kalerkantho

শনিবার । ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৯ রবিউস সানি ১৪৪১     

আনন্দবাজার-এর বিশ্লেষণ

মুসলিমরা ক্ষমতাহীন হয়ে পড়ছে ভারতে?

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৩ নভেম্বর, ২০১৯ ১৫:১৮ | পড়া যাবে ৬ মিনিটে



মুসলিমরা ক্ষমতাহীন হয়ে পড়ছে ভারতে?

অযোধ্যা জমি-বিবাদ মামলার রায় প্রকাশের পর বিশ্ব হিন্দু পরিষদের সমর্থকদের উল্লাস

ভারতে সংখ্যালঘুরা বিশেষত মুসলিমরা ক্রমশ রাজনৈতিকভাবে ক্ষমতাহীন হয়ে পড়ছে। এমনটাই মনে করছেন অনেক বিশ্লেষক। সম্প্রতি ইসলাম ধর্মের নবী হজরত মোহাম্মদ (সা.) এর জন্মদিন ছিল। অন্যবছর হলে বিরিয়ানি রান্না হতো অযোধ্যার মুসলিম মহল্লার সকলের জন্য। শোভাযাত্রাও বের হতো। কাওয়ালির আসর বসত। হজরত মোহাম্মদের (সা.) এর জন্মদিন বলে কথা। এ বছর মিলাদ-উন-নবী তে অযোধ্যার মুসলিম মহল্লায় এসব কিছুই হয়নি। কোনও গন্ডগোলও হয়নি। সুপ্রিম কোর্টের বাবরি মসজিদ সংক্রান্ত রায়ের পরের দিনটা শান্তিতেই কেটেছে এখানে। কাশ্মীরে ৫ আগস্ট ৩৭০ রদের ঠিক এক সপ্তাহ পরেই ছিল ঈদ। কার্ফু শিথিল হয়। ঈদগাহ খুলে দেওয়া হয়। নামাজের পর মিষ্টি বিলি করে পুলিশ। ইতস্তত বিক্ষোভ হলেও একটি বুলেটও খরচ করতে হয়নি। শান্তিতেই কেটেছিল কাশ্মীরের ঈদ। ভারতের রাজনীতির গতিপ্রকৃতি এবং সামাজিক পরিবেশ দেখে মনে প্রশ্ন ওঠে, ধর্মনিরপেক্ষ গণতান্ত্রিক ভারতে একটা 'পলিটিকাল ডিসএমপাওয়ারমেন্ট' কি দেশের সংখ্যালঘু মানুষকে ক্রমশ কোণঠাসা করে ফেলছে? 

প্রশ্ন উঠেছে, কাশ্মীর থেকে অযোধ্যা, তিন তালাক বিল থেকে এনআরসি ও নাগরিকত্ব বিলের চাপে সংখ্যালঘু মুসলিমরা ক্রমশই নিজেদের খোলসের মধ্যে ঢুকিয়ে ফেলছেন? যাতে অশান্তি তৈরির অভিযোগের আঙুল তাঁদের দিকে না ওঠে। বিষণ্ণতার লক্ষণ যেন বড় স্পষ্ট। অনেকেই বলেছেন, কাশ্মীর-অযোধ্যার মানুষ এক সময় সবই মেনে নেবেন। পেটের তাগিদ, সময়ের প্রলেপ, সব ভুলিয়ে দেবে। সে কেমন মেনে নেওয়া? কেমন ভুলে যাওয়া? সংবিধান কি এই ভারতের কথা বলেছিল?

বিজেপি ২০১৪-র লোকসভা নির্বাচনে  বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়ে ক্ষমতায় আসে। লোকসভায় আসেন মাত্র ২৩ জন মুসলিম সাংসদ-একজনও বিজেপির নন। ১৯৫২ সালের পর মুসলিমদের প্রতিনিধিত্ব কখনও এত কম হয়নি। ২০১৯-এর লোকসভা ভোটে সংখ্যাটা হয়েছে ২৭। বিজেপি থেকে এবারও মুসলিম সাংসদ নেই। জম্মু-কাশ্মীর, উত্তরপ্রদেশ, বাংলা, বিহার, আসাম, কেরালা, তেলঙ্গানা, মহারাষ্ট্র, পাঞ্জাব, লাক্ষাদ্বীপের মতো ১০টি রাজ্য-কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল বাদ দিলে বাকি দেশের লোকসভায় কোনও মুসলিম জনপ্রতিনিধি নেই।

সাংসদ সংখ্যা একটা দিক মাত্র। সংখ্যালঘুর রাজনৈতিক ক্ষমতা কমে যাওয়ার আর একটি নমুনা হলো, এই লোকসভাতেই তিন তালাক নিষিদ্ধকরণ বিল পাশ হয়েছে। ঠিক হয়েছে, স্ত্রীকে ত্যাগ করার অপরাধে মুসলিম পুরুষকে জেলে পাঠানো যাবে।

এবার কাশ্মীরের উদাহরণে ফিরে যাওয়া যাক। ২০১৪-র শীতে জম্মু-কাশ্মীর বিধানসভা নির্বাচন হলো। কাশ্মীর উপত্যকার ৪৬টি বিধানসভা আসনের একটিও বিজেপি জেতেনি। পিডিপি-বিজেপি জোট গড়ে সরকার হলো। টিকল না। রাষ্ট্রপতি শাসন জারি হলো। ২০১৯-এর লোকসভা ভোটের ফলের নিরিখে কাশ্মীর উপত্যকায় বিজেপি ৪৬টির মধ্যে মাত্র একটি বিধানসভা কেন্দ্রে এগিয়ে ছিল। রায় দ্ব্যর্থহীন। কাশ্মীর উপত্যকার মানুষ বিজেপিকে খারিজ করেছে। এখন কাশ্মীরের মানুষের মনে প্রশ্ন উঠছে, সেই বিজেপি কাশ্মীর উপত্যকা থেকে ৩৭০ রদের নৈতিক অধিকার কোথায় পেয়েছে? কাশ্মীরের মানুষের সঙ্গে আলোচনা ছাড়াই রাজ্য ভেঙে দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল তৈরির ছাড়পত্র কি কাশ্মীরের ভোটাররা বিজেপিকে দিয়েছিল? তাহলে ভোট, গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় অংশগ্রহণের কী অর্থ? এটা কি রাজনৈতিক ক্ষমতার বিলোপ নয়?

এখনও অবধি যা হয়েছে, তা হয়তো ভবিষ্যৎ সম্পর্কে উদ্বিগ্ন করে তুলছে অনেককেই। অযোধ্যায় রামমন্দিরের পথ পরিষ্কার হওয়ার পরে অনেকের মনেই আশঙ্কা, এবার কি কাশীর বিশ্বনাথ মন্দিরের গায়ে জ্ঞানবাপী মসজিদ ও মথুরার শ্রীকৃষ্ণের জন্মভূমিতে শাহি ঈদগা গেরুয়া বাহিনীর নিশানায় চলে আসবে? 

আরএসএস-বিশ্ব হিন্দু পরিষদের নেতারা জানিয়েছেন, এমন কোনও পরিকল্পনা তাঁদের নেই। রামমন্দির তৈরিই তাঁদের একমাত্র লক্ষ্য। বাস্তবেও ভারত জুড়ে হিন্দুত্ব এমনিতেই যেভাবে ডানা মেলেছে, তাতে গেরুয়া বাহিনীর এই মুহূর্তে কাশী-মথুরার মসজিদ নিয়ে মাথা না ঘামালেও চলে। ২০১৪ সালে প্রধানমন্ত্রীর গদি দখলের জন্য হিন্দুত্বের প্রয়োজন পড়েনি নরেন্দ্র মোদির। পাঁচ বছর পরে ফের ক্ষমতায় ফিরতেও তাঁর তূণে রামমন্দির নামক তীর ছিল না। কিন্তু তাঁর রাজত্বেই গোরক্ষা বাহিনীর দাপট বেড়েছে। নাগরিকত্ব আইনে সংশোধনের পরিকল্পনার কথা বলে অমিত শাহ জানিয়েছেন, অন্য দেশ থেকে আসা মুসলিমদের এ দেশে জায়গা মিলবে না।

অযোধ্যা রায় ঘিরে আরএসএস নেতারা সহিষ্ণুতার বার্তা দিচ্ছেন। বার বার মুসলিম সমাজের সঙ্গে বৈঠকে বসছেন তারা। মোহন ভাগবতের মতে, অযোধ্যায় রামমন্দির তৈরি হলে হিন্দু-মুসলমান সমাজের মধ্যে বৈরিতা কাটবে। তবে, আরএসএস আসলে মনে করে, ভারতের সকলেই হিন্দু। গত সেপ্টেম্বরে সরসঙ্ঘচালক মোহন ভাগবত আরএসএস-এর সম্মেলনে বলেছিলেন, ভারতে বসবাসকারী সকলেরই জাতিগত পরিচয় হলো সে হিন্দু। ভাগবতের যুক্তি ছিল, মুসলিমরা আরএসএস-এর শাখার পাশে থাকলেই সবচেয়ে নিরাপদে থাকেন। অপপ্রচারে কান না দিয়ে মুসলিমদের আরএসএস-এর শাখায় গিয়ে সব কিছু জেনে-বুঝে নিতেও আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন তিনি। এ যেন ভারতের মুসলিম সমাজকে তাঁদের ডানার নীচেই আশ্রয় নিতে আহ্বান-বশ্যতা স্বীকার করে নিলেই নিরাপদে থাকা যায়। এই সহিষ্ণুতার বার্তা, শান্তির আবহ, অযোধ্যার রায়ের পরে মারদাঙ্গা না হওয়ায় অনেকেরই মনে হচ্ছে, বেশ, এই তো নাগরিক সমাজ কেমন পরিণতমনস্ক, পরধর্মসহিষ্ণু হয়ে উঠেছে। সংখ্যালঘুদের আর চিন্তা নেই।

সত্যিই কি তাই? কিন্তু অযোধ্যায় যদি উল্টো রায় হতো? আদালত রামমন্দিরে সবুজ সঙ্কেত দেওয়ায় আরএসএস অযোধ্যার রায়ে শুধু 'উদ্দীপ্ত' হয়েছে বলে জানিয়েছে। 'বিজয়ী ভাব' দেখায়নি। 'সংযম'-এর নীতি নিয়েছে। 

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি সুপ্রিম কোর্টের রায়কে ভারতের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির নতুন মাইলফলক হিসেবে তুলে ধরেছেন। নরেন্দ্র মোদি ও মোহন ভাগবত বোঝানোর চেষ্টা করছেন, এই রায় কারও হারজিত নয়। রায় উল্টো দিকে গেলেও তাঁরা একই কথা বলতেন কি?নিশ্চিত করে বলা যায় না। কারণ, এক বছর আগেই ২০১৮-র অক্টোবরে মোহন ভাগবত নিজে দাবি করেছিলেন, রামমন্দির তৈরিতে আইন আনুক মোদি সরকার। আদালতের শুনানিতে দেরি হলে তাকে 'ধৈর্যের পরীক্ষা' বলেও আখ্যা দিয়েছিলেন তিনি। পরিষদও ফের আন্দোলনে নামার হুঁশিয়ারি দিয়েছিল। তখন মোদি বুঝিয়েছিলেন, আদালতের রায়ের জন্য অপেক্ষা করা উচিত। লোকসভা ভোটের বৈতরনী পার হতেও মোদি দেশপ্রেম-জাতীয়তাবাদের আবেগে সওয়ার হয়েছিলেন। রামমন্দির তৈরির স্বপ্ন দেখিয়ে হিন্দুত্বের রাজনীতি করেননি। মোদির অবস্থান ছিল, আইনি ঘেরাটোপের মধ্যে থেকেই রামমন্দির তৈরি হবে।

আদালতের নির্দেশ অমান্য করে ১৯৯২ সালে বাবরি মসজিদ গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল। এর আগে লালকৃষ্ণ আদভানী রথযাত্রায় বেরিয়েছিলেন। সেই রথযাত্রা শুরু হয়েছিল গুজরাট থেকে। তার একটি অংশের সমন্বয়ের দায়িত্বে ছিলেন আজকের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা