kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৪ নভেম্বর ২০১৯। ২৯ কার্তিক ১৪২৬। ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

সিরিয়ায় ‘নিরাপত্তা অঞ্চল’ চায় জার্মানি

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২২ অক্টোবর, ২০১৯ ১৬:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সিরিয়ায় ‘নিরাপত্তা অঞ্চল’ চায় জার্মানি

সিরিয়ায় ইউরোপের শক্ত পদক্ষেপ নেওয়া প্রয়োজন বলে মনে করেন জার্মানির প্রতিরক্ষামন্ত্রী। তুরস্ক ও রাশিয়াকে সঙ্গে নিয়ে একটি আন্তর্জাতিক নিরাপত্তা অঞ্চল গঠন করা যেতে পারে। যার মূল লক্ষ্য হবে সন্ত্রাস এবং ইসলামিক স্টেটের বিরুদ্ধে আবারও লড়াই শুরু করা বলে জানিয়েছেন তিনি। ডয়চে ভেলেকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি এসব কথা বলেন।

জার্মানির প্রতিরক্ষামন্ত্রী ক্রাম্প কারেনবাউয়ার বলেন, এর মাধ্যমে এই অঞ্চলে স্থিতিশীলতা ফিরে আসবে যা সেখানকার মানুষের স্বাভাবিক জীবনযাপন আবারও নিশ্চিত করবে এবং যারা বিতাড়িত হয়েছে তারাও স্বেচ্ছায় ফিরে আসতে পারবে।

কারেনবাউয়ার বলেন, ইউরোপ এখানে শুধু দর্শকের ভূমিকায় থাকতে পারে না। আমাদেরকে অবশ্যই নিজেদের সুপারিশ ও পদক্ষেপ নিয়ে আলোচনা করতে হবে।

গত ৯ অক্টোবর সিরিয়ার উত্তর পূর্বের সীমান্তবর্তী অঞ্চল থেকে কুর্দি বিদ্রোহীদের দমনে অভিযান শুরু করে তুরস্ক। এর ফলে সেখানে বন্দী ইসলামিক স্টেটের জঙ্গিরা পালিয়ে যাওয়ার সুযোগ পেয়েছে। যা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে আসছে জার্মানি ও ইউরোপ। কারেনবাউয়ার বলেন, উত্তরপূর্ব সিরিয়ার বর্তমান পরিস্থিতি ইউরোপ এবং জার্মানির নিরাপত্তা স্বার্থের সঙ্গে জড়িত। যে কারণে এই বিষয়ে ইউরোপের একটি শক্ত পদক্ষেপ জরুরি। তিনি আন্তর্জাতিক নিরাপত্তা অঞ্চল গঠনের আলোচনায় তুরস্ক ও রাশিয়াকেও অন্তর্ভুক্ত করার পক্ষপাতী। তিনি বলেন, কেউ পছন্দ করুক আর না করুক সিরিয়ায় রাশিয়া অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ একটি পক্ষ। এজন্য জাতিসংঘের নিরাপত্তা কাউন্সিলে সিরিয়া সংঘাতের সঙ্গে যুক্ত দেশগুলোর মধ্যে দ্বিপাক্ষিক আলোচনা শুরু হতে পারে বলে জানান প্রতিরক্ষামন্ত্রী। 

সুপারিশটি সম্পর্কে জার্মানি চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল অবগত আছেন বলেও জানান দেশটির ক্ষমতাসীন ক্রিশ্চিয়ান ডেমোক্র্যাট দলের এই নেতা। তবে যেকোন সিদ্ধান্তই জার্মান মন্ত্রীসভা এবং সংসদ বুন্ডেসটাগের মাধ্যমে নেওয়া হবে বলেও নিশ্চিত করেন তিনি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা