kalerkantho

বুধবার । ২০ নভেম্বর ২০১৯। ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২২ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

'কলি যুগের কৃষ্ণ'র আশ্রমে মিলল ৫০০ কোটি টাকার অবৈধ সম্পদ!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২০ অক্টোবর, ২০১৯ ১১:০১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



'কলি যুগের কৃষ্ণ'র আশ্রমে মিলল ৫০০ কোটি টাকার অবৈধ সম্পদ!

বিজয় কুমার

আয়কর ফাঁকি দেয়ার অভিযোগে ভারতের 'কল্কি বাবার' আশ্রমে হানা দিয়েছেন দেশটির আয়কর দপ্তরের কর্মকর্তারা। এই অভিযানে উদ্ধার হয়েছে হিসাব বহির্ভূত নগদ ৯৩ কোটি টাকা। সঙ্গে সোনা, হিরা মিলিয়ে ৪০৯ কোটি টাকার সম্পত্তি। বিজয় কুমার নামে ওই গুরু নিজেকে কলি যুগের কৃষ্ণ বা কৃষ্ণের দশম অবতার বলে পরিচয় দিয়ে থাকেন। 

বিজয় কুমার নিজেকে কৃষ্ণের দশম অবতার হিসাবে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। কিন্তু একসময় ছিলেন সরকারি অফিসের সামান্য বেতনের কেরানী। কল্কি বাবা নামেই তিনি এখন খ্যাত।  আশির দশকের মাঝামাঝি তিনি চাকরি ছেড়ে চিত্তুরে একটি স্কুল খোলেন। এর নাম দেন 'জিবাশ্রম'। তার শিষ্যদের আধ্যাত্মিক পাঠ দিতেন তিনি। ক্রমে তার শিষ্যের সংখ্যা বাড়তে থাকে। চিত্তুরে তিনি ‘ওয়াননেস’ নামে একটি বিশ্ববিদ্যালয়ও খুলেন। প্রচুর সেলিব্রিটি এবং বড় ব্যবসায়ীও তার শিষ্য হয়ে যান।

নব্বইয়ের দশকে তিনি নিজেকে কৃষ্ণের দশম অবতার 'কল্কি' হিসাবে ঘোষণা করেন। অন্ধ্রপ্রদেশ, তামিলনাড়ু, কর্নাটকে তার প্রচুর আশ্রম রয়েছে। বিদেশেও তার যাতায়াত রয়েছে। বিদেশে অনেক জায়গায় গিয়ে তিনি নিজের মতবাদ প্রচার করে এসেছেন। দেশ-বিদেশে তার যাবতীয় আশ্রমের অ্যাকাউন্ট দেখভালের দায়িত্বে ছিলেন স্ত্রী পদ্মাবতী এবং ছেলে এনকেভি কৃষ্ণ।

ভারতীয় আয়কর দফতর সূত্রে জানা গেছে, তার প্রতিটা আশ্রমেরই হিসাব বহির্ভূত আয় রয়েছে। সেই আয় সরকারের কাছে গোপন রাখা হতো। এই তথ্য হাতে পাওয়ার পরই ১৬ অক্টোবর থেকে বিভিন্ন আশ্রমে তল্লাশি শুরু করেন আয়কর কর্মকর্তারা

এসব আশ্রমে ১৮ কোটি টাকার মূল্যের নগদ মার্কিন ডলার উদ্ধার হয়েছে। বাজেয়াপ্ত হয়েছে ৮৮ কেজি সোনা, যার মূল্য ২৬ কোটি টাকা এবং ১ হাজার ২৭১ ক্যারাটের হিরা। সব মিলিয়ে মোট ৫০০ কোটি টাকারও বেশি হিসাব বহির্ভূত সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করেছেন আয়কর কর্মকর্তারা

সূত্র : আনন্দবাজার 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা