kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৪ নভেম্বর ২০১৯। ২৯ কার্তিক ১৪২৬। ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

এক পুরুষ যৌনকর্মীর 'টেরিবল' জীবন!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৬ অক্টোবর, ২০১৯ ১৯:৪০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



এক পুরুষ যৌনকর্মীর 'টেরিবল' জীবন!

রহিম একজন যৌনকর্মী, যিনি পুরুষ ও নারী উভয়ের সঙ্গে যৌনসঙ্গম করে থাকেন। তবে নিজের এই পেশাটিকে সবার কাছে গোপন রাখেন তিনি। রহিমের বেশির ভাগ খদ্দেরই ইউরোপীয়। মাত্র দেড় হাজার ইউরোর বিনিময়ে খদ্দেরদের হাতের পুতুল হয়ে থাকতে হয় রহিমকে। কিন্তু তারপরও পরিবারের জন্য দু'মুঠো অন্ন জোগাড় করতে হিমশিম খেতে হয়।

ডয়চে ভেলের সাংবাদিক এডিথ গাম্বিয়ার সেরেকুন্ডা শহরের বাসিন্দা রহিমের সঙ্গে কথা বলেছেন।

এডিথ : আচ্ছা, প্রথমবার কত টাকার বিনিময়ে কাজ করতে রাজি হয়েছিলেন আপনি? কত টাকাকে সঠিক পারিশ্রমিক বলে মনে হয়েছিল?
রহিম : খুব বেশি নয়, মাত্র ১ হাজার ৫০০ ইউরো।
রহিম : আমার খদ্দেরদের অধিকাংশই পর্যটক। তারা ঘুরে-ফিরে বেড়ায়। মানুষজনের সঙ্গে কথা বলে। আমাদের ওপরও দূর থেকে নজর রাখে। তারপর কাউকে পছন্দ হলে তার কাছে যায়, সেক্স করে।

গাম্বিয়ার জিডিপির প্রায় ১০ শতাংশ আসে যৌন পর্যটন থেকে। দেশের মোট জনসংখ্যার প্রায় ২০ শতাংশ মানুষের আয়ের উৎস এই খাত। এরপরও অবশ্য এখানকার মানুষ এমন ভান করেন যে, তারা কিছুই জানেন না।

দেবোরা ইভেস সেরেকুন্ডায় একটি জনপ্রিয় বার চালান, তাই সেখানে যা যা হয়, সবই তার জানা। 'দ্য ব্রিটানিয়া'র মালিক দেবোরা ইভেস বলেন, যৌন পর্যটন কোনোদিনই বন্ধ হবে না। অনেকের জন্য এ পেশা সহজে অর্থ রোজগারের একটা পথ। কেউ নতুন পোশাক বা গয়নার জন্য এটা করে। কেউ কেউ আবার এ পথ বেছে নিতে বাধ্য হন, পরিবারের দিকে তাকিয়ে।

গাম্বিয়ার অধিকাংশ মানুষই আসলে গরিব। সে দেশের বেকারত্বের হার প্রায় ৪৫ শতাংশ। তাই রাজনীতিবিদরাও যৌন পর্যটন থেকে ফায়দা তোলেন।

যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রী হেনরি গোমেজ বলেন, গাম্বিয়া বন্ধুবৎসল দেশ। লোকে গাম্বিয়া ‌'আফ্রিকার হাস্যোজ্জ্বল উপকূল' বলে থাকেন। তাই কোনো নারী বা পুরুষ যদি পর্যটকদের সঙ্গে কথা বলে, তবে তাকে আমি তো সেটা করতে মানা করতে পারি না! 

কিন্তু যৌনকর্মীরা কী পেয়ে থাকেন এর থেকে?

এডিথ : এ রকম কি কখনো মনে হয়েছিল যে করতে যখন হবেই, তখন না হয় একটু আনন্দ, একটু সুখ পেলামই?
রহিম : না, এ কাজ আমি উপভোগ করি না। এটা আমার ব্যবসা। এ কাজ আমি শুধুমাত্র অর্থের বিনিময়ে করি।
এডিথ : এ কাজ করতে কি আপনার ভালো লাগে? স্বস্তি পান?
রহিম : না, একেবারেই ভালো নাগে না।
এডিথ : তাহলে কেমন লাগে?
রহিম : জঘন্য।

ডয়চে ভেলের ভিডিও প্রতিবেদন থেকে

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা