আজমগড়ের পুলিশ সুপার ত্রিবেনি সিং বলেন, খুনের পর ৩০ বছর বয়সী ওই গৃহবধূকে তিন ঘণ্টা ধরে ধর্ষণ করে ৩৮ বছরের নাসিরুদ্দিন। এমনকী সেই ঘটনার ভিডিও তুলে রাখে। পরে নিজের শ্যালিকা সেই ভিডিওটি দেখায়। যা দেখে চমকে ওঠেন ওই তরুণী। তারপর এক ফাঁকে সোজা পুলিশের কাছে গিয়ে সব ঘটনার কথা খুলে বলে। 

সুপার ত্রিবেনি সিং জানান, নাসিরুদ্দিন তার শ্যালিকাকে জানিয়েছে গত ২৪ নভেম্বর রাতে ওই দম্পতির বাড়িতে ঢুকে পড়ে। তারপর ছুরি ও পাথর দিয়ে ওই ঘুমন্ত দম্পতি ও তাদের চার মাসের সন্তানকে খুন করে। এর আগে মাদক নিয়েছিল ও ধর্ষণের সময় কন্ডোম ব্যবহার করেছিল। আর বাড়ি থেকে বের হওয়ার আগে ওই দম্পতির ১০ বছরের নাবালিকা মেয়েকেও ধর্ষণ করে। তারপর তার চার বছরের ভাইকে বেধড়ক মারধর করে পালিয়ে যায়। যদিও পরে অভিযুক্তের শ্যালিকার অভিযোগের ভিত্তিতে নাসিরুদ্দিনকে গ্রেপ্তার করা হয়। 

পুলিশের জেরায় নাসিরুদ্দিন জানিয়েছে, এর আগে হরিয়ানা, দিল্লি ও পশ্চিমবঙ্গে এই ধরনের ঘটনা ঘটিয়েছে। কিন্তু, কেউ তাকে ধরতে পারেনি।

সূত্র: সংবাদ প্রতিদিন।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা