kalerkantho

রবিবার। ১৭ নভেম্বর ২০১৯। ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

কাশ্মীর ইস্যুতে মার্কিন কংগ্রেসের শুনানি 'পাকিস্তানের পক্ষে'

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৩ অক্টোবর, ২০১৯ ১৪:৪৪ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



কাশ্মীর ইস্যুতে মার্কিন কংগ্রেসের শুনানি 'পাকিস্তানের পক্ষে'

ভারতীয় সাংবাদিক আরতি টিকু সিং

মঙ্গলবার জম্মু-কাশ্মীর ইস্যুতে মার্কিন কংগ্রেস উপ-কমিটির শুনানি হয়েছে। মার্কিন কংগ্রেসের ওই শুনানিকে 'পক্ষপাতদুষ্ট, কুসংস্কারাচ্ছন্ন, ভারতের বিরুদ্ধে এবং পাকিস্তানের পক্ষে' বলে মন্তব্য করেছেন ভারতীয় সাংবাদিক আরতি টিকু সিং। তিনি অভিযোগ করেন, পাকিস্তানের মদদপুষ্ট সন্ত্রাসবাদীদের হাতে ও কাশ্মীরের গণহত্যায় অসংখ্য মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। কিন্তু কোনও মানবাধিকারকর্মী এবং সংবাদমাধ্যমের এ নিয়ে মাথাব্যথা নেই। তারা জম্মু ও কাশ্মীরে ৩০ বছরের এই সন্ত্রাসকে পুরোপুরি উপেক্ষা করেছে।  

মঙ্গলবার ওয়াশিংটনে 'দক্ষিণ এশিয়ায় মানবাধিকার' সংক্রান্ত বিষয়ে মার্কিন বিদেশ বিষয়ক কমিটির শুনানিতে সাংবাদিক আরতি টিকু সিং বক্তব্য রাখেন। শুনানি চলাকালে তিনি বলেন, শুধুমাত্র পক্ষপাতদুষ্ট হয়েই ১৫ হাজার কাশ্মীরি মুসলিম নাগরিককে মেরে ফেলা হয়েছে। 

তিনি বলেন, ১৯৯০ সালে কাশ্মীর থেকে জাতিগতভাবে সাফ হয়ে যাওয়া তিন লক্ষ কাশ্মীরি পন্ডিতদের বিরুদ্ধে যা যা করা হয়েছিল সেগুলিও পক্ষপাতদুষ্টতার প্রভাবেই হয়েছিল। ১৯৯০ সালে কাশ্মীরে কাজ করা সাতশ'রও বেশি কাশ্মীরি পন্ডিতের বিরুদ্ধে পক্ষপাতদুষ্ট পদক্ষেপ নেওয়া হয়।

ওই বিশিষ্ট সাংবাদিক বলেন, আমি যে মৌলিক বিষয়টিতে জোর দিতে চাইছি তা হলো যে সন্ত্রাসবাদীরা কাশ্মীরে সন্ত্রাস ও গণহত্যা চালিয়েছে তাঁদের বরাবর মদদ দিয়ে এসেছে পাকিস্তান। কাশ্মীরে যে সকল কাশ্মীরি মুসলমান নিহত হয়েছেন তাঁদের সংখ্যা অনেক। এবং তাঁরা পাকিস্তানের দ্বারা নির্যাতিত হয়েছেন, যেটি আসলে একটি সন্ত্রাসবাদী রাষ্ট্র। কাশ্মীরে ৩০ বছরের ইসলামিক জিহাদ ও সন্ত্রাসের ঘটনাগুলিও পাকিস্তানের মদদে সংঘটিত হয়েছে এবং বিশ্ব সংবাদমাধ্যমগুলি এই ঘটনাগুলিকে উপেক্ষা করেছে ।

কথোপকথনের সময়, এমএস সিংয়ের সঙ্গে মার্কিন কংগ্রেসের নারী সদস্য ইলহান ওমরের বাগযুদ্ধ বাঁধে। ওমর তাঁকে পরামর্শ দেন যাতে ওই সাংবাদিক শ্রোতাদের প্রতি দায়িত্ববান হন এবং 'অবিশ্বাস্যভাবে সন্দেহজনক' দাবি না করেন। 

ইলহান ওমর সাংবাদিক আরতি টিকু সিং-র উদ্দেশে বলেন, একজন রিপোর্টারের কাজ হলো যা ঘটছে তার সত্যটি খুঁজে বের করে জনগণকে জানানো।  আপনার টাইমস অফ ইন্ডিয়ার এক বিশাল পাঠক শ্রেণী রয়েছে এবং এ জন্যেই আপনার বিশাল দায়িত্বও রয়েছে। আপনি কীভাবে সচেতনভাবে একটি সত্যকে বিকৃত করতে পারেন। আমি এটা বুঝতে পারছি যে, কীভাবে আপনি কেবল সংবাদের সরকারি দিকটি সরকারের এক  মুখপাত্র হয়ে শেয়ার করছেন। কাশ্মীরের একমাত্র সমস্যা হলো সন্ত্রাসবাদ, এমনটাই আপনি বোঝাতে চাইছেন। 

এর আগে, মার্কিন সহকারী সচিব এলিস ওয়েলস বলেন, কাশ্মীর উপত্যকার পরিস্থিতি নিয়ে এখনও উদ্বিগ্ন রয়েছে ডিপার্টমেন্ট। ৫ আগস্ট  ভারত যখন কাশ্মীর উপত্যকার বিশেষ রাজ্যের মর্যাদা প্রত্যাহারের ঘোষণা দেয়, তার পদক্ষেপের প্রভাব পড়ে ৮০ লাখ মানুষের দৈনন্দিন জীবনের ওপর। 

তিনি বলেন, জম্মু ও কাশ্মীরের তিনজন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীসহ স্থানীয় বাসিন্দা ও রাজনৈতিক নেতাদের আটক করা নিয়ে ভারত সরকারের পদক্ষেপে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে মার্কিন ডিপার্টমেন্ট। আমরা ভারতের কর্তৃপক্ষকে মানবধিকারকে সম্মান জানাতে বলেছি, এবং ইন্টারনেট, মোবাইলসহ পরিষেবাগুলি ফেরাতে অনুরোধ করেছি। 

সূত্র : এনডিটিভি 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা